অন্তর্দাহ

সৌমেন কুমার

মুদ্রাশূন্য মানুষের তালু তলে বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ড
কেঁপে কেঁপে নীল নীল জ্বালায় হতশ্রী।
অবিলম্বে আনন্দের মেয়াদ ফুরায় শ্রমীর
অথচ হাসি উবে যায় না হিংস্র স্বেচ্ছাচারীর।
বাঁধ ভাঙ্গা বিকৃত বিলাসে উন্মত্ত
কঙ্কলসার নিরীহ অবনতর সাথে যুদ্ধরাজ
যুদ্ধংদেহী বুদ্ধিমিয়া যুদ্ধরত অদ্যাবধি।
বিজ্ঞাপন সুন্দরী রম্ভা উর্বশীর অগ্নি হাসিতে
পয়সা, দিঘিচোখের দৃষ্টিতে মদের নেশা,
মাতাল হয়ে যাচ্ছে সংস্কৃতিপ্রেমী।
কামের আধারে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট
হয়ে অজানা কালো গহ্বরে হারায়,
প্রাণের ফুয়েল ফুরায়, চেতনায় অশ্লীলতার আবাদ হয়।
আবাদ হয় না শীলতার, পবিত্রতার।
নিখাদ সারল্য মাখা মুখ গুলো ক্রমে ক্রমে
নির্জীব হয়ে যাচ্ছে যেন ঐশ্বরিক অভিশাপে।
উদাসী মেঘের নীরব অবজ্ঞা নির্বাক শূন্যের ঘাড়েÑ
বিবেকের বুকে হুল মারে অতীতের পুণ্য স্মৃতি।
নিষ্পাপ বৃক্ষরা পাপের পাহারদার
ধূলি মেখে অন্তর্দাহ থেকে বাঁচতে চায়।