বিভাগ: সাহিত্য

লাল-সবুজের পতাকায়

ফাতেমাতুজ যাহরা স্মৃতি

খোকন সোনা বসে বসে
ভাবে অনেক কিছু
ভাবনারা ঘুরে শুধু
তার পিছু পিছু।

খোকন সোনা বসে বসে
ভাবে শুধুই ভাবে
আজকে যে তার সবকিছুই
জানতে হবেই হবে।

সবার বাবা আছে শুধু
তার কেন বাবা নাই
কোথায় গেছে আসবে কবে
জানাযে আজ তার চাই।

পাকরুমে মা ব্যস্ত ছিলেন করছিলেন রান্না
ছেলের কথা শুনে চোখে
নামে অশ্র“ বন্যা।

দু ‘চোখ মুছে আম্মু বলেন
খুব কষ্টে হেসে
লাল- সবুজের ওই পতাকায়
আছেন তিনি মিশে।

তাদের স্বরে

হাজেরা সুলতানা হাসি

বিজয়ের পতাকা হাতে হেসেছিলো সেদিনই,
মুক্তি পাগল মানুষগুলা করলো মোদের ঋণী।
যুদ্ধ করে জীবন দিলো
যুদ্ধ হল শেষ,
তাদের ত্যাগে পেলাম আজ
আমরা মুক্ত দেশ।
আজো তাই তাদের স্মরি
পরম শ্রদ্ধা ভরে,
ভুলিনি কখনো তোমাদের শ্রদ্ধায় যাবো স্মরে

 

জীবনের রঙ

খালেদা আক্তার অনন্যা

জীবনের রূপ রং- বড়ই বিচিত্র! কারো জীবনের রঙ, সাদা- কালো, কারো ধূসর, কারো বা নীল!
কারো কারো- শুধুই কালো,
কারো অধ্যায়ে জীবন- নীলের মিশ্রণ!
শুধু সাদা? নো নেভার!!
মিশ্রণ থাকে, হয় কালো- সাদা, নয়তো- অন্য কিছু,
জাস্ট সাদার মিশ্রণের জীবন পাওয়া বড়ই- দুরূহ!!

 

রক্তে লেখা ইতিহাস

আয়েশা সিদ্দিকা আতিকা

উনিশ’শ একাত্তরের ষোলই ডিসেম্বর
বিজয় দিবস পেলাম
ত্রিশ লক্ষ শহীদ ভাইয়ের
রক্তের ফলের সংগ্রাম।

বাংলার আকাশে স্বাধীন পতাকা
যখন উত্তেলিত হয়
সবার মনে ঠিক তখনি
কেটে গেছে ভয়।

তোমাদের বীরত্ব গাঁথা অমর ইতিহাস
ভুলব কি করে?
বিজয় এলে নয় সবসময়ই
তোমাদের কথা মনে পড়ে।

অনেক দোয়া সবসময় আছে
তোমাদের তরে
দু’হাত তুললে তোমাদের কথা
যাই যে স্মরে।

৭১ এর কাহিনী

মোঃ আলাউদ্দিন তালুকদার

৭১-এ পাক-বাহিনীর বিরুদ্ধে
পূর্ব পাকিস্তানের যে সংগ্রাম হয়,
সেই সংগ্রামেই বাংলাদেশ নামক
স্বাধীন রাষ্ট্রের জন্ম হয়!

২৫ই মার্চের কালো রাতে
পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী,
পূর্ব পাকিস্তানের বাঙালি নিধনের
মর্মান্তিক এক কাহিনী!

স্বাধীনতা যুদ্ধের সূচনা ঘটে
ঘটে ঢাকায় সেই রাতে,
অজ¯্র বাঙালি নর-নারীকে
হত্যা করে এক সাথে!

৭০ সালের নির্বাচনে
শেখ মুজিব যখন জয়ী হয়,
গ্রেফতার পূর্বেই বাংলাদেশের
স্বাধীনতার ঘোষণা হয়!

পরিকল্পিত গণহত্যা
প্রতিরোধ যুদ্ধের সূত্র হয়,
জীবন বাঁচাতে লক্ষ লক্ষ মানুষ
ভারতে তখন আশ্রয় লয়!

বাংলার সকল দামাল ছেলেরা
স্বাধীনতাকামী দেশ বাঁচাতে,
মুক্তিবাহিনী গড়ে তোলে
পাক-বাহিনীকে নাচাতে!

গেরিলা যুদ্ধ চালায় সারাদেশে
বাংলার মুক্তিবাহিনী
দিশেহারা হয়ে পড়ে,
পাক-হানাদার বাহিনী!

মুুক্তিযুদ্ধ চলাকালে
বাংলাদেশকে ভারতে,
আর্থিক, সামরিক, কূটনৈতিক
সহায়তা করে সবখাতে!

ডিসেম্বরের শুরু লগ্নে
পাক-বাহিনীর পরাজয়,
পরাজয়ের লজ্জা এড়াতে
ভারত যুদ্ধে লিপ্ত হয়!

মুক্তি বাহিনী ও ভারত বাহিনীর
আক্রমণে পড়লে,
বাঙালি পায় স্বাধীন দেশ
পাক-বাহিনী, আত্মসমর্পণ করলে!

 

বিজয় উল্লাস

রমজান আলী রনি

পাহাড়ের ঐ ঝর্ণার সাথে
উল্লাসে মাতে স্বচ্ছ জল,
পাখির সাথে সুর মিলিয়ে
বিজয় উল্লাসে মাতি চল।

ফুলেরা আজ বরণ ঢালায়
গাইছে বিজয়ের খুশির গান,
মায়ের চোখে খুশির অশ্র“
বাংলা পায় নতুন প্রাণ।

শহর-বন্দর বিশ্ব মাঝে
উড়ে লাল সবুজের পতাকা,
খুকির মুখে-খোকার গালে
সোনার বাংলার নিশান আঁকা।

প্রকৃতি আজ মুক্ত স্বাধীন
নেই কোন সীমারেখা,
নয় মাসের মহান মুক্তিযুদ্ধে
স্বাধীনতার পেলাম দেখা।

আপন মনে হবে

নেছার আহমদ নেছার

বেলা শেষে বসে আছ
জীবনের প্রান্তে, একাকী নিভৃতে
কার অভিশাপ নিয়ে বন্ধু;
এ কেমন দীর্ঘশ^াস তোমার;
বাতাস উত্তপ্ত হয়ে যায়Ñ
ব্যকুল আত্মাটা ছটফট করে,
না পাওয়ার বিষাদে ভরা
বিরহী কন্ঠে শত গান শুনি।

এ-ভাবে জীবনকে নিঃশেষ করে
দিয়ে লাভটা হবে কার?
নিশ্চয় কারো নয়;
তাই-একটু অভিমান ছুড়ে ফেলে দাও
পৃথিবীটা সুন্দর করে দেখ
সবকিছুই আজ আপন মনে হবে।

তোমরা রক্ত দিয়ে

আইরিন আসাদ

তোমরা রক্ত দিয়ে
প্রাণ দিয়েছো
দিয়েছো এ দেশ।

কতো যাতনা
কতো লাঞ্ছনা
সয়ে গেছো
মুখ টা বুজে।

ভয় ছিলনা
ছিল না পিছুটান।

বুক টা দিয়েছো
আগে পেতে।

সবার আগে দেশ
করবোই জয়
এ সলোগান দিয়ে।

যা হবার তা হবে
স্বাধীন এ দেশ
স্বাধীন এ জাতি
তোমাদের ই জন্য
তাই তোমাদের
জানাই সালাম
আজীবনের জন্য।

 

 

রোবট সুফিয়া

তারেক লিমন

আলাদিনের চেরাগ নয়
গল্প ও নয় রূপ কথার
বলছি কথা শুনো সবাই
মানবী রোবট সুফিয়ার,

মেড ইন হংকং,সৌদি আরবি
বাংলাদেশে আগমন
বুদ্ধিমতীর, বুদ্ধির খেলায়
কেড়েছে সবার মন,

দেখতে হলিউড অভিনেত্রী
অড্রে হেপাকান্ডের মতই
উক্তর দেবে সঠিক সঠিক
প্রশ্ন করো যতই,

সব জানতার এই, মানবী রোবট
অনেক কিছুই জানে
রোবটরা একদিন,রাজত্ব করবে
এটাই সে মানে,

মা হতে চায়, রোবট সুফিয়া
সংসার ও তাঁর থাকবে
বেবি রোবট,মিষ্টি করে
মা- মা – বলে ডাকবে,

রোবট সুফিয়ার গল্প কথা
বললে হবেনা শেষ
রোবট সুফিয়া অনেক খুশি
এসে বাংলাদেশ………..।।

 

রঙিন স্বপ্ন

হাজেরা সুলতানা হাসি

রঙিন রঙিন স্বপ্ন বুনতে
কার না লাগে ভালো,
চাই না আঁধারময় ভুবন
চাই তো ভোরের আলো।

ভালোবাসি তাইতো হাসি
রঙীন স্বপ্ন বুনি,
ভয়টা ঠেলে জয়ের পথে হাঁটি
জয়কে কাছে টানি।

সুন্দর স্বপ্ন আঁকো চোখে
নেই তাতে মন্দ,
ভালোর আলোয় ভরে ওঠুক
সবার মনের ছন্দ।

ঠিকই তখন এই ধরাতে
থাকবে ছড়ানো সুখ
পালিয়ে যাবে অচিনপুরে
তোমার সকল দু:খ।

মন্দকে সব দূরে ছুঁড়ি
দূর বহু দূর
বিশ্ব ভুবন উঠবে ভরে
নিয়ে উচ্ছ্বাসের সূর।