যথাযোগ্য মর্যাদায় অমর একুশে ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত ॥ বাংলা ভাষার বিকৃতি রোধ ও সর্বস্তরের বাংলা ভাষা চালুর দাবী

স্টাফ রিপোর্টার :
বাংলার ভাষার বিকৃতি রোধ ও সর্বস্তরের বাংলা ভাষা চালুর দাবীর মধ্যে দিয়ে সারা দেশের মতো সিলেটেও যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে মহান একুশে ফেব্র“য়ারী ও আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস। দিবসটি উপলক্ষে সরকারী-বেসরকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে ব্যাপক কর্মসূচী পালন করা হয়। কর্মসূচীর মধ্যে ছিল একুশের প্রথম প্রহরে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ, প্রভাত ফেরী, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ইত্যাদি।
সরকারী-বেসরকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পালিত কর্মসূচি :
সিরাজ উদ্দিন আহমদ একাডেমী : সিলেট-৩ আসনের এমপি, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য, মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী বলেছেন, মার্তৃভাষা আন্দোলন আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগ্রামকে চেতনা যুগিয়েছে। শহীদদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত ভাষা দিবস আজ আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে স্বীকৃতি পেয়েছে। এটা বাঙালি জাতির জন্য গৌরবের বিষয়। ভাষার মর্যাদা অক্ষুণœ রাখতে শিক্ষার্থীদের সচেষ্ট থাকতে হবে। ভাষা সৈনিক সিরাজ উদ্দিন আহমদ মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে গেছেন। তিনি লোভ লালসার ঊর্ধ্বে থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। শিক্ষার আলো উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে দিতে তিনি নিরলসভাবে কাজ করে গেছেন। পরিশেষে তিনি সিরাজ উদ্দিন আহমদের রূহের মাগফেরাত কামনা করেন।
তিনি ২১ ফেব্র“য়ারী বুধবার দুপুরে সিরাজ উদ্দিন আহমদ একাডেমীতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস, প্রতিষ্ঠাতার ৮৩ তম জন্মবার্ষিকীর আলোচনা সভা ও বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
সিরাজ উদ্দিন আহমদ একাডেমীর ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ডা. মোঃ শামীমুর রহমানের সভাপতিত্বে, সহকারী প্রধান শিক্ষক মকব্বির আলী এবং সিনিয়র শিক্ষক মইনুল ইসলামের যৌথ পরিচালনায় আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন একাডেমীর প্রধান শিক্ষক বেলাল আহমদ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মোগলা বাজার থানার ওসি আনোয়ার হোসেন, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক রাজ্জাক হোসেন, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আকরাম হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা বিজয় দেব নাথ, সেলিম আহমদ মেম্বার, এডভোকেট শামীম আহমদ। বক্তব্য রাখেন সিরাজ উদ্দিন আহমদ একাডেমীর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মুদাব্বির আহমদ, শিক্ষানুরাগী সদস্য মোঃ আনা মিয়া, অভিভাবক সদস্য শাহ রাজা মোঃ আহমদুর রব, কামাল উদ্দিন, অভিভাবক আলহাজ্ব খালেদ হোসেন, শ্রীরামপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আলমগীর আহমদ, শামীম আহমদ, শিক্ষক শফির আহমদ কামাল, আমিনা বেগম ও আবুল কালাম আজাদ, জেলা যুবলীগের সহ সভাপতি মাহমুদুর রব, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছদরুল ইসলাম, কুচাই ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাহেদ আহমদ রুমেল, শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা সভাপতি সুয়েব আহমদ, ছাত্রলীগ নেতা সাদিকুর রহমান সাদিক, মোস্তাফিজুর রহমান, ছানাউর আহমদ, আতিকুল হাসান লাভলু, পিন্টু দেব নাথ, আরিফুর রহমান প্রমুখ। শুরুতে পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করে ছাত্র ইশতিয়াক আহমদ সানি।
আলোর অন্বেষণ : সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র রেজাউল হাসান কয়েস লোদী বলেছেন- ৫২ এর ভাষা আন্দোলন আমাদের জাতিসত্ত্বার এক গৌরবোজ্জল ইতিহাসের অংশ। রক্ত দিয়ে শাহাদাতের বিনিময়ের ভাষার স্বাধীনতা অর্জনের একমাত্র ইতিহাস আমাদেরই। বাংলা ভাষার বিজয়ের জন্যই ২১ ফেব্র“য়ারী আজ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে। যা আমাদেরকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে গেছে। মহান ভাষা আন্দোলনের ঐতিহাসিক চেতনা আমাদের যুব সমাজের মাঝে জাগ্রত করতে হবে। ভাষা দিবসে বিনামূল্যে ফ্রি ব্লাড গ্র“পিংয়ের মতো ব্যতিক্রমী ও মহৎ কর্মসূচী গ্রহণের মাধ্যমে আলোর অন্বেষণ যে উদ্যোগ নিয়েছে তা নিঃসন্দেহে মাইলফলক হয়ে থাকবে।
তিনি মহান একুশে ফেব্র“য়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘আলোর অন্বেষণ’র উদ্যোগে এবং ক্রিসেন্ট ব্লাড ব্যাংকের সহযোগিতায় বিনা মূল্যে রক্তের গ্র“প নির্ণয় কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন। আলোর অন্বেষণ’র সভাপতি সাজন আহমদ সাজুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক তফাজ্জুল হক সুমনের পরিচালনয় অনুষ্ঠিত ফ্রি ব্লাড গ্র“পিং অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ফরহাদ চৌধুরী শামীম, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের সিলেট বিভাগীয় সভাপতি আব্দুল বাতিন ফয়সল, বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও শিক্ষানুরাগী হুমায়ুন আহমদ মাশুক, সমাজ সেবক লুৎফুর রহমান ও এম.এ ওয়াদুদ। বক্তব্য রাখেন- আলোর অন্বেষণ’র সিনিয়র সহ-সভাপতি সাংবাদিক এমজেএইচ জামিল ও বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন সিলেট মহানগরের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রাশেদ।
সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট সিলেট : বাংলা সংস্কৃতির ধারক ও বাহক সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট সিলেট ২১ ফেব্র“য়ারী বিকাল ৩টায় আম্বরখানাস্থ গোল্ডেন টাওয়ারে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস উপলক্ষে “স্মরণে বরণে বর্ণমালা, গান কবিতায় একুশ” শীর্ষক এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
সংগঠনের সভাপতি জয়নাল আবেদীন জুয়েলের সভাপতিত্বে এবং সাধারন সম্পাদক জামাল আহম্মদ এর পরিচালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক ফয়জুর আনোয়ার আলাউর, বিশেষ অতিথি ছিলেন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক তাপষ মিত্র, সাংস্কৃতিক সম্পাদক প্রিন্স সদরুজ্জামান চৌধুরী ও বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট সিলেটের সভাপতি বেলাল আহমদ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, সর্বস্তরে বাংলা ভাষার প্রচলন এবং অন্তমূলে বাঙ্গালী সংস্কৃতি ধারনের মধ্য দিয়ে ভাষা শহীদদের স্বপ্নের প্রতিফলন ঘটাতে হবে। আজ প্রয়োজন সর্বস্তরের সংস্কৃতি কর্মীদের বাঙ্গালী চেতনায় উদ্ভুদ্ধ হয়ে সকল অপসংস্কৃতির বিরুদ্ধে সোচ্ছার ভূমিকা পালন করা।
বক্তব্যের শুরুতে শুভেচ্ছা রাখেন জোটের প্রকাশনা সম্পাদক এম এম শরীফুল আলম তুহিন। অন্যান্যের মধ্যে রাখেন, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট সিলেটের সহ সভাপতি লিটন পাল, সাধারন সম্পাদক এইচ আর শাকিল আহমদ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট সিলেট’র সহ সভাপতি সিরাজ আনোয়ার, বিরহী কালা মিয়া, ডি কে জয়ন্ত, সদস্য সৈয়দ মুত্তাকিম আলী আজাদ, বাংলাদেশ তাঁতীলীগ জেলা সদস্য পারভেজ আহমদ রাজু, জুবেল আহমদ, ফারুক আহমদ, টিপু সুলতান, অরুন দেবনাথ, এম এ স্বপন প্রমুখ।
অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে সংগীত ও কবিতা পরিবেশন করেন, বাউল বিরহী কালা মিয়া, জামাল আহম্মদ, সিরাজ আনোয়ার, ডি কে জয়ন্ত, শ্বাসতি চক্রবর্তী, বাবুল সরকার, শতাব্দি চক্রবর্তী পরমা, ফরিদা ইয়াসমিন হ্যাপি, অঙ্কন দত্ত, স্বপন সেন, এম এস রহমান ও রাহুল দেবনাথ।
রাইজ স্কুল : রয়েল ইন্সটিটিউট অব স্মার্ট এডুকেশন রাইজ স্কুলের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে কর্মশালা ও চিত্রাংকন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঢাকার চারুকলাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে আগত চিত্রশিল্পীরা রাইজ স্কুলের শিক্ষার্থীদের নিয়ে চিত্রাংকন কর্মশালা করেন। ঢাকা থেকে আগত শিল্পীদের তত্ত্বাবধানে কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। শিক্ষার্থীদের অংকনের বিভিন্ন বিষয়ে হাতেকলমে শিক্ষা দেন শিল্পীরা। কর্মশালার পরে রাইজ স্কুলের খেলার মাঠের দেয়ালে শিক্ষার্থীদের দিয়ে দেয়ালচিত্র অংকন করান চারুকলার শিল্পীরা। এ দেয়ালচিত্রের মাধ্যমে ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস, বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস ফুটিয়ে তোলা হয়।
শিক্ষার্থীদের আঁকা দেয়ালচিত্র ঢাকার শিল্পীদের নিয়ে উদ্বোধন করে ঘুরে দেখেন রাইজ স্কুলের প্রিন্সিপাল ডরেট ওয়াট। এ সময় শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরাও উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধনকালে ডরেট ওয়াট বলেন, ‘রাইজ স্কুল আধুনিক শিক্ষা প্রদানের পাশাপাশি শিশুদের প্রতিভা বিকাশেরও পদক্ষেপ নিয়ে থাকে। চিত্রকলা একটি আদর্শ মাধ্যম, শিশুদের প্রতিভা বিকাশের মাধ্যম। ভাষা আন্দোলন ও দেশের ইতিহাস জানা প্রতিটি শিশুর জন্য জরুরী। এই দেয়ালচিত্রের মাধ্যমে ভাষা আন্দোলন ও স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাস জানতে পারবে শিশুরা।’ শিক্ষার্থীদের আঁকা দেয়ালচিত্র দেখে শিল্পী ও অভিভাকরা মুগ্ধ হন।
এসময় ঢাকা থেকে আসা চিত্রশিল্পী মাহমুদুর রহমান দীপন, দিদারুল আলম, রাশেদ কামাল রাসেল, রানিয়া আলম, ফরহাদ আলী খান, জাহিদ হোসেন, মাসুম ইসলাম খান, শাহনাজ আক্তার, নাজমুন নাহার, নাজিয়া কাশসাস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া রাইজ স্কুলের শিক্ষক, শিক্ষিকা, কর্মকর্তা, কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
স্টুডেন্টস হোম স্কুল : মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে স্টুডেন্টস হোম স্কুল দাড়িয়ারপারের উদ্যোগে এক প্রভাত ফেরী বের হয়। প্রভাত ফেরীটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে চৌহাট্টস্থ সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে ভাষা শহীদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করে। পরে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
স্টুডেন্টস হোম স্কুলের অধ্যক্ষ আলহাজ¦ মোঃ আবুল হাসেম এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন নর্থ ইস্ট ইউনিভার্সিটির ইংরেজি বিভাগের প্রধান সামসুল কবির সামু। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন লিডিং ইউনিভার্সিটির সিভিল বিভাগের প্রধান ইঞ্জিনিয়ার আমিনুল ইসলাম। স্কুলের শিক্ষিকা ফারজানা খানম পিংকির উপস্থাপনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন স্কুলের রেক্টর মোঃ এমদাদুল হক মিলন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মাওলানা খাইরুল ইসলাম, মির হোসেন মিরু প্রমুখ। আলোচনা সভায় স্কুলের শিক্ষক, অভিভাবক ও ছাত্র-ছাত্রীসহ এলাকার শিক্ষানুরাগী গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
লতিফা-শফি চৌধুরী মহিলা কলেজ : বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ কলামিষ্ট, গবেষক এবং মহান ভাষা আন্দোলনের অন্যতম সৈনিক অধ্যক্ষ মোঃ মাস্উদ খান বলেছেন, জাতি হিসেবে আমাদের উন্নতি ও অগ্রগতি করতে হলে আমাদের ভাষা সংস্কৃতির বিশুদ্ধ চর্চায় মনোযোগী হতে হবে। মাতৃভাষার বিশুদ্ধ চর্চার মাধ্যমেই আমাদের সাহিত্য সংস্কৃতিকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরতে হবে। বাংলা একটি মধুরতম ভাষা, এ ভাষায় আমরা সুন্দরভাবে মনের ভাব প্রকাশ করে থাকি যা অন্য কোনো ভাষাতেই সম্ভব নয়।
তিনি মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ২১ ফেব্র“য়ারি বুধবার সকালে দক্ষিণ সুরমাস্থ লতিফা-শফি চৌধুরী মহিলা ডিগ্রি কলেজ কর্তৃক আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
কলেজের অধ্যক্ষ আমিরুল আলম খানের সভাপতিত্বে এবং প্রভাষক নাসরিন আরা নার্গিস এর সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহকারী অধ্যাপক মিজানুল কবির, শারমিন সুলতানা, মোঃ মহিউদ্দিন, নন্দ কিশোর রায়, ছাত্রী নাদিয়া সুলতানা শিমু, আরিনা বেগম প্রমুখ। শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করে ছাত্রী মেহের নিগার ও গীতা পাঠ করে উপমা পাল। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ আবু হানিফ, সুহেনাজ তাজগেরা, বিশ্বজিত দেব, শেখ মোঃ আব্দুর রশিদ, তপতী রায়, রোকেয়া বেগম, প্রভাষক ফারজানা ইয়াসমিন, রিক্ত রানী সরকার, আয়েশা আক্তার, শাহনাজ বেগম শিমু, বর্ণালী দাশ, বিকাশ চন্দ, সোহেল আহমদ প্রমুখ।
সিলেট সেন্ট্রাল কলেজ : সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেছেন, একুশে ফেব্র“য়ারি বাঙালি জাতির চির প্রেরণা ও অবিস্মরণীয় একটি দিন। এটি শুধু বাংলাদেশের নয়, এখন এটি সারা বিশ্বের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে। ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্র“য়ারি ছিল ঔপনিবেশিক প্রভুত্ব ও শাসন-শোষণের বিরুদ্ধে বাঙালির প্রথম প্রতিরোধ এবং জাতীয় চেতনার প্রথম উন্মেষ। সেদিন মাতৃভাষা বাংলার মর্যাদা রাখতে গিয়ে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছিল রফিক, জব্বার, সালাম, বরকত ও সফিউররা। এর মাধ্যমে বাঙালি জাতিসত্তা বিকাশের যে সংগ্রামের সূচনা হয়েছিল তা মুক্তিযুদ্ধের গৌরবময় পথ বেয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের মধ্য দিয়ে চূড়ান্ত পরিণতি লাভ করে।
মেয়র ২১ ফেব্র“য়ারি বুধবার সকালে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সিলেট সেন্ট্রাল কলেজ আয়োজিত আলোচনা সভা ও বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
কলেজ অধ্যক্ষ লে.কর্নেল এম. আতাউর রহমান পীরের সভাপতিত্বে এবং নাদিয়া আক্তার চৌধুরী ও ফাতেমা বেগমের যৌথ পরিচালনায় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট সেন্ট্রাল কলেজের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহনেওয়াজ খান শাকিল।
কো-অর্ডিনেটর জাহিদ হোসাইনের স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে সুচিত অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন প্রভাষক মোর্শেদ আলম, সাইদুর রহমান, মাসুদ রানা, মিনহাজ আহমদ, মওদুদ ত্বাসী বান্না, মুতাসীন বিল্লাহ, বাবুল আক্তার, সামছুদ্দীন, রাসেল আহমদ, জনি চন্দ্র, মিনহাজ আহমদ প্রমুখ।
ছাত্র মৈত্রী সিলেট জেলা : রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই, বাংলা চাই। ১৯৫২ রাষ্ট্র ভাষা বাংলার দাবীতে সাধারণ শিক্ষার্থীরা ১৪৪ ধারা অমান্য করে রাজপথে মিছিল করে করে পুলিশের গুলিতে শহীদ হন। তারই ধারাবাহিকতায় এই দিনটিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়।
আজ মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রী সিলেট জেলা কমিটি ২১ ফেব্র“য়ারি সকাল ৮ টায় সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে পুস্পস্তক অর্পণ করেন।
সিলেট জেলা সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা চৌধুরীর নেতৃত্বে শ্রদ্ধা নিবেদেরন সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা সদস্য মারজান আহমেদ, অপূর্ব সূত্র ধর, রাগিব রাবেয়া ডিগ্রি কলেজ শাখার যুগ্ম আহবায়ক মুহিবুর রহমান, টিলাগড় শাখার আহবায়ক সিদ্দিকুর রহমান বিলাল, যুগ্ম আহবায়ক রিয়াজুর রহমান পিয়াস প্রমুখ।
সিলেট শিল্পকলা একাডেমি : মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০১৮ যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সাথে উদ্যাপনের লক্ষ্যে জাতীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সিলেট জেলা শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে ২০ ফেব্র“য়ারি সকাল ১১টায় একাডেমি ভবনে শিশু চিত্রাংকন প্রতিযোগিতার আয়োজন এবং ২১ ফেব্র“য়ারি সকালে প্রভাত ফেরির মাধ্যমে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এরপর সন্ধ্যা ৬:৩০টায় জেলা প্রশাসন ও জেলা শিল্পকলা একাডেমি, সিলেট-এর আয়োজনে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জেলা প্রশাসক মোঃ রাহাত আনোয়ার-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিভাগীয় কমিশনার ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম। জেলা কালচারাল অফিসার অসিত বরণ দাশ গুপ্তের সঞ্চালনায় এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি অব পুলিশ মোঃ কামরুল আহসান বিপিএম, নর্থইস্ট ইউনিভার্সিটির ভিসি প্রফেসর আতফুল হাই শিবলী, সাবেক সংসদ সদস্য (হবিগঞ্জ-সিলেট) সৈয়দা জেবুন্নেসা হক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ শামসুল আলম সরকার ও সাবেক জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডার সুব্রত চক্রবর্ত্তী। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বিডিবিএল-এর পরিচালক রাখেন সৈয়দ এপ্তার হোসেন পিয়ার। আলোচনা পর্ব শেষে শিশু চিত্রাংকন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরস্কৃত করা হয়। নৈঋৃতা পালের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে ছিল সাংস্কৃতিক আয়োজন। ছন্দনৃত্যালয়ের নৃত্যশিল্পীদের পরিবেশনায় নৃত্যালেখ্য ‘যেভাবে আমাদের শহীদ মিনার পেলাম’ পরিবেশনের মধ্য দিয়ে সাংস্কৃতিক পর্বটি শুরু হয়। তারপর একে একে পূর্ণিমা দত্ত রায, প্রতীক এন্দ ও অরুণ কান্তি তালুকদার, জ্যোতি ভট্টাচার্য্য, শান্তনা দেবী ও শিনিয়া সাহা ঝুমার পরিচালনায় এবং একাডেমির শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় দলীয় সংগীত, আবৃত্তি ও নৃত্য পরিবেশিত হয়। একক পরিবেশনায় ছিলেন বিশিষ্ট সংগীতশিল্পী রানা কুমার সিনহা, তন্বী দেব ও সুনন্দা রায় এবং বিশিষ্ট আবৃত্তি শিল্পী প্রফেসর শামীমা চৌধুরী ও নাজমা পারভীন। দলীয় আবৃত্তি ও নৃত্য পরিবেশনায় ছিল দ্বৈতস্বর ও একাডেমি ফর মণিপুরী কালচার এন্ড আর্ট।
সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম : মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম মুক্তিযুদ্ধ-’৭১ সিলেট বিভাগীয় কমিটির উদ্যোগে এক আলোচনা সভা গত ২১ ফেব্র“য়ারী বুধবার সকালে চৌহাট্টায় অনুষ্ঠিত হয়।
সিলেট বিভাগীয় সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট সরওয়ার আহমদ চৌধুরী আবদাল এর সভাপতিত্বে ও জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিনের পরিচালনায় আলোচনা বক্তব্য রাখেন বিভাগীয় সহ সভাপতি মারিয়ান চৌধুরী, জেলা শাখার সভাপতি বন্ধু গোপাল দাশ এডভোকেট, বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মানিক মিয়া, যুগ্ম সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আবু সাঈদ এডভোকেট, মহানগর শাখার সভাপতি কিশোর কুমার কর এডভোকেট, সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাজ্জাক চৌধুরী জুবের এডভোকেট, মহিলা কমিটির সভানেত্রী শামসুন্নাহার মিনু, সাধারণ সম্পাদিকা হাসনা হেনা চৌধুরী, মাহমুদা নাজিম রুবি, কাউন্সিলর শামীমা স্বাধীন, চৌধুরী আতাউর রহমান আজাদ এডভোকেট, বীর মুক্তিযোদ্ধা শোয়েব আহমদ, অশেষ কর এডভোকেট, এডভোকেট মমিনুর রহমান টিটু, এডভোকেট এন.আই.এম মাসুম চৌধুরী, আবুল কাশেম হেলাল, মোস্তফা হায়দার জালাল, আইয়ূব আলী, আব্দুর রকিব, আমিনুল ইসলাম চুনু, তজ্জমুল আলী, আব্দুল মালিক পোকন, কবি হরিপদ চন্দ, হালিমা বেগম, রেনুকা দাশ প্রমুখ।
সভায় বক্তারা ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, যাদের রক্তের বিনিময়ে মাতৃভাষা আজ বিশ^ দরবারে পরিচিত লাভ করেছে তাদেরকে যথাযথ সম্মান দিতে হবে। তবেই আমাদের ঋণ কিছুটাও হলেও পরিশোধ হবে।
এর আগে ফোরামের বিভাগীয়, জেলা, মহানগর ও মহিলা কমিটির উদ্যোগে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়।