নগরীতে ত্রিমুখী সংঘর্ষে পুলিশের মামলায় আসামী যারা

স্টাফ রিপোর্টার :
বহুল আলোচিত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার ৫ বছরের কারাদন্ডের প্রতিবাদে পুলিশ ও আওয়ামী লীগের সাথে বিএনপি-ছাত্রদলের ত্রিমুখী সংঘর্ষের ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। শুক্রবার সকালে উপ-পরিদর্শক (এসআই) অনুপ কুমার চৌধুরী বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় মামলাটি (নং-১২(০২)১৮) দায়ের করেছেন বলে জানিয়েছেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গৌসুল হোসেন। মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে কোতোয়ালি থানার এস আই মো. ফায়াজ উদ্দিন ফয়েজকে।
মামলায় আসামী হচ্ছেন- শাহপরাণ এলাকার মুরাদপুরের জাহিদুল ইসলাম, শেখঘাটের বাসিন্দা আল আমিন, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি এডভোকেট সামসুজ্জামান জামান, মহানগর বিএনপির সভাপতি নাছিম হোসাইন, সহ-সভাপতি আবদুল কাইয়ূম জালালী পংকি, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম, মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি জিয়াউল গণি আরেফিন জিল্লুর, আবদুল ফাত্তাহ বকশী, মহানগর বিএনপি’র সহ-সভাপতি এডভোকেট হাবিবুর রহমান, সিলেট জেলা ছাত্রদলের সভাপতি এডভোকেট সাঈদ আহমদ, মহানগর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক ইমদাদ হোসেন চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক মো. মাহবুব কাদির, যুগ্ম সম্পাদক হুমায়ূন আহমদ মাসুক, সাংগঠনিক সম্পাদক মিফতাহ সিদ্দিকী, মাহবুব চৌধুরী, সহ- ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক আবু সালেহ মো. লোকমান, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি শেখ মো. মখন মিয়া, শাহ জামাল নুরুল হুদা, জেলা বিএনপির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক শাকিল মোর্শেদ, জেলা বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট মুজিবুর রহমান, মহানগর বিএনপির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক নুরুল আলম সিদ্দিকী খালেদ, মহানগর ছাত্রদলের সহ-সভাপতি সাহেদ বক্ত, সহ-সভাপতি মামুন ইবনে রাজ্জাক রাসেল, সহ-সভাপতি আক্তার আহমদ, যুগ্ম সম্পাদক রুমেল সাহা, লিটন কুমার দাস নান্টু, যুগ্ম সম্পাদক এমদাদুল হক স্বপন, যুগ্ম সম্পাদক সৈয়দ সারোয়ার রেজা, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুর রকিব চৌধুরী, সুবিদ বাজারের আতিকুর রহমান, বালুচরের বাসিন্দা মাজহারুল ইসলাম মাজু, মেজরটিলার আসাদ আহমদ, শামীমাবাদের আয়াজ আলী, সাগরদিঘীরপাড়ের আমির উদ্দিন, সুবিদবাজারের রায়হান, সামাদ, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক মকসুদ আহমদ মকসুদ, কাজী ইলিয়াসের রাসেল, মাসুদ গাজী, রায়নগরের আউয়াল, জালালাবাদ আবাসিক এলাকার নাবিল রাজা চৌধুরী, জালালাবাদ থানাধীন চাঁনপুরের সাহেদ আলী, টুলটিকরের মুহিত, শেখঘাটের সজিব, টুকেরবাজারের শামীম, তালতলার রাহী, পাঠানটুলার সজীব, সুবিদবাজারের রাজু, পাঠানটুলার রাসেল, আফসার খান, বাপ্পি, লোহারপাড়ার সজিব আহমদ, বাদামবাগিচার সৈয়দ হারুনুর রশিদ, আবুল কাহের চৌধুরী শামীম, এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন, আবদুর রহিমসহ অজ্ঞাতনামা ১৫০ থেকে ১৭০ জনকে।
মামলার তদন্তের দায়িত্বে থাকা এসআই মো. ফায়াজ উদ্দিন ফয়েজ জানিয়েছেন, মামলার আসামীদের মধ্যে থেকে জাহিদুল ও আল আমিনকে বৃহস্পতিবার ঘটনার দিনই আটক করা হয়েছিল। এখন তাদের গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। আর কোন আসামীকে এখনো গ্রেফতার করতে পারেননি তারা। তবে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।