ভোজন বাড়ি রেস্টুরেন্টে হামলা, ভাংচুর

স্টাফ রিপোর্টার :
নগরীর পশ্চিম জিন্দাবাজরস্থ ভোজন বাড়ী রেস্টুরেন্টে হামলা ও ভাংচুর এর ঘটনা ঘটেছে। গতকাল রবিবার দুপুর ১ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, স্বেচ্ছাসেবক লীগের কিছু কর্মী জিন্দাবাজার পয়েন্ট থেকে মিছিল নিয়ে এসে হঠাৎ করেই ভোজনবাড়ি রেস্টুরেন্টে ভাঙচুর চালায়। এ সময় স্থানীয় ব্যবসায়ীদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দেয়। তারা দোকানপাট বন্ধ করে দেন। জানা গেছে, ভোজনবাড়ি রেস্টুরেন্টের মালিকপক্ষের একজন লন্ডন থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে কটুক্তি করেন। এর জের ধরেই এ ভাঙচুর চালানো হয় বলে সূত্র জানায়।
পুলিশ জানিয়েছে, জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের একটি মিছিল থেকে বিক্ষোদ্ধ নেতাকর্মীদের একটি অংশ ভোজনবাড়ী রেস্টুরেন্টে ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। তবে তদন্ত সাপেক্ষে আসল ঘটনা জানা যাবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে- লন্ডনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটুক্তির প্রতিবাদে রবিবার নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগ। লন্ডনে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তিকারী ঐ বিএনপি নেতা ভোজন বাড়ি রেস্টুরেন্টের পরিচালক। এমন ক্ষোভ থেকে এ হামলার ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। তবে রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষের অভিযোগ কোন কারণ ছাড়াই রেস্টুরেন্টে হামলা চালিয়েছে জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতাকর্মীরা। যদিও ঘটনাটি অস্বীকার করেছেন জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতৃবৃন্দ।
বন্দরবাজার ফাঁড়ির এসআই নজরুল ইসলাম জানান, জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের একটি মিছিল থেকে ভোজনবাড়ি রেস্টুরেন্টে হামলা চালিয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে খবর পেয়েছি। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গৌছুল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এই ভাঙচুর সম্ভবত কোন রাজনৈতিক প্রতিহিংসার জের ধরেই ঘটানো হয়েছে। আমরা খবর পাওয়ার সাথে সাথে সেখানে ফোর্স পাঠিয়েছি।
এদিকে ভোজন বাড়ি রেস্টুরেন্টে হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়েছেন রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ। ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ঝুনু চৌধুরী স্বাক্ষরিত রবিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে কর্তৃপক্ষ জানান, একটি রাজনৈতিক দলের মিছিল থেকে কতিপয় সন্ত্রাসীরা রবিবার দুপুর দেড়টায় ভোজন বাড়ি রেস্টুরেন্ট ভাংচুর করে। সন্ত্রাসীরা অস্ত্র হাতে উক্ত রেস্টুরেন্টে হামলা চালিয়ে অপূরণীয় ক্ষতি সাধন করেছে। তখন রেস্টুরেন্টে অবস্থানরত গ্রাহক ও কর্মচারীরা প্রাণ রক্ষার্থে দিক-বিদিক ছুটা-ছুটি করে। ভোজনবাড়ি রেস্টুরেন্ট সরকারি বিধি অনুযায়ী ২০১৪ সাল থেকে সুনামের সাথে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। এটি একটি অরাজনৈতিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এত্র রেস্টুরেন্টের সাথে যুক্তরাজ্যে বসবাসরত কয়ছর আহমদ নামক ব্যক্তির সাথে কোন সংশ্লিষ্টতা নেই। কতিপয় একটি স্বার্থান্বেষী মহল মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ প্রচার করে অসৎ উদ্দেশ্যে হাসিল করার জন্য এ হামলা চালিয়েছে। এতে আমাদের সুনাম ক্ষুন্ন হয়েছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করছি। পাশাপাশি প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও ন্যায় বিচারের আশাবাদ ব্যক্ত করছি।