আম্বরখানায় তোরণ নিয়ে ইসকন ভক্ত ও মুসল্লিদের মধ্যে উত্তেজনা, অত:পর নিষ্পত্তি

স্টাফ রিপোর্টার :
ইসকন দীক্ষাগুরু শ্রীল জয়পতাকা স্বামী মহারাজের সিলেট আগমন উপলক্ষে আম্বরখানা জামে মসজিদের সামনে তোরণ স্থাপন নিয়ে ইসকন ভক্ত ও মুসল্লিদের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে আম্বরখানা জামে মসজিদের সামনে জোহরের নামাজ শেষে এমন পরিস্থিতি পরিলক্ষিত হয়।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, জোহরের নামাজ শেষে মুসল্লিরা মসজিদের সামনে তোরণ দেখে উত্তেজিত হয়ে পড়েন। খবর পেয়ে বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ ঘটনাস্থলে এসে মুসল্লিদের শান্ত করেন এবং ইসকনের প্রতিনিধির সাথে কথা বলেন। কিছুক্ষণ পরই পুলিশের গাড়িতে করে ইসকন ইয়ুথ ফোরামের ডাইরেক্টর দেবর্ষি বিভাস এসে মুসল্লিদের সাথে কথা বলেন এবং এবং তোরণ সরিয়ে নেবেন বলে প্রতিশ্র“তি দেন।
আম্বরখানা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি কুতুবুর রহমান চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক গুলজার আহমদকে গতকাল তোরণ সরিয়ে ফেলা হবে বলে কথা দিলে মুসল্লিরা শান্ত হন এবং ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। ৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কয়েস লোদী এবং উপ কমিশনার (দক্ষিণ) বিভূতি ভূষণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
ইসকন ইয়ুথের পরিচালক বলেন, তোরণ নির্মাণের সময় আমি উপস্থিত ছিলাম না, যারা স্থাপন করেছে তারা হয়তো ব্যাপারটা খেয়াল করেনি। আমরা সবসময় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখার পক্ষে। গতকাল ভেতরই তোরণটি মসজিদে সামনে থেকে সরিয়ে ফেলা হবে।
এদিকে বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) মোশারফ হোসেন বলেন, আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘের (ইসকন) জি.বি.সি, দীক্ষাগুরু ও বিশ্ব পরিব্রাজকাচার্য শ্রীল জয়পতাকা স্বামী মহারাজের সিলেট আগমন উপলক্ষে আম্বরখানা পয়েন্টে একটি তোরণ স্থাপন করলে মুসল্লিরা এতে আপত্তি জানায়। তোরণে ইসকন মহারাজের ছবি আছে এবং তোরণটি একদম মসজিদের মূল ফটকে হওয়ায় এমনটি হয়েছে। তিনি আরো বলেন, সাথে সাথেই ইসকন ইয়ুথ ডাইরেক্টরকে ব্যাপারটি জানালে তিনি মুসল্লিদের সাথে আলাপ করেন এবং তোরণ সরাবেন বলে প্রতিশ্র“তি দেন। আমি নিজেও ঘটনাস্থলে গিয়ে মুসল্লিদের সাথে আলাপ করেছি। ব্যাপারটি মিটমাট হয়ে গেছে।