২১ আগষ্ট মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তিতর্ক শুরু

কাজিরবাজার ডেস্ক :
একুশে আগষ্ট ভয়াবহ বর্বরোচিত ও নৃশংস গ্রেনেড হামলা মামলায় আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়েছে। এরপর রাষ্ট্রপক্ষ আইনী পয়েন্টে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু করেছে। মামলার পরবর্তী তারিখ ধার্য করা হয়েছে আগামী ১০, ১১ ও ১২ সেপ্টেম্বর। রাজধানীর নাজিমউদ্দিন রোডে পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে স্থাপিত ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিনের আদালতে একুশে আগস্টের ঘটনায় আনা পৃথক মামলায় একই সঙ্গে বিচার চলছে। টানা ৮৯ কার্যদিবসে মামলায় ৪৫ আসামির পক্ষে যুক্তিতর্ক পেশ শেষ হয়েছে। আসামিপক্ষ বুধবার যুক্তিতর্ক শেষ করায় আদালত ও প্রসিকিউশন ধন্যবাদ জানায়। আসামি লুৎফুজ্জামান বাবরের পক্ষে তার আইনজীবী এসএম শাহজাহান দ্বিতীয় দিনে আইনী পয়েন্টে যুক্তিতর্ক শেষ করেন। এ আইনজীবী তার মক্কেলের খালাসের আর্জি জানিয়ে তার বক্তব্য উপস্থাপন সমাপ্ত করেন। এর আগে বাবরের পক্ষে আইনজীবী নজরুল ইসলাম সাক্ষ্য, তথ্য-প্রমাণের আলোকে আট কার্যদিবস যুক্তিতর্ক পেশ করেন।
রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবী মোশররফ হোসেন কাজল আইনী পয়েন্টে যুক্তিতর্ক পেশ শুরু করেন। তিনি তার শুনানিতে, ২১ আগস্ট ভয়াবহ বর্বরোচিত ও নৃশংস গ্রেনেড হামলা মামলায় ফারদার ইনভেস্টিগেশন কিভাবে করা যায় তার আইনী ভিত্তি তুলে ধরছেন। এ বিষয়ে তিনি উচ্চ আদালতসহ বিভিন্ন রেফারেন্স তুলে ধরেন। তিনি বলেন, মামলার যে কোন স্তরে ন্যায়বিচারের স্বার্থে ফারদার ইনভেস্টিগেশন করা যায়। তিনি বলেন, এ মামলায় প্রথম অভিযোগপত্র দাখিলের পর আবারও তদন্ত হয়। ওই তদন্তে ঘটনার বিষয়ে ষড়যন্ত্র, ষড়যন্ত্রের স্থান ও জড়িতদের সম্পৃক্তার বিষয় বেরিয়ে আসে। ২১ আগস্ট ঘটনা ঘটানোর ব্যাপারে দুটি অভিপ্রায় স্পষ্ট- প্রথমত, আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করা দ্বিতীয়ত, দেশকে আবারও পাকিস্তান বানানো। তিনি বলেন, আর্জেস গ্রেনেডের মতো যুদ্ধাস্ত্র তথা সমরাস্ত্র দিয়ে নিরস্ত্র মানুষের ওপর এ ধরনের হামলা বিশ্বের ইতিহাসে বিরল। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে চীফ প্রসিকিউটর সৈয়দ রেজাউর রহমান, বিশেষ পিপি মোঃ আবু আব্দুল্লাহ্ ভ্ুঁইয়া, এডভোকেট আকরাম উদ্দিন শ্যামল, এডভোকেট ফারহানা রেজা, এডভোকেট আমিনুর রহমান, আশরাফ হোসেন তিতাস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।