খাদ্যে ভেজাল ও অতিরিক্ত মূল্য রোধে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান ॥ স্বপ্ন ও রিফাতসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে সোয়া লক্ষাধিক টাকা জরিমানা

স্টাফ রিপোর্টার :
মাহে রমজান উপলক্ষে দ্রব্যমূলের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণ ও খাদ্যে ভেজাল রোধে সিলেটে পুরো রমজান মাসজুড়ে মাঠে থাকবে ভ্রাম্যমান আদালতের ৪টি টিম। পণ্যের অস্বাভাবিক মূল্য ও খাদ্যে ভেজাল পেলেই কঠোর ব্যবস্থা নেবে আদালত। এমনটি জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সিলেটের উপরিচালক দেবোজিৎ সিনহা।
গতকাল বৃৃহস্পতিবার নগরীতে প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে ৪টি টিমে ভাগ হয়ে বিভিন্ন বাজার পদির্শনে যায় মনিটরিং টিম। দুপুরে ৪টি মনিটরিং টিম নগরীর আম্বরখানা, বন্দরবাজার, লাল বাজার, মদিনা মার্কেট, রিকাবী বাজারে বাজার পরিদর্শনে যায়। এসময় তারা ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানকে ৯২ হাজার টাকা জরিমানা করে। এছাড়া শাহপরান থানায় এলাকায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে আরো ৩৪ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১টায় শাহজালাল উপশহর ও মেন্দিবাগে রিফাত এন্ড কোং, স্বপ্ন, হোটেল রেস্তোরাসহ ফলের দোকানে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে জরিমানা করা হয়। সিলেট জেলা বাজার কমিটির সদস্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ আশরাফুল আলমের নেতৃত্বে জেলা বাজার মনিটরিং কমিটির সদস্যের সাথে নিয়ে অভিযান পরিচালিত হয়। এ সময় দৃশ্যমান স্থানে মূল্য তালিকা প্রদর্শন না করায় এবং ধার্যকৃত মূল্যের চেয়ে অতিরিক্ত হারে পণ্য বিক্রির অপরাধে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর বিভিন্ন ধারায় স্বপ্নকে ৩০ হাজার টাকা, রিফাত এন্ড কোংকে ১০ হাজার টাকা, ইশিতা রেস্টুরেন্টকে ১০ হাজার টাকা এবং ভাই ভাই ফল ভান্ডারকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
বাজার মনিটরিং টিমের মেন্দিবাগ ও উপশহর অংশের নেতৃত্বে থাকা সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সনদ্বীপ কুমার সিংহ বলেন, রমজানে দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখতে প্রতিবারের ন্যায় এবারো এই কমিটি সিলেটে মাঠ পর্যায়ে কাজ করবে। এ সময় সিলেট জেলা মার্কেটিং অফিস, চেম্বার অব কমার্সের প্রতিনিধি এবং র‌্যাব-৯ ও পুলিশ বাহিনীর সদস্যগণ মোবাইল কোর্ট পরিচালনায় সহায়তা করেন।
এদিকে, গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর মদিনা মার্কেট এলাকায় অভিযানকালে আদালতের মূল্যতালিকা প্রদর্শন না করা ও পরিমাপে কম দেয়ার অপরাধে একটি মাংসের দোকানে ২০০০ টাকা এবং মুদি দোকানীকে ১০০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।
অপরদিকে, রমজান মাসকে কেন্দ্র করে কোতোয়ালি ও শাহপরাণ থানা এলাকায় ভ্রাম্যমান আদালত দিয়ে অভিযান চালানো হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। র‌্যাব-৯ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান, এসএসপি মাঈন উদ্দিন, এএসপি নাহিদ রহমান ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সমন্বয়ে এ অভিযান চালানো হয়। জানা,গেছে, শাহপরাণ থানার মাজার গেইটের সামনে গ্রীণ চিলি রেস্টুরেন্টকে নোংরা পরিবেশে রান্না করার অপরাধে ৩০ হাজার টাকা, নগরীর বন্দরবাজার এলাকার মাংসের দোকানে তালিকা না থাকায় ১ হাজার এবং অবৈধ মোটরসাইকেল পাকিংয়ের অপরাধে এক চালককে ৩ হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমান আদালত।
সিলেটের উপরিচালক দেবোজিৎ সিনহা বলেন, প্রথমদিনে মূলত দ্রব্যমূল্যের বিষয়টি তদারকি করা হয়েছে। ব্যবসায়ীদের পণ্যের মূল্য অস্বাভাবিক না বাড়াতে অনুরোধ করা হয়েছে। তবে আজ শুক্রবার থেকে আমরা কঠোর অবস্থানে থাকবো। মূল্যের পাশাপাশি ভেজাল খাদ্যও তদারক করা হবে। কোনো অনিয়ম পেলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মনিটরিং টিমের সদস্যরা জানান, নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণ, পণ্যের সরবরাহ ও চলমান বাজার পরিস্থিতি স্থিতিশীল রাখা ও খাদ্যে ভেজাল রোধে পুরো মাসজুড়েই তৎপর থাকবে জেলা প্রশাসন।
বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর মদিনা মার্কেট অভিযান চালান জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুরাইয়া আক্তার লাকী, খ্রিস্টফার হিমেল রিসিল, বিএসটিআই পরিদর্শক কাওছার আলী। এসময় মূল্যতালিকা প্রদর্শন না করা, ওজনে কম দেয়া, অতিরিক্ত মূল্য আদায়ের অপরাধে আদালত মাংসের দোকান, সবজির দোকান, মুদির দোকানসহ বেশ কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা আদায় করা হয়।
জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খ্রিস্টফার হিমেল রিসিল বলেন, আসন্ন রমজান উপলক্ষে নগরীসহ সকল উপজেলায় নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য স্বাভাবিক রাখতে, ফরমালিনমুক্ত খাদ্যপণ্য সরবরাহ ও ভেজালযুক্ত খাদ্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে জেলা প্রশাসনের বাজার মনিটরিং অভিযান অব্যাহত থাকবে।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুরাইয়া আক্তার লাকী বলেন, অভিযান পরিচালনাকালে দোকানে দ্রব্যমূল্যের তালিকা না থাকায় বিভিন্ন দোকানদারকে আর্থিক জরিমানা করা হয়। পবিত্র রমজান মাসে দ্রব্যমূল্য ও মান সঠিক রাখার জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত থাকবে।