হবিগঞ্জে বিচার বিভাগীয় সম্মেলনে তথ্য ॥ ৫০ হাজার মামলা বিচারাধীন

হবিগঞ্জ থেকে সংবাদদাতা :
মেডিকেল রিপোর্ট প্রদানে বিলম্ব, নির্ধারিত সময়ে তদন্ত শেষ না করা, বাতিল আইনে মামলা দায়ের, রিমান্ডের ক্ষেত্রে সিডি (কেইস ডায়রি) দাখিল না করা, গ্রেফতারী পরোয়ানা তামিল না করা ও আদালতে সাক্ষী উপস্থাপনে গড়িমসি, বিচারকের স্বল্পতাসহ নানা কারণে মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে অন্তরায় সৃষ্টি হচ্ছে। এসব ব্যাপারে কার্যকরি ব্যবস্থা গ্রহণে সংশ্লিষ্ট সকলকে সচেষ্ট হতে হবে। বর্তমানে হবিগঞ্জে বিভিন্ন আদালতে প্রায় ৫০ হাজার দেওয়ানী ও ফৌজদারী মামলা বিচারধীন রয়েছে। শনিবার হবিগঞ্জে অনুষ্ঠিত বিচার বিভাগীয় সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। জেলা দায়রা জজ আদালতের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন জেলা ও দায়রা জজ আমজাদ হোসেন। জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল কবীর মুরাদ, পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরাসহ বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ এতে উপস্থিত ছিলেন। আলোচনায় অংশ নেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল (৩) এর বিচারক মো. হালিম উল্লাহ চৌধুরী, যুগ্ম জেলা জজ (১) মো. সাইফুর রহমান সিদ্দিক, যুগ্ম জেলা জজ (২) কাজী মিজানুর রহমান, ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মোয়াজ্জেম হোসাইন, অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্দুর রহিম, সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলাম ও সম্পা জাহান, আধুনিক সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক রথিন্দ্র চন্দ্র দেব, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মো. আব্দুল হান্নান, সরকারি কৌশলী (জিপি) মো. আফিল উদ্দিন, সরকারি কৌশলী (পিপি) মো. সিরাজুল হক চৌধুরী, বিশেষ পিপি আবুল হাশেম মোল্লা, জিপি (ভিপি) এমএ মোছাব্বির বকুল ও এডভোকেট রুহুল হাসান শরীফ। সম্মেলনে মামলার দ্রুত নিষ্পত্তি, তদন্ত ও অনুসন্ধানের অন্তরায়, বিচারক ও সাক্ষীদের নিরাপত্তা, আসামীকে জেলা হেফাজত থেকে যথাসময়ে আদালতে উপস্থাপন, সাক্ষীদের যথাসময়ে আদালতে উপস্থাপন, বিভিন্ন আদালতের মামলার অগ্রগতি সম্পর্কে আলোচনা করা হয়। অনুষ্ঠানে জেলা আইনজীবী সমিতির কর্মকর্তা, সরকারি কৌশলী, স্বাস্থ্য বিভাগীয়, সমাজকল্যাণসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দফরের কর্মকর্তাগণ অংশ নেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ভারপ্রাপ্ত প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. ওসমান রেজাউল করিম।