বিভাগ: সাহিত্য

অস্তিত্ব

ছাদিকুর রহমান

আমার শিরা উপশিরা আমাকে বলেছিল
শহীদ মিনারে যেতে
আমার অস্তিত্ব আমাকে বলেছিল
শহীদ মিনারে যেতে ॥

আমার রক্ত আমাকে বলেছিল
শহীদ মিনারে যেতে
আমার ভালবাসা আমাকে বলেছিল
শহীদ মিনারে যেতে ॥

আমার মায়ের চোখের জল আমাকে বলেছিল
শহীদ মিনারে যেতে
আমার ইতিহাস আমাকে বলেছিল
শহীদ মিনারে যেতে ॥

আমার চেতনা আমাকে বলেছিল
শহীদ মিনারে যেতে
আমার ভাবনা আমাকে বলেছিল
শহীদ মিনারে যেতে ॥

বীর সেনানী স্মরণে

সৌমেন দেবনাথ

জগৎ ঘুরে দেখি আমি
দেখি দুচোখ খুলে,
আমার দেশের মতো দেশ আর
কোথাও নাহি মেলে !

সবুজের মাঝে লাল পতাকা
ওড়ে পতপত খেলে,
সোনার দেশের মুখে হাসি
হাসি ঠোঁটে গালে !

আনন্দ খেলে উঠোন জুড়ে
বাতাস লাগে পালে,
মৎস্যরা সব নেচে বেড়ায়
নদী বিলে খালে !

স্বাধীন তো করতে দেশ মাকে
জীবন গেছে চলে,
স্মরি তাদের দলে দলে
বিজয় দিবস এলে !

তোমাতে হারাই

জালাল আহমেদ জয়

আজি মনো হেরি
তরী ভাসায়ে মনতালে,
তোমার ছায়ায় হলাম মাতালে
যাবো কনে ঘীরি,

আমাতে তোমাতে
হারাই জীবন ভরি,
আমার কাছে লাগে যেনো
তুমি সেই পরী
আহা এখন কি করি ?

স্বপ্নের আলোকে দেখি যে তোমারে,
দেখেছ কি
একবার এই আমারে ?

হায়গো আমার পরান মরে যায়,
প্রেম ছাড়া এ ভুবনে
আর কিছু নাহি চায়।

আমার এ ধরায়
কত ছন্দ বিলায়,
আমার এ প্রাণ শুধু
তোমাতে হারায়।

কিছু নাহি চায় এ প্রাণ
তুমি বিহনে,
থাকিতে পারি না তুমিহীনা
এই ভুবনে।

উজ্জ্বল সূর্য্য দিয়ে

নেছার আহমদ নেছার

আকাশটা আজ বৈরী হলো
ঘনকালো মেঘ-বিজলী চমকায়
ধড়ফড় করছে বুকটা-
নেই শান্তির বসন্ত বাতাস।

অশান্ত হলো আজ আকাশ
সীমান্ত হলো অরক্ষিত-
মনে হয় সীমানা নামের বস্ত্রটাও
খুলে নেবে কেউ,

উলঙ্গ হয়ে যাবে মানচিত্রটা।
এভাবে চলবে কি জীবন?
হঠাৎ এমন হলো কেন?
কেন স্বকীয়তা ভুলতে বসেছি আমরা?

প্রকৃতি পরিবেশ যদিইবা প্রতিকূল হবে
অনুকূলে আসবে না কেন?
সকলেই আজ শপথ করি-
আমাদের আকাশটা সুন্দর হবে-

সত্ত্বার সীমানা সুরক্ষিত রাখবো
লৌহ কঠিন জাতীয়তাবোধের প্রাচীর দিয়ে,
আমাদের আকাশ রাখবো আলোময়-
স্বকীয়তার উজ্জল সূর্য্য দিয়ে ॥

পথ চলা

মিজানুর রহমান মিজান

ভব সাগরে দিবা নিশি
এপার ওপার র’ল মিশি
নিত্যকার খেলা।

জানি এক দিন তরী
উপলক্ষ একটা করি
শেষ ঘন্টায় সাঙ্গ মেলা।

মেলায় হয় জমায়েত
আনন্দ উচ্ছ্ব্াসের খেত
ডুবলে তরী সবাই একেলা।

এ জীবনের ঝংকার
হবে একদিন বেকার
বিশ্রাম নেবে সাঙ্গ করে পথচলা।

লিমেরিক: লোডশেডিং

মীর শওকত

লোডশেডিংএ ডুবছে এ দেশ হয়না তবু ব্রেকিং,
লোক দেখানো নীতিমালায় হচ্ছে শুধু চেকিং।
গদির উপর যাদের পাছা
খুলতে হবে তাদের কাছা
মানুষ নামের ভন্ড তারা, তারাই আসল ফেকিং।

তোমাকে খুঁজি

ছাদিকুর রহমান ছাদিক

তোমাকে খুঁজি
আমার কবিতার প্রতিটি শব্দে
তোমাকে খুঁজি
আমার জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে
তোমাকে খুঁজি
আমার আনন্দ উচ্ছ্বাসের মুহূর্তে
তোমাকে খুঁজি
আমার বিষণœ একাকীত্বে
তোমাকে খুঁজি
তারা ভরা রাতে আকাশে
তোমাকে খুঁজি
ঘন কালো অন্ধকারে
তোমাকে খুঁজি
পড়ন্ত বিকেলের গোধূলী বেলায়
তোমাকে খুঁজি
বাড়ির পশ্চিমের বারান্দায়
তোমাকে খুঁজি
গভীর রাতে হাসনা হেনার গন্ধে
তোমাকে খুঁজি
কিশোরীর পায়ের নূপুরের ছন্দে
তোমাকে খুঁজি
আমার স্বপ্ন কথার খেলায়
তোমাকে খুঁজি
হাজার তারার মেলায়
তোমাকে খুঁজি
ভোরের স্নিগ্ধ আলোতে
তোমাকে খুঁজি
উদাস করা দক্ষিণা বাতাসে
তোমাকে খুঁজি
আমার মোবাইলের কল লিস্টে
তোমাকে খুঁজি
আমার ফেসবুকের হোম পেইজে।

আগুন ভরা ভালোবাসা

জালাল আহমেদ জয়

জ্বলে আগুন পথে আগুন
আগুন ভরা মনে
দেহ ভরা রক্তে আগুন
যাবে কারই সনে।

চোখে আগুন মুখে আগুন
আগুন হাতে পায়ে

খাতায় আগুন পাতায় আগুন
কাঁদে শ্যামা মেয়ে।

আগুন জ্বলে আগুন বলে
ভালোবাসো তারে
না যদি যাও আগুন তলে
পাবে বলো কারে।

প্রেমের আগুন জ্বলছে দ্বিগুণ
পোড়া বুকটা জুড়ে
সখি তোমার আঁচল কেনো
উড়ছে অতি দূরে।

আকাশের কান্না

মোঃ এমদাদ আলী

ঝিড় ঝিড় শব্দে ঘুম ভেঙ্গে গেল
জানালা খোলে দেখি অঝোরেই বৃষ্টি পড়ছে।
আকাশের দিকে এক পলক তাকিয়ে
মনে হচ্ছে আকাশ যেন
তার মনের সব দুঃখ গুছিয়ে কেঁদে চলছে।

আজ যেন আকাশ তার কষ্টগুলো
সবার মাঝে বিলিয়ে দিতে চাইছে।
আজ আকাশের কান্না দেখে
আমারও যেন কান্না পাচ্ছে।

মন চাইছে আকাশের মত
বুকের দুঃখগুলো গুছিয়ে দিয়ে
বৃষ্টির মাঝে বিলিয়ে দেই।

রূপ ভেলকি

সৌমেন কুমার

অদম্য ক্ষুধায় কামনার বহ্নি জ্বেলে চোখে
বিলাস বাসনা আর আদিম উল্লাসে
দাঁড়িয়ে সে হাসে কাঁশফুল দাঁতে প্রান্তসীমায় !
আমার মন বলাকাকাশে আস্ফালনের শ্বাস ওড়ে !

বেদনার নীল পাপড়ির প্রাচীর চৌচির হয়ে
বিনষ্ট কামনার ঢেউয়ে যৌবন অবকাঠামো
বিধ্বস্ত হয় এক টুকরো গোলাপী হাসির
কৌণিক উচ্ছ্বাসে আর প্রলুব্ধ দৃষ্টির

অহর্নিশ ইশারায়, মোহময় হাতছানিতে !
মগজের সূক্ষ্ম ছিদ্রে ওরূপ রক্তচোষা
কিলবিলে কীট হয়ে প্রবেশ করে সুতীব্র দংশনে
রক্তাক্ত করে মরু করে তোলে উজ্জীবন জীবনকে !

পারি না তীব্র রূপ পান থেকে নিজেকে গুটাতে !
প্রাগৈতিহাসিক বিধ্বস্ত প্রাসাদ থেকে
দৃষ্টি উড়ে যায় খেয়ালী মেয়েটির

মৃন্ময় প্রাঙ্গণের ঝুল বারান্দার দ্যুতিতে
তার রূপ ভেলকিতে নাচি সেও খুশী !
অন্ধ ঈশ্বর আমার উন্মাদনায় খুশী বৈকি !