কেজি প্রতি চাল ২৮ ও ধান ২৬ টাকায় কিনবে সরকার

কাজিরবাজার ডেস্ক :
আগের বছরের চেয়ে কেজিতে যথাক্রমে চার এবং দুই টাকা বাড়িয়ে সরকারিভাবে সংগ্রহের জন্য ধান ও চালের দাম নির্দিষ্ট করেছে সরকার। এবার চাল সংগ্রহ করা হবে কেজি প্রতি ২৮ টাকায়, আর ধান কেনা হবে ২৬ টাকায়।
গত বছর যথাক্রমে ৩৪ ও ২৪ টাকা ছিল চাল ও ধানের ক্রয়মূল্য। কৃষকের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করা এবং বাজারে ধান-চালের বর্ধিত মূল্যের বাস্তবতায় এই দাম নির্ধারণ হয়েছে।
অবশ্য আতপ চালের দাম সেদ্ধ চালের তুলনায় কেজিতে এক টাকা কমে অর্থাৎ ৩৭ টাকায় সংগ্রহ হবে। আবার এবার অভ্যন্তরীণভাবে কোনো চাল সংগ্রহ করা হবে না।
রবিবার সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত খাদ্য পরিকল্পনা ও পরিধারণ কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ২ মে থেকে ধান ও চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু হয়ে শেষ হবে ৩১ আগস্ট।
কৃষক যেন ধান ও চালের ন্যায্যমূল্য পায়, সে জন্য বোরো মৌসুমে প্রতি বছর ধান-চালের ক্রয় মূল্য ঘোষণা করে সরকার। এতে বাজারও নিয়ন্ত্রণ করা যায়।
গত বছর বোরো মৌসুমে হাওরে অকালে ঢল এবং উত্তর ও মধ্যাঞ্চলে জলাবদ্ধতা ও বন্যায় ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এর প্রভাব পড়ে বাজারে। এক বছরের মধ্যে চালের দাম ৩৫ শতাংশ থেকে শুরু করে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়ে যায়। এরপর সরকার বিদেশ থেকে আমদানির পাশাপাশি বেসরকারি খাতে শুল্ক তুলে দেয়। এতে দাম কিছুটা কমে আসলেও গত বছরের একই সময়ের তুলনায় চালের দাম এখন ২৫ শতাংশের বেশি।
এই অবস্থায় আগের বছরের সমান দাম রাখলে সংগ্রম অভিযান ব্যর্থ হওয়ার আশঙ্কা ছিল বলে দাম বাড়িয়েছে সরকার।
বোরো ধান কাটা এখনও পুরোদমে শুরু না হলেও কোথাও কোথাও আগাম ফসল কাটা শুরু হয়েছে।
খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীসহ কমিটির অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
সভাশেষে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম ব্রিফিংয়ে বৈঠকের সিদ্ধান্ত জানান। তিনি বলেন, ‘এবার কৃষকদের কেজি প্রতি চাল উৎপাদনের খরচ ধরা হয়েছে ৩৬ টাকা। কৃষকদের উৎসাহিত করার জন্য আমরা দুই টাকা বেশি দিয়ে ৩৮ টাকা ধরে চাল সংগ্রহ করব।’
এবার মোট আট লাখ মেট্রিক টন সেদ্ধ চাল এবং এক লাখ মেট্রিক টন আতপ চাল সংগ্রহ করবে সরকার। এছাড়া দেড় লাখ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ করা হবে।
গত বছর বন্যায় ফসলহানি হলেও এবার ব্যাপক উৎপাদন হবে বলে জানান মন্ত্রী। বলেন, ‘এবার বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। এবারের বোরো ধান থেকে ১ কোটি ৯০ লাখ টন চাল আমরা পাব বলে আমাদের টার্গেট।’
তবে অন্যান্য বছরের মতো এবার গমের সংগ্রহ মূল্য ঘোষণা করা হয়নি। মন্ত্রী জানান, এবার গম উৎপাদন হচ্ছে ১৩ লক্ষ মেট্রিক টনের মত।
‘গম আমাদের দেশে উৎপাদন কম হয়, দেশের বাইরে থেকে আমদানি করা হয়। সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে প্রায় ৪৫ লক্ষ মেট্রিক টন গম আমদানি করা হয়।’
চাহিদার তুলনায় উৎপাদন কম বলে সরকারিভাবে গম সংগ্রহ করা হবে না বলে জানান মন্ত্রী।