প্রশাসনের কঠোর হস্তক্ষেপে অবশেষে বোমা মেশিন শূন্য জাফলং

গোয়াইনঘাট থেকে সংবাদদাতা :
জাফলংয়ে প্রশাসনের ধারাবাহিক টাস্কফোর্সের অভিযানের পরও কিছুতেই বন্ধ হচ্ছিলো না বোমা মেশিন নামক অবৈধ যন্ত্র। তবে এই অবৈধ যন্ত্রগুলো বন্ধ করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে একের পর এক অভিযান পরিচালনা করতে দেখা গেছে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে। লাগাতর কয়েক দিনের ধারাবাহিক অভিযানের পর অবশেষে সফলতা লক্ষ্য করা গেছে টাস্কফোর্স দলের। চলতি মাসে উপজেলা প্রশাসন ও জেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে কয়েকটি টাস্কফোর্সের অভিযান চালিয়ে প্রায় শতাধিক অবৈধ বোমা মেশিন ও তার যন্ত্রাংশ আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার বিকেলে সিলেট জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুরাইয়া আক্তার লাকী’র নেতৃত্বে জাফলংয়ের নয়াবস্তি ও কান্দুবস্তি এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রায় ৪০টি বোমা মেশিনের পরিত্যাক্ত যন্ত্রাংশ পেলোডার দিয়ে গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন গোয়াইনঘাটের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত কুমার পাল, গোয়াইনঘাটের সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমন চন্দ্র দাস, সংগ্রাম বিজিবি ক্যাম্প কমান্ডার খালেদুর রহমান, থানার এ এস আই আবু তাহেরসহ পুলিশ ও বিজিবির বিপুল সংখ্যক সদস্য।
গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত কুমার পাল বলেন, টাস্কফোর্সের ধারাবাহিক অভিযানের ফলে জাফলং থেকে বোমা মেশিন উচ্ছেদ করা সম্ভব হয়েছে। জাফলং এখন প্রায় বোমা মেশিন শূণ্যই বলা চলে।
তাই অদূর ভবিষ্যতে বোমা মেশিন চক্র যাতে করে পুনরায় পরিবেশ বিধ্বংসী বোমা মেশিন চালু না করতে পারে সে দিকে উপজেলা প্রশাসনের কঠোর নজরদারী থাকবে।