জাফলংয়ে পাথর উত্তোলন করতে গিয়ে কিশোরীর মৃত্যু, আহত ৪, আটক ১

কে.এম.লিমন, গোয়াইনঘাট থেকে  :
গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলংয়ে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করতে গিয়ে মাটি চাপা পড়ে এক কিশোরী নিহত ও আরও জন আহত হয়েছে। সোমবার সকালে জাফলংয়ের মন্দিরের জুম এলাকায় এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। নিহত কিশোরী নাম শম্পা দাশ (১৭)। সে নেত্রকোনা জেলার খালিয়াজুড়ি উপজেলার শ্যামপুর গ্রামের রঞ্জিত দাশ’র মেয়ে। নিহত শম্পা দাশ পরিবারের সাথে কয়েক বছর ধরে জাফলংয়ের মোহাম্মদপুর এলাকায় বসবাস করে আসছিল। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন জুতি বিকাশ, দীপ্ত সরকার, অজিত সরকারসহ চার জন। আহতদের মধ্যে জুতি বিকাশ সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। অপর আহতরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় নান্নু মিয়া নামক পূর্ব জাফলং ইউনিয়ন যুব লীগের এক নেতাকে আটক করেছে থানা পুলিশ। স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায় জাফলংয়ের মন্দিরের জুম এলাকায় মন্দির সংলগ্ন এলাকা থেকে পাথর খেকো একটি চক্র অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল সকালে পাথর শ্রমিকরা ওই গর্ত থেকে পাথর উত্তোলন করতে গেলে গর্তের পাড় ধ্বসে মাটি চাপা পড়ে শম্পা দাশ ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। আহত হয় আরও চারজন। স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করেন। নিহতের লাশ উদ্ধার করে প্রাথমিক সুরতাহাল তৈরি করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে থানা পুলিশ।
থানার ওসি (তদন্ত) হিল্লোল রায় মাটি চাপা পড়ে এক কিশোরী নিহত হওয়ার খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে। এ রিপোর্ট লোখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি।
দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এসে গোয়াইনঘাটের ইউএনও বিশ্বজিত কুমার পাল বলেন, কোয়ারী এলাকা ব্যতিরকে অন্য কোন স্থান থেকে পাথর উত্তোলন সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। যদি কেউ কোয়ারী এলাকা ছাড়া অন্য কোন স্থান থেকে পাথর উত্তোলনের পাঁয়তারা করে তাহলে তার বিরুদ্ধে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।