এশিয়া কাপের আগেই নতুন স্পন্সর পাবে টাইগাররা!

0
8

স্পোর্টস ডেস্ক :
কোন প্রকার ঘোষণা ছাড়াই স্পন্সরশিপ চুক্তি থেকে বেসরকারী মোবাইল প্রতিষ্ঠান রবি চলে যাওয়ায় একরকম বিপাকেই পড়ে গেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। রবি’র তাদের এমন আচরণে বিস্মিতও বাংলাদেশ ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক এই সংস্থাটি।
এশিয়া কাপের বাকি নেই ১৫ দিনও। এমন অবস্থায় রবি স্পন্সরশিপ চুক্তি বাতিল করায় কিছুটা হতবিহবল বিসিবি। তবে এশিয়ার ৬ জাতির টুর্নামেন্টের আগেই নতুন স্পন্সর খোঁজার চেষ্টা করবে বলে জানিয়েছেন বিসিবির সিইও নিজামউদ্দীন চৌধুরী সুজন।
সোমবার (২৭ আগষ্ট) বিসিবি কার্যালয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘অবশ্যই আমাদের নতুন স্পন্সর দেখতে হবে। দু-একদিনের ভেতরেই আমরা বিজ্ঞপ্তি দেব। চেষ্টা করবো এশিয়া কাপের আগেই স্পন্সর দেয়ার জন্য।’
মূলত বিসিবির সঙ্গে চুক্তি বাতিলের পেছনে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের তিন সিনিয়র ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মুর্তজা, সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালকে দায়ী করছে রবি। তাদের ভাষ্যে, এসব ক্রিকেটাররা রবি’র সঙ্গে দলের চুক্তি থাকাকালীনই দেশের অপর দুটি বেসরকারি মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ব্যক্তিগত চুক্তিতে আবদ্ধ হয়েছেন।
আর এ নিয়ে দু’পক্ষের টানপোড়েণ চললে বিগত বেশ কিছু দিন থেকেই। ওই তিন ক্রিকেটারকেই তাদের ব্যক্তিগত চুক্তি বাতিল করতে বিসিবি নির্দেশ দিলে তারা তাতে সম্মতিও জানায়। কিন্তু তাদের চুক্তি বাতিলের সেই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার আগেই বিসিবির সঙ্গে চুক্তি বাতিল করে রবি। যা বিসিবিকে বিস্মিত করেছে।
বিষয়টি আমলে নিয়ে ভবিষ্যতে ক্রিকেটাররা যেন এমন কোন চুক্তিতে আর না যান সে বিষয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা হবে বলে জানান বিসিবির এই উর্ধ্বোতন কর্মকর্তা। বলেন, ‘প্লেয়াররা এখন থেকে কোন বিরোধপূর্ণ চুক্তিতে যেতে পারবে না।’
উল্লেখ্য চুক্তির প্রাসঙ্গিকতা হারানোয় রবিবার (২৬ আগষ্ট) মোবাইল সেবা প্রতিষ্ঠান রবি বিসিবির সঙ্গে স্পন্সরশিপ বাতিল করে। দ্বিতীয় মেয়াদে বিসিবি’র সঙ্গে স্পন্সর প্রতিষ্ঠান রবি’র চুক্তির মেয়াদ ছিলো ২০১৭ সালের জুলাই থেকে ২০১৯ সালের জুন মাস পর্যন্ত।