ইসলামী চিন্তা-গবেষণার গুরুত্ব

0
6

মুহাম্মদ মনজুর হোসেন খান

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির এই উৎকর্ষতার যুগে প্রতিনিয়ত মানুষ মুখোমুখি হচ্ছে নতুন নতুন সমস্যার। জীবনযাত্রায় যুক্ত হচ্ছে এমন অনেক বিষয় কোরআন, সুন্নাহ’র সরাসরি যে সম্পর্কে কোন বিধান বর্ণিত হয়নি, হয়নি কোন সর্বসম্মত ইজতিহাদ। ইসলামের গতিশীলতা ও উপযোগিতার প্রশ্নে এসব সাম্প্রতিক বিষয়ের বিধান উপস্থাপন অপরিহার্য। যাদের জন্য এ অপরিহার্যতা, যারা ফরযে কিফায়ার এ দায়িত্ব পালন করবেন তাদের জন্য রয়েছে অনেক করণীয়- যার কিছু এ সংক্রান্ত গবেষণা শুরুর পূর্বে এবং কিছু রয়েছে গবেষণা কর্ম শুরু করার সময়। শরীআহ অভিযোজন ও সম্মিলিত ইজতিহাদের মত বিষয়ও করণীয় কার্যাবলির অন্তর্ভূক্ত। সাম্প্রতিক বিষয়ের ইসলামী বিধান উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে মহানবী (সা.) সাহাবী ও তাবেঈগণ বিভিন্ন পদ্ধতি গ্রহণ করতেন। তাদের অনুসৃত সে পদ্ধতির আলোকে সমকালীন সমস্যার সমাধানের পথনির্দেশ নিয়ে আলোচনা করাই এ প্রবন্ধের মূল প্রতিপাদ্য।
যুগের আবর্তন ও মানুষের জীবনাচারের পরিবর্তন মহান আল্লাহর অন্যতম অনুপম নিদর্শন। এ কারণে প্রত্যেক যুগের মানুষের জীবনযাত্রা, এর পদ্ধতি, ধরণ ও উপকরণের মধ্যে ভিন্নতা দেখা যায়। মানুষের বস্তুতান্ত্রিক জীবনের উৎকর্ষতার ফলে প্রতি নিয়ত আলাদা বৈশিষ্ট্যে বৈশিষ্ট্যমন্ডিত হয়। আজ যে বিষয়টি নতুন, আগামী কাল তা পুরাতন। বিশেষত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির কল্পনাতীত অগ্রগতি বর্তমান যুগকে অন্য সব যুগ থেকে সম্পূর্ণ আলাদা করেছে। এসব আবিষ্কার মানুষের নানামুখি কর্মকান্ড সম্পাদন ও বিভিন্ন প্রয়োজন পূরণকে সহজিকরণের ক্ষেত্রে এক যুগান্তকারী প্রভাব ফেলেছে। ফলে তারা তাদের জীবনের অধিকাংশ ক্ষেত্রে এসবের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। এমনকি এসব নতুন নতুন বিষয়কে উপেক্ষার কল্পনাও বর্তমান সময়ে অসম্ভব হয়ে দেখা দিয়েছে।
মানুষের জীবনের প্রতিটি দিক ছুঁয়ে যাওয়া এসব নতুন বিষয়ের শরঈ বিধান জানা একান্ত প্রয়োজন। বিশেষত এ কারণে যে, পূর্ববর্তী ফিকহের কিতাবে এসব বিষয়ের শরঈ বিধান স্পষ্টভাবে বর্ণিত নেই। ফলে বৈধতা ও অবৈধতার প্রশ্নে মুসলিমগণ এসব বিষয়ের সামনে অসহায় হয়ে পড়ে। ইসলাম সর্বকালের সর্বযুগের মানুষের জন্য উপযোগী একমাত্র জীবন ব্যবস্থা। কিয়ামত পর্যন্ত প্রতিটি মানুষ জীবনের প্রতিটি মুহূর্তে যেসব বিষয়ের মুখোমুখি হবে তার বিধান এ ব্যবস্থায় বর্তমান থাকবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু মানুষ এমন অনেক বিষয়ের সম্মুখিন হয় যার কোন বিধান সরাসরি এতে পাওয়া যাচ্ছে না। নবুওয়ত ও রিসালাতের ধারা সমাপ্ত হওয়ায় ওহীর মাধ্যমে এসব সমস্যার সমাধান হওয়ার সম্ভাবনাও নেই। তবে ওহীভিত্তিক এমন পদ্ধতি অবশিষ্ট রয়েছে যার মাধ্যমে প্রত্যেক যুগের যে কোন নতুন বিষয়ের সমাধান সম্ভব।
পৃথিবীর প্রতিটি কাজেরই একটি নির্দিষ্ট নিয়ম-নীতি থাকে। একইভাবে ওহীভিত্তিক উক্ত পদ্ধতির আলোকে সাম্প্রতিক বিষয়ের ইসলামী বিধান উদ্ভাবনেরও নির্দিষ্ট নীতিমালা রয়েছে। যার উপর ভিত্তি করে আইন গবেষককে কাক্সিক্ষত বিধান নির্ণয়ের পথ চলতে হয়। আলোচ্য প্রবন্ধে সেই নীতিমালাকে ব্যাখ্যা করার উদ্দেশ্যে আনুষঙ্গিক হিসেবে সাম্প্রতিক বিষয়ের আরবী পরিভাষা, এর গুরুত্ব, এক্ষেত্রে আইন গবেষকের জন্য করণীয় ইত্যাদি বিষয় আলোচনা করা হয়েছে। সাথে সাথে মহানবী সা. সাহাবী ও তাবিঈগণ কীভাবে সাম্প্রতিক সমস্যার আইনী সমাধান করতে তা বর্ণনা করা হয়েছে।
সাম্প্রতিক বিষয় বলতে কী বুঝায়? : সাম্প্রতিক বিষয় বলতে এমন বিষয়কে বুঝায় যার ইসলামী বিধান নির্ণয়ের দাবি রাখে। অর্থাৎ এমন বিষয় যার শরঈ বিধান বর্ণনার জন্য ফাতওয়া ও ইজতিহাদের প্রয়োজন হয়। তাই উক্ত বিষয়টি একেবারেই বিরল হোক বা পুরাতন বিষয় নতুন আঙ্গিকে আসুক অথবা নতুন হোক। সাম্প্রতিক বিষয়ের সংজ্ঞায় আমরা কয়েকজন মনীষীর অভিমত উল্লেখ করতে পারি- প্রফেসর আব্দুল আযীয ইবনে আব্দুল্লাহ বলেন, এটি এমন অবস্থা ও বিষয় ইসলামী ফিকহের আলোকে যার বিধান বিশ্লেষণের দাবি রাখে। “ইবনে আব্দুল্লাহ, আব্দুল আযীয, ফিকহুন নাওয়াযিল, মাজাল্লাতু দাওয়াতুল হক, মরক্কো: আওকাফ ও ইসলাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়, সংখ্যা-‘‘২৪, ১৪০২ হি. পৃ.৪২” শায়খ সালমান আওদাহ বলেন, এমন নতুন বিষয় যার অধিকাংশ দিক আধুনিক যুগের অনুগামী যার শরঈ বিধান জটিলতা ও দুর্বোধ্যতায় আচ্ছাদিত। “আল-আওদাহ, সালমান ইবনে ফাহাদ, জাওয়াবিতুত দিরাসাত আল-ফিকহিয়্যাহ, রিয়াদ: দারুল ওয়াতান, ১৪১২ হি. পৃ. ৮৯। আল-বারযালী ‘জামিউ মাসাঈলিল আহকাম’ গ্রন্থ পর্যালোচনা করতে যেয়ে বলা হয়েছে, “এটি আকীদা ও চরিত্র সংক্রান্ত এমন সমস্যা যা একজন মুসলিমের দৈনন্দিন জীবনকে বাধাগ্রস্ত করে। ফলত তিনি ইসলামী নীতিমালার আলোকে এর উপযুক্ত সমাধান ও সামাজিক মূল্যবোধের প্রচেষ্টা করছে। “আল-বারযালী, মুনাকাশাহ আলা জামি মাসাঈলিল আহকাম, মাজাল্লাতু কুল্লিয়াতিল আদাব ওয়াল উলুমিল ইনসানিয়্যাহ, রাবাত: মুহাম্মদ আল-খামিস বিশ্ববিদ্যালয়, সংখ্যা ৫ ও ৬, ১৯৭৯, পৃ. ১৭২। ড. হাসান ফিলানী বলেন, “কোন ব্যক্তির উপর এমন কোন অবস্থা আপতিত হওয়া যাতে ঐ ব্যক্তি এ বিষয়ের শরঈ বিধান জানার জন্য যে ব্যক্তি তা অবগত করাতে পারেন তার শরণাপন্ন হন। তাই উক্ত বিষয় ইবাদত বা লেনদেন বা আচরণ বা চারিত্রিক যে বিষয়েই সংশ্লিষ্ট হোক না কেন। “ফিলানী, ডক্টর হাসান, ফিকহুন নাওয়াযিল, রিয়াদ: মুনতাকা আল-কীরওয়ান, হিজরী পঞ্চম শতাব্দী পর্যন্ত প্রাচ্য ও পাশ্চত্যে মালিকী মাযহাবের সম্প্রসার শীর্ষক প্রতিবেদন, ১৪১৪ হি. পৃ. ৩২০। অতএব সাম্প্রতিক বিষয় বলতে এমন নতুন বিষয়কে বুঝায় যার বিধানের ব্যাপারে শরীআতে সরাসরি কোন নস বর্ণিত হয়নি এবং সর্বসম্মত কোন ইজতিহাদ হয়নি।
সমার্থক কিছু আরবী পরিভাষা : সাম্প্রতিক বিষয় ও এ সংক্রান্ত ইসলামী বিধান বুঝাতে আরবী কিছু পরিভাষা ব্যবহৃত হয়। এ সংক্রান্ত প্রসিদ্ধ পরিভাষাগুলোর মধ্যে রয়েছে- হাওয়াদিস শব্দটি ‘হাদীসাহ’ এর বহুবচন। নতুন কিছু ঘটাকে ‘হাদাসা’ বলে। সে দৃষ্টিকোণ থেকে হাদিসাহ অর্থ-নতুন বিষয়। এ জন্য বছরের শুরুতে নতুন বৃষ্টিকে হাদিসাহ বলে। “ইবনে মানযুর, জামালুদ্দীন, লিসানুল আরব, বৈরূত: দারুল ফিকর, ১৪১০ হি. খ. ২, পৃ. ১৩২। আর এ সংক্রান্ত ফিকহকে বলা হয় ‘ফিকহুল-হাওয়াদিস’।
আন-নাওয়াযিল: এ শব্দটিও বহুবচন, একবচন ‘নাযিলাহ’। এর অর্থ বর্ণনায় আল-জাওহারী বলেন, সময়ের কোন কষ্টকর বিষয় বা জনসাধারণের উপর পতিত হয়। এ সংক্রান্ত ফিকহকে বলা হয় ‘ফিকহুন নাওয়াযিল’। “আল-জাওহারী, ইসমাইল ইবনে হাম্মাদ, আসসিহাহ ফীল লুগাত, বিশ্লেষণ: আহমদ আব্দুল গফুর আতা, বৈরূত: মাকতাবাতুর রিসালাহ, খ. ৫, পৃ. ১৮২৯।
আল-অকায়িঈ শব্দটি ‘অকিয়াহ’ শব্দের বহুবচন, যার অর্থ ঘটনা। লিসানুল আরব গ্রন্থকারের মতে, দুর্যোগ ও সময়ের দুর্বিপাক বুঝানোর জন্যও আকিয়াহ শব্দটি ব্যবহৃত হয়। “ইবনে, মানযুর, জালালুদ্দীন, লিসানুল আরব, প্রাগুক্ত, খ. ৮, পৃ. ৪০৩। এ শব্দের সাথে সম্পৃক্ত করে এ সংক্রান্ত ফিকহকে বলা হয় ‘ফিকহুল অকিই’।
মুসতাজিদ্দাহ : শব্দটি ‘জুদুদ’ শব্দ থেকে এসেছে। যার অর্থ-নতুন। আর মুসতাজিদ্দাহ অর্থ- সাম্প্রতিক, সর্বশেষ অবস্থা, নতুন নতুন অবস্থা। “রহমান ড. মুহাম্মদ ফজলুর, আধুনিক আরবী-বাংলা অভিধান, ঢাকা: রিয়াদ প্রকাশনী, ২০০৯ পৃ. ৯৩৬। আর এ সংক্রান্ত ফিকহকে বলা হয় ‘ফিকহুল-মুসতাজিদ্দাহ’।
কাদায় মুআসিরাহ: কাদায়া শব্দটি ‘কাদিয়াহ’ শব্দের বহুবচন। যার অর্থ অমীমাংসিত বিষয়। যে অমীমাংসিত বিষয় ফয়সালার জন্য কাযী বা বিচারকের সম্মুখে পেশ করা হয় তাকে কাদিয়াহ বা মামলা বলা হয়। “আল-ফাইয়ূমী, আহমদ মুহাম্মদ, আল-মিসবাহ আল-মুনীর, বৈরূত: মাকতাবাহ আসরিয়্যাহ, ১৩১৮ হি. খ. ২, পৃ. ৬৯৬। আর মুআসিরাহ শব্দটি ‘আসর’ শব্দ থেকে এসেছে, যার অর্থ সমসাময়িক, সমকালীন। “রহমান, ড. মুহাম্মদ ফজলুর, আধুনিক আরবী-বাংলা অভিধান, পৃ. ৯৬৬।
অতএব কাদায়া মুআসিরাহ অর্থ সমকালীন অমীমাংসিত বিষয়। ফিকহের সাথে সম্পৃক্ত করে একে বলা হয় ‘কাদায়া মুআসিরাহ ‘ফিকহিয়্যাহ’। যেসব সাম্প্রতিক বিষয়ের শরঈ বিধান নির্মিত হয়নি সেসব বিষয়কে বুঝাতে বর্তমানে এই পরিভাষাটি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়।
সাম্প্রতিক বিষয়ের ইসলামী বিধান নির্ণয়ের গুরুত্ব : বিভিন্ন কারণে সাম্প্রতিক বিষয়কসমূহের ইসলামী বিধান নির্ণয় গুরুত্বপূর্ণ। এ প্রসঙ্গে এর মধ্যে থেকে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি আলোচিত হল- ইসলামের গতিশীলতা ও পূর্ণতা প্রমাণ করা: ইসলামী একটি পরিপূর্ণ জীবনব্যবস্থা। মহাগ্রন্থ আল-কোরআনে এ পূর্ণতার ঘোষণা এসেছে। “আল-কোরআন, ৫: ৩’’ মহান আল্লাহ বলেন, আজ আমি তোমাদের জন্যে তোমাদের দ্বীনকে পূর্ণাঙ্গ করে দিলাম, তোমাদের প্রতি আমার নিআমত সম্পূর্ণ করে দিলাম এবং ইসলামকে তোমাদের জন্যে দ্বীন হিসেবে নির্ধারিত করলাম।” একই সাথে এ ব্যবস্থা শাশ্বত ও গতিশীল। কিয়ামত পর্যন্ত অনাগত প্রতিটি মানুষ স্থান, কাল, পাত্র ও পরিস্থিতি ভেদে যে অবস্থার মুখোমুখী হোক না কেন সে ক্ষেত্রে ইসলামের একটি নির্দেশনা থাকতে হবেই। নতুবা এটি হয়তো অপূর্ণাঙ্গ হিসেবে চিহ্নিত হবে অথবা যুগের উৎকর্ষতার বিপরীতের এটি অনুপযোগী হিসেবে প্রমাণিত হবে। অতএব নির্ধারিত নীতিমালার ভিত্তিতে সাম্প্রতিক বিষয়সমূহের বিধান নির্ণয়ের মাধ্যমে একদিকে ইসলামের গতিশীলতা ও পূর্ণতা প্রমাণ করা ও অন্যদিকে ইসলাম বিরোধী শক্তি যারা আধুনিক যুগে ইসলামের উপযোগিতা নিয়ে প্রশ্ন তোলে তাদের প্রতিউত্তর দান করা সম্ভব হয়।
মুসলিম উম্মাহ’র কষ্ট লাঘব করা : এমন অনেক নতুন বিষয় সৃষ্টি হয় যার বিধান নির্ণিত না থাকার কারণে মুসলিম উম্মাহ কষ্টের সম্মুখীন হন। আবার দেখা যায় অমুসলিমরা নিত্যনতুন আষ্কিারের মাধ্যমে মুসলিম উম্মাহকে অতিক্রম করে, যা তাদের জন্য কষ্টের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তাদের এ কষ্ট দূর করার জন্য ঐসব বিষয়ের ইসলামী বিধান নির্ণয় করার কোন বিকল্প নেই। যদি উক্ত বিষয় বৈধ হয় তাহলে মুসলমানগণ তা গ্রহণ করতে পারবেন। আর অবৈধ হলে এর বিকল্প পদ্ধতি আবিষ্কার করার প্রতি সচেষ্ট হবেন এবং উক্ত অবৈধ পদ্ধতি বর্জন করবেন।
ইজতিহাদের ধারা চলমান রাখা : ইজতিহাদ তথা ইসলামী বিধান উদ্ভাবনের গবেষণা একদল মানুষের জন্য অপরিহার্য। মহান আল্লাহ বলেন, “তাদের প্রত্যেক দলের একটি অংশ কেন বের হলো না, যাতে দ্বীনের জ্ঞান লাভ করে”। “আল-কুরআন, ৯: ১২২’’।
ইজতিহাদের মূল উদ্দেশ্যই হয়ে থাকে নতুন নতুন বিষয় গবেষণা করে এর বিধান উদ্ভাবন করা। যাকে আমরা ‘ইস্তিখরাজ, ‘ইস্তিম্বাত’ ইত্যাদি নামে চিনি। অতএব এ বিষয়ে গবেষণার মাধ্যমে ইজতিহাদের ধারা চলমান রাখা জরুরী।
সাম্প্রতিক বিষয়ের ইসলামী বিধান উদ্ভাবনে করণীয়: সাম্প্রতিক বিষয়ের ইসলামী বিধান উদ্ভাবনে ক্ষেত্রে করণীয়সমূহ থেকে এখানে আমরা চারটি গুরুত্বপূর্ণ করণীয় নিয়ে আলোচনা করব। সেগুলো হলো- ১. বিধান নির্ণয়ের পূর্বে করণীয় ২. বিধান উদ্ভাবনের সময় করণীয় ৩. শরীআহ অভিযোজন (ঝযধৎরয অফধঢ়ঃধঃরড়হ) ৪. সম্মিলিত গবেষণা (এৎড়ঁঢ় ওলঃরযধফ)
বিধান নির্ণয়ের পূর্বে করণীয়: সাম্প্রতিক বিষয়ের বিধান নির্ণয়ের পূর্বে সংশ্লিষ্ট গবেষকের যেসব করণীয় রয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- ঘটনার বাস্তবতা নিশ্চিত হওয়া: অবাস্তব বিষয় সম্পর্কে ইসলামের বিধান তলব ও প্রদান করা সালফে সালিহীন অপছন্দ করতেন। ইবনে উমর (রা.) এর নিকট এক ব্যক্তি এসে কোন এক বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, যে বিষয়ের কোন বাস্তবতা নেই সে সম্পর্কে জিজ্ঞেস করো না। কেননা আমি উমর ইবনুল খাত্তাব কর্তৃক ঐ ব্যক্তিকে অভিশাপ দিতে শুনেছি যে ব্যক্তি অবাস্তব বিষয়ে প্রশ্ন করে। “আদদারিমী, আবু মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ রহমান, সুনান আদদারিমী, বিশ্লেষণ: ফাওয়ায আহমদ আযযামরালী ও খালিদ আসসাবআ, বৈরূত: দারুল কিতাব আল-আরাবী, ১৪০৭ হি. বাবু কারাহিয়্যাতুল ফাতওয়া, খ. ১, পৃ. ৬২।
ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, রসূলুল্লাহ (সা.) এর সাহাবীগণের চেয়ে উত্তম মানবগোষ্ঠী আমি দেখিনি। তাঁরা তাঁর কাছে তেরটি প্রশ্ন ছাড়া কোন কিছু জিজ্ঞেস করেননি। আর এর সবগুলোই কোরআনে বিধৃত হয়েছে। তাঁদের উপকারে আসত এমন বিষয় ছাড়া তাঁরা অন্য কিছু জিজ্ঞেস করতেন না। ‘‘আদ্দারিমী, আবু মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ আব্দুর রহমান, সুনান আদ্দারিমী, প্রাগুক্ত, বাবু কারাহিয়্যাতুল ফাতওয়া, খ-১, পৃ. ৬৩’’
বিষয়টি বিশ্লেষণযোগ্য হওয়া: গবেষককে দৃষ্টি দিতে হবে উদ্ভূত পরিস্থিতি আদৌ বিশ্লেষণের যোগ্য কি না? কেননা এমন অনেক বিষয় আছে যাতে মানুষের দ্বীন- দুনিয়ার কোন কল্যাণ নেই। অযথা এর পিছনে সময় ও মেধা খরচ করা উচিত নয়। যদি কেউ কোন আলিম বা মুফতীকে বিপদে ফেলানোর জন্য বা তাকে অসম্মান করার জন্য অথবা ফিতনা-ফাসাদ সৃষ্টির উদ্দেশ্যে ইসলামের বিধান জানতে চায় তবে তা এড়িয়ে যাওয়া উচিত। কেননা মহানবী (সা.) কুটিল প্রশ্ন করা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। “আবু দাউদ, সুলাইমান ইবনে আশআস, আসসুনান, বিশ্লেষণ: মুহাম্মদ আওয়ামাহ, মক্কা: আল-মাকতাবাহ মাক্কীআহ, ১ম প্রকাশ-১৪১৯ হি. অধ্যায়: আল-ইলম, বাবুত অনুচ্ছেদ: তাওয়াক্কী ফীল ফাতওয়া, খ. ৪, পৃ. ২৪৩।
একইভাবে যেসব বিষয়ে শরীয়তের নস রয়েছে সেসব বিষয়ে ইজতিহাদ না করা। কেননা ফিকহী মূলনীতি হল, “নস থাকলে সেখানে ইজতিহাদের অনুমতি নেই। “যারকা, আহমদ, শারহু কাওয়াঈদুল ফিকহিয়্যাহ, বৈরূত: দারুল কালাম, ১৪০৯ হি. পৃ. ১৪৭।
সাম্প্রতিক যেসব বিষয় বিশ্লেষণযোগ্য তা হল-“জাসসাস, আবু বকর, আল-ফুসুল ফীল উসুল, বিশ্লেষণ: ড. আজীল নাশমী, কুয়েত: আওকাফ ও ইসলাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়, ১৪১৪ হি. খ. ৪, পৃ. ১৩: ইবনে কাইয়্যিম ইলামুল মুকিয়ীণ আন রাব্বিল আলামীন, লেবানন: দারুল কুতুবিল ইলমিয়্যাহ, ১৪০৮ হি. খ. ১, পৃ. ৫৪-৫৬: আল-কারাফী, শিহাবুদ্দীন, আল-আহকাম ফী তাময়্যিযুল ফাতাওয়া আনিল আহকাম, বিশ্লেষণ: আব্দুল ফাত্তাহ আবু গুদ্দাহ, হালব: মাকতাবাতুল মাতবুআতিল ইসলামিয়্যাহ, ২য় প্রকাশ- ১৪১৬ হি. পৃ. ১৯২।
১. যে বিষয়ে কোন অকাট্য দলীল বা ইজমা থাকবে না। ২. যদি উক্ত বিষয়ে অকাট্য দলীল থাকে তবে সে দলীল ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ তথা তাবিলের পর্যায়ভুক্ত হতে হবে। ৩. এমন মতবিরোধপূর্ণ বিষয় যার ক্ষেত্রে শরীয়ত প্রণেতার উদ্দেশ্য বর্ণনা করতে যেয়ে একপক্ষ তাকে বৈধ বলেছেন অন্যপক্ষ তাকে অবৈধ বলেছেন। ৪. বিষয়টি আকীদা বা তাওহীদের মূলনীতি কিংবা কোরআন- সুন্নাহ’র মুতাশাবিহ এর অন্তর্ভূক্ত হবে না। ৫. বিষয়টি এমন সাম্প্রতিক সমস্যা যা ইতোমধ্যে সমাজে প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে বা এমন আবশ্যম্ভাবী যার শরঈ বিধান আবশ্যক।
সূক্ষ্ম অনুধাবন : সাম্প্রতিকতার ফিকহ তথা আধুনিক বিষয়ের ইসলামী সমাধান অতি সূক্ষ্ম একটি বিষয়। এ এমন এক জিজ্ঞাসা যে সম্পর্কে সরাসরি কোন বিধান বর্ণিত নেই। এ জন্য এ বিষয়ের বিধান নির্ণয়ের পূর্বে এর খুঁটিনাটি সব কিছু ভালভাবে অনুধাবন অপরিহার্য। খলিফা উমর (রা.) কর্র্তৃক আবু মুসা আশয়ারী (রা.) কে লেখা পত্রে তিনি বলেন- “নিশ্চয় বিচার-ফয়সালা একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব যা প্রত্যেক যুগে চলে আসছে। তোমার কাছে কোন কোন মামলা আসলে তা ভালভাবে অনুধাবন করবে (অতঃপর তা কার্যকর করবে)। কেননা মৌখিক ফয়সালার কোন অর্থ হয় না, যতক্ষণ না তা কার্যকর হয়। যেসব মামলার ফয়সালা কোরআন ও হাদীসে না পাওয়া যাবে সেগুলোকে খুব গভীরভাবে অনুধাবন করবে। “ফারিক, খুরশীদ আহমদ, হযরত উমর (রা.) এর সরকারী পত্রাবলী, অনুবাদ: মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ, ঢাকা: ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ, ২০০৪ পৃ. ২১৮-২১৯।
প্রাজ্ঞজনের পরামর্শ গ্রহণ : আধুনিক বিষয়টি সম্পর্কে প্রাজ্ঞজনের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে। এ সম্পর্কে মহান আল্লাহর নির্দেশও রয়েছে: “জ্ঞানীদের কাছে জিজ্ঞেস কর যদি তোমরা না জান”। “আল-কোরআন, ২১:৭। শিক্ষা ব্যবস্থার ত্র“টির কারণে বর্তমান সময়ে একজন আলিমের পক্ষে বিজ্ঞান, চিকিৎসা, ব্যবসায় সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয় যথার্থভাবে জানার সুযোগ নেই। এজন্যই উদ্ভূত যাবতীয় বিষয় সংশ্লিষ্ট প্রাজ্ঞজনের কাছ থেকে ভালভাবে অবগত হওয়া কর্তব্য। যেমন- কেউ যদি টেস্ট টিউব বেবী, জরায়ূ ভাড়াদান, মরণোত্তর অঙ্গদান, শেয়ার মার্কেট, ব্যাংক কার্ড ইত্যাদি বিষয়ের বিধান নির্ণয় করতে চান তবে নিশ্চয় তাকে এসবের প্রক্রিয়া ও আনুষঙ্গিক সব বিষয় সংশ্লিষ্ট নির্ভরযোগ্য ও অভিজ্ঞ ব্যক্তি থেকে জানতে হবে।
মহান আল্লাহর সাহায্য কামনা : বিধান নির্ণয়ের ক্ষেত্রে মুজতাহিদ যেন সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারেন তার জন্য মহান আল্লাহর সাহায্য কামনা করা অবশ্য কর্তব্য। আমরা কোনভাবেই এ আত্মিক দিককে অবহেলা করতে পারি না। মহান আল্লাহ ফিরিশতাদের ঘটনা বর্ণনা করে এ সংক্রান্ত আদব আমাদেরকে শিখিয়েছেন। নিজের অক্ষমতার ক্ষেত্রে তিনি আমাদেরকে বলতে বলেছেন: “আপনার পবিত্রতা, আপনি আমাদেরকে যা শিখিয়েছেন তার চেয়ে বেশি কোন জ্ঞান আমাদের নেই। “আল-কোরআন, ২: ৩২। মহান আল্লাহ আরও বলেন, “বল, হে আমার প্রতিালক! আমার জ্ঞান বৃদ্ধি কর।” “আল-কোরআন, ২০: ১১৪।
বিধান উদ্ভাবনের সময়ে করণীয়: সমসাময়িক সমস্যার সমাধান উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে গবেষকের যেসব করণীয় তা হল- ক. দলীল, প্রস্তাব ও প্রেক্ষাপট বর্ণনা করা:
১. বিধানের দলীল বর্ণনা করা: ইমাম ইবনে কাইয়্যিম বলেন, মুফতি বা মুজতাহিদের উচিত বিধানের দলীল ও সূত্র বর্ণনা করা এবং ফাতওয়া জিজ্ঞেসকারীকে দলীলবিহীন উত্তর না দেয়া। “ইবনে কাইয়্যিম, ইলামুল মুয়াক্বিইন আন-রাব্বিল আলামীন, প্রাগুক্ত, খ. ৪, পৃ. ১২৩।
২. বিকল্প প্রস্তাবনা পেশ করা: যেহেতু সাম্প্রতিক আবিষ্কারের অধিকাংশই অমুসলিম কর্তৃক উদ্ভাবিত সেহেতু মুসলিম গবেষকের উচিত এসব বিষয়ের যে যে দিক শরীআহ’র সাথে সাংঘর্ষিক সেগুলো পরিত্যাগ করে এর বিকল্প পদ্ধতি বের করা। ইমাম ইবনে কাইয়্যিম বলেন, মুফতি বা মুজতাহিদের জন্য আবশ্যক যদি তিনি ফাতওয়া তলবকারী তা সমাধান প্রত্যাশীদেরকে কোন কাজ থেকে নিষেধ করেন অথচ বিষয়টি তার জন্য অতি জরুরী তবে তিনি তাকে বা তাদেরকে উক্ত কাজের বিকল্প পথ বলে দিবেন। যাতে উক্ত ব্যক্তির জন্য হারামের দরজা বন্ধ হয়ে যায় ও শরীআহ অনুমোদিত পদ্ধতির দরজা উন্মুক্ত থাকে। “প্রাগুক্ত”।
৩. বিধান বর্ণনার পূর্বে প্রেক্ষাপট বর্ণনা: সাম্প্রতিক জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের বিধান বর্ণনার পূর্বে ভূমিকাস্বরূপ উক্ত বিষয়ের আনুষঙ্গিক বিভিন্ন দিক আলোচনা করতে হবে, যাতে উক্ত বিষয়ের বিধান মানুষ সহজে বুঝতে পারে। যেমন মহান আল্লাহ যাকারিয়া (আ.) এর ঘটনা বর্ণনা করেছেন যে, বার্ধক্যের এমন পর্যায় তাঁর সন্তান হয়েছিল যে পর্যায়ে সাধারণত সন্তান হয় না। মহান আল্লাহ এ ঘটনাটি ঈসা (আ.) এর পিতা ছাড়া জন্ম হওয়ার ঘটনা বর্ণনার পূর্বে ভূমিকাস্বরূপ উল্লেখ করেছেন। যাতে অতিশয় বৃদ্ধ দম্পতি থেকে সন্তান জন্ম নেয়ার ঘটনা বিশ্বাস করানোর মাধ্যমে পিতা ছাড়া সন্তান জন্ম হওয়ার ঘটনা বিশ্বাস করা সহজ হয়। “সূরা মারইয়াম (আল-কোরআর: ১৯) এ সংক্রান্ত আলোচনা বর্ণিত হয়েছে’’।
প্রশ্নকারীর প্রশ্নের উত্তর দেয়ার সাথে সাথে সম্পূরক বিভিন্ন তথ্য প্রদান করাও মুজতাহিদের কর্তব্য। ইমাম বুখারী র. তার সহীহ বুখারীতে “মান আজাবাস সাঈল বিআকসারি মিমমা সাআলাহু আনহু” শীর্ষক একটি অধ্যায় অন্তর্ভূক্ত করে দেখিয়েছেন। মহানবী সা. অনেক প্রশ্নের জবাবের সাথে সাথে অতিরিক্ত তথ্য প্রদান করেছেন।
মাকাসিদে শরীআহ’র প্রতি দৃষ্টি রাখা : মাকাসিদে শরীআহ বলা হয়, বান্দার কল্যাণ নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে যেসব নির্দিষ্ট উদ্দেশ্যকে সামনে নিয়ে ইসলামী আইন প্রণীত হয়েছে যেসব উদ্দেশ্যকে। সাম্প্রতিক বিষয় পর্যাবেক্ষণকারী গবেষকের জন্য মাকাসিদে শরীআহ’র গুরুত্বপূর্ণ কিছু দিক এখানে উল্লেখ করা হল।
“আল-গাযালী, আবু হামিদ, আল-মুসতাসফা, সিরিয়া: আল-মাকবাআহ আল- আমীরিয়্যাহ, ১৩২২ হি. খ. ১, পৃ. ২৯৬।  ১. কল্যাণ নিশ্চিত করা। ২. কষ্ট দূরীভূত করার নীতি বাস্তবায়ন করা। ৩. ফলাফল পর্যবেক্ষণ করা।
সাম্প্রতিক বিষয় সম্পর্কিত বর্তমান কোন বিধান থাকলে তার বিশ্লেষণ : এর দ্বারা উদ্দেশ্য গবেষক সাম্প্রতিক বিষয়ের বিধান নির্ণয়ের সময় এ সংক্রান্ত কোন গবেষণাপ্রসূত বিধান আছে কি না এবং সে বিধান পরিবর্তনের মাধ্যমে উদ্ভূত সমস্যার সমাধান সম্ভব কি না তা দেখবেন। লক্ষ্য করবেন স্থান-কাল-পাত্র ভেদে উক্ত বিধান পরিবর্তনযোগ্য কি না? কেননা শরীয়াতের ইজতিহাদপ্রসূত অনেক বিধান স্থান-কাল-সমাজ পরিবর্তনের কারণে পরিবর্তিত হওয়ার প্রমাণ রয়েছে। এ কারণে একই মাযহাবের মুতাক্কাদিমীন ও মুতাআখখিরীনের মধ্যে ফাতওয়ার ভিন্নতা দেখা যায়। এরই প্রেক্ষিতে ইসলামী আইনের মূলনীতি শাস্ত্রের সূত্র রয়েছে: “যুগের পরিবর্তনে বিধানের পরিবর্তন স্বীকৃতি”। “যারকা, শেখ আহমদ, আল-কাওয়াঈদ আল-ফিকহিয়্যাহ, তা. বি. পৃ. ২২৭। আল্লামা ইবনে কাইয়্যিম তাঁর ইলামুল মুয়াক্বিয়ীনের মধ্যে শীর্ষক একটি অধ্যায় অন্তর্ভূক্ত করেছেন’’।         (চলবে)