লা-মাযহাবীদের অপতৎপরতা বন্ধে উলামা পরিষদের বিশাল সমাবেশে নেতৃবৃন্দ ॥ আহলে হাদীস নামধারী লা-মাযহাবী অবিলম্বে আইনের আওতায় নিয়ে আসুন

0
10

সিলেটের সর্বস্তরের তৌহিদা জনতার অংশগ্রহণে লা-মাযহাবীদের অপতৎপরতা বন্ধে উলামা পরিষদ বাংলাদেশ আয়োজিত বিশাল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। নগরীর কোর্ট পয়েন্টে শুক্রবার বাদ জুম্মা অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন পরিষদের সভাপতি মাওলানা মুফতি আবুল কালাম জাকারিয়া। সমাবেশে সিলেটের সর্বস্তরের মুসলমানসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন তৌহিদা জনতার বাঁধ ভাঙ্গা ¯্রােতে সিলেট নগরীর কোর্ট পয়েন পরিণত হয় বিশাল জনসমুদ্রে। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন পরিষদের উপদেষ্টা মাওলানা শফিকুল হক আমকুনী, মাওলানা মুহিবুল হক গাছবাড়ী, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন কামরান, সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী, জাতিসংঘে বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত ড. এ কে আব্দুল মোমেন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আশফাক আহমদ, সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ। সমাবেশে বক্তারা বলেন, আহলে হাদীস নামধারী লা-মাযহাবীরা ইসলামের মৌলিক আক্বিদাহ বিশ^াসের মধ্যে ভ্রান্ত বিষয়ের অবতারণা করছে। এর মাধ্যমে তারা মুসলমানদেরকে ঈমানের পথ থেকে দূরে রাখার অপচেষ্টা করছে। মূলত দেশকে অস্থিতিশীল এবং জঙ্গিবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করার মিশন নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। দেশ ও জাতির স্বার্থে তাদের সকল সেন্টার প্রশাসনের আওতায় এনে ইসলামী ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে পরিচালিত করতে হবে। অন্যথায়, সকল সেন্টার বন্ধ করে ইসলাম ও মুসলমানদের ঈমান-আক্বিদাহ সংরক্ষণ করার ব্যবস্থা করতে সিলেটের সর্বস্তরের তৌহিদা জনতা। এছাড়া অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দ এসব আহলে হাদীস নামধারী লা-মাযহাবীদেরকে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করার জন্য প্রশাসন এবং সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানান। অন্যথায় এরা দেশকে অস্থিতিশীল করতে মরিয়া হয়ে উঠবে।
সমাবেশে প্রস্তাবনা পেশ করেন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মুহিব্বুর রহমান মিটিপুরী। সমাবেশে পঠিত প্রস্তাবনাগুলো হচ্ছে-আহলে হাদীস নামক লা-মাযহাবীদের বাতিল ফিরকার অপতৎপরতা সিলেট বিভাগ তথা সমগ্র বাংলাদেশে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হোক, বর্ণিত বাতিল ফিরকার প্রকাশিত সকল পুস্তিকা বাতিল, তাদেও প্রকাশনাগুলো সিলগালা করে দেয়া হোক, সিলেট শহরতলীতে গড়ে উঠা তাদের সকল সেন্টার সরকারের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে এনে অন্যান্য মসজিদের মত পরিচালনার ব্যবস্থা করতে হবে। আট রাকায়াত তারাবিহ নামাজ পড়ার নব্য প্রথা সিলেটে নিষিদ্ধ করা হোক। ইউটিউবের মাধ্যমে তাদের মিথ্যাচার ছড়ানো বন্ধের লক্ষ্যে তাদের চ্যানেলগুলা তথ্য প্রযুক্তির আইনের আওতায় এনে সর্বস্তরের তৌহিদী জনতাকে ধোঁকা দেওয়া থেকে বর্ণিত ফিরকাকে স্তব্ধ করা হোক।
সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা শামসুদ্দিন মো. ইলিয়াস, নির্বাহী সদস্য মুফতি রশীদ আহমদ এবং জাতীয় ইমাম সমিতি সিলেট মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সিরাজুল ইসলামের যৌথ সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পরিষদের পরিষদের সহ সভাপতি সহ সভাপতি মাওলানা রেজাউল করীম জালালী, প্রিন্সিপাল মাওলানা মজদুদ্দীন আহমদ, মাওলানা মুশতাক আহমদ খান, মাওলানা মোজাম্মিল হোসেন চৌধুলী, সাবেক পিপি এডভোকেট নূরুল হক, সিলেট মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আজমল বখত সাদেক, কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ, বিসিবির পরিচালক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, কাউন্সিলর আলহাজ¦ রাজিক মিয়া, কাউন্সিলর রেজোয়ান আহমদ, সাবেক কাউন্সিলর বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালিক, মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান, মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরী, মাওলানা খলিলুর রহমান, মাওলানা হাবিব আহমদ শিহাব, ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন, মাওলানা আজির উদ্দিন পাশা, মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী, মাওলানা জাহিদ উদ্দিন চৌধুরী, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা হারুনুর রশীদ আল-আযাদ, মাওলানা হুমায়ুন কবির বাবর।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে সিলেটের এডিশনাল পিপি এডভোকেট শামসুল ইসলাম, কাজিরবাজার মাদরাসার হোস্টেল সুপার মাওলানা আব্দুস সুবহান, মাওলানা রফিকুল ইসলাম মুশতাক, থখাজা মাওলানা খাজা মঈনুদ্দিন জালালাবাদী, মাওলানা রইস আলী, মাওলানা অলিউল্লাহ মাসুম, মাওলানা হুমায়ুন কবির আবরার, মাওলানা মাহমুদ হোসেন, মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মাওলানা মোহাম্মদ আলী, মাওলানা হোসাইন আহমদ, মাওলানা আব্দুস সবুর প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি