মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল সম্ভব নয় -প্রধানমন্ত্রী

0
3

কাজিরবাজার ডেস্ক :
হাইকোর্টের রায় থাকায় সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল করা সম্ভব নয় বলে জাতীয় সংসদে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, এই কোটা বাতিল করলে তিনি আদালত অবমাননার দায়ে অভিযুক্ত হবেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধাদের যে কোটা তাতে হাইকোর্টের রায় রয়ে গেছে। যেখানে হাইকোর্টের রায়ে আছে যে, মুক্তিযোদ্ধাদের কোটা সংরক্ষিত থাকবে। তাহলে ওই কোটার বিষয়ে আমরা কীভাবে কোর্টের ওই রায় ভায়োলেট করবো। সেটা তো আমরা করতে পারছি না। এই রায় অবমাননা করে তখন তো আমি কনটেম্প অব কোর্টে পড়ে যাব। এটা তো কেউ করতেই পারবে না।’
বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে চলতি বাজেট অধিবেশনের সমাপনী ভাষণে শেখ হাসিনা এই কথা বলেন।
কোটা সংস্কারের দাবিতে তুমুল আন্দোলনের মুখে গত ১১ এপ্রিল সংসদেই প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছিলেন কোনো কোটা থাকবে না। এরপর ২ মে গণভবনে সংবাদ সম্মেলন এবং ২৭ জুন জাতীয় সংসদে তিনি আবার বলেন, কোটা থাকবে না।
আবার ২ মে কোটা সংস্কার, বাতিল বিষয়ে সুপারিশ করতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় একটি কমিটি গঠন করে। তাদের ২৩ জুলাইয়ের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার কথা।
কমিটি এক দফা বৈঠক করে কোটার বিষয়ে দেশ বিদেশের প্রতিবেদন সংগ্রহের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আর এক সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন পেলে আবার বৈঠকে বসবে তারা।
এরই মধ্যে ১১ জুলাই সংবাদ সম্মেলন করে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক জানান, মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহাল রাখার বিষয়ে হাইকোর্টের আদেশ আছে। কাজেই এই কোটা বাতিল করলে আদালত অবমাননা হবে।
কোটা বাতিলের বিষয়ে তার আগের ঘোষণা নিয়েও কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। বলেছেন, ‘আমি তো বলেছি টোটাল কোটা বাদ দিতে। আমরা তো কেবিনেট সেক্রেটারিকে দিয়ে একটি কমিটিও করে দিয়েছি। তারা সেটা দেখছে। তাহলে এদের অসুবিধাটা কোথায়?’
এর আগে বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ কোটা আন্দোলন নিয়ে শিক্ষার্থীদের দাবির বিষয়টি সহানুভূতির সঙ্গে দেখতে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানান।
আর প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের ‘বিভ্রান্তি’র কথা তুলে ধরে বলেন, ‘ঠিক তারা যে কী চায়, বার বার জিজ্ঞাসা করা হয়েছে, সেটা কিন্তু সঠিকভাবে বলতে পারে না।’
‘যেখানে কোটা পূরণ হবে না, কোটার যেটা খালি থাকবে, তা মেধার তালিকা থেকে নিয়োগ হবে। এটা আমরা করে দিয়েছি। গত কয়েক বছর থেকেই এই প্রক্রিয়া চালু রয়েছে।’
বাংলাদেশে সরকারি চাকরিতে ৫৬ শতাংশ কোটা রয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি কোটা ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জন্য সংরক্ষিত। এর বাইরে ১০ শতাংশ করে নারী ও জেলা কোটা, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী কোটা পাঁচ শতাংশ এবং এক শতাংশ আছে প্রতিবন্ধী কোটা আছে।
১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে মুক্তিযোদ্ধা কোটার সুবিধা সন্তানদেরকেও দেয়। এরপর জামায়াত-শিবির অনুসারীরা এই কোটা বাতিলের দাবিতে নানা সময় আন্দোলন করে ব্যর্থ হয়েছে। তবে গত ফেব্রুয়ারিতে শুরু হওয়া আন্দোলনে কোনো বিশেষ কোটার নাম উল্লেখ না করে সব মিলিয়ে কোটা ১০ শতাংশে নামিয়ে আনার দাবি জানানো হয়।