মহাসড়কে সিএনজি অটোরিক্সা বন্ধ সহ ৫ দফা দাবিতে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের কঠোর হুঁশিয়ারী

0
9

স্টাফ রিপোর্টার :
মহাসড়কে সিএনজি অটোরিক্সা চলাচল বন্ধসহ পাঁচ দফা দাবি বাস্তবায়নে প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সিলেট পরিবহন মালিক ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা। দাবি বাস্তবায়ন না হলে কঠোর পদক্ষেপের হুঁশিয়ারঅও দেন তারা। গতকাল শনিবার দুপুরে নগরীর একটি হোটেলে সিলেট জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি জানান শ্রমিক নেতারা।
পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের পাঁচ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে- সিএনজি অটোরিকশায় লোহার গ্রীল স্থাপন, মটরযান আইন মেনে চলে আসন তৈরি, উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও হাইওয়েতে সিএনজি অটোরিক্সা চলাচল বন্ধ করা, তিনজনের বেশি যাত্রী না নেওয়া এবং নিবন্ধনহীন সিএনজি অটোরিকশা চলাচল বন্ধ করা।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান সিলেট জেলা সড়ক পরিবহন মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. জিয়াউল কবীর পলাশ।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ২০০৮ সালে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির এক প্রজ্ঞাপনে সিএনজি অটোরিক্সার উভয়পাশে লোহার গ্রীল স্থাপন ও ড্রাইভিং সিট ছোট করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়। ২০১২ সালের ২০ জুন এক রিট পিটিশনের প্রেক্ষিতে উচ্চ আদালতের নির্দেশে হাইওয়ে সড়কে অটোরিকশা চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। ২০১৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর সিলেটের জেলা প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠকে আলোচনায় গ্রীল সংযোজন ব্যতীত সিএনজি অটোরিক্সার ফিটনেস ইস্যু না করার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু নির্দেশনা বাস্তবায়নে দীর্ঘদিন ধরে আলোচনা চললেও তা বাস্তবায়ন হয়নি।
সিলেট জেলা মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ও সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন জেলা শাখার সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সেলিম আহমদ ফলিক বলেন, পাঁচজন যাত্রী নেওয়ায় অটোরিকশা চালক ভারসাম্য বজার রাখতে পারেন না, যে কারণে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাসের ক্ষেত্রেও সীটের অতিরিক্ত যাত্রী না নিতে চালকদের আমরা নিরুৎসাহিত করবো। অনিয়ম পেলে ব্যবস্থা নেবো। তবে প্রশাসন তাদের যৌক্তিক দাবি মেনে না নিলে তারা আন্দোলনে যাবেন।
সিলেট জেলা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি আবুল কালামের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, মালিক সমিতির সহ সভাপতি আব্দুর রহিম, আজিজুর রহমান চৌধুরী, সেলিম আহমদ, হেলাল উদ্দিন, রিহাদ আহমদ, সহ সাধারণ সম্পাদক রেজওয়ান আহমদ রাজন, শেকু আহমদ, আব্দুল গণি চৌধুরী, এমরান হোনে ঝুনু, আমিনুজ্জামান জোয়াহির, আব্দুর রকিব ও জুবায়ের আহমদ প্রমুখ।