ভাদেশ্বর হাফিজিয়া মাদ্রাসার ভিত্তিপ্রস্তর অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী ॥ মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরাও আজ কোন দিকে পিছিয়ে নেই

0
14

গোলাপগঞ্জ থেকে সংবাদদাতা :
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন শিক্ষার্থীদের মধ্যে নৈতিক মূল্যবোধে জ্ঞান অর্জন করতে হবে। শিক্ষার্থীকে আদর্শ নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে মাদ্রাসা শিক্ষার ভূমিকা অপরিসীম। সরকার মাদ্রাসা শিক্ষার প্রতি খুবই আন্তরিক। মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরাও আজ কোন দিকে পিছিয়ে নেই। বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলছে। তারা মাদ্রাসায় পড়া লেখা করে দেশ বিদেশের বিভিন্ন সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করছে। মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা মাদ্রাসায় পড়া লেখা করে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করছে। শিক্ষার্থীরা মাদ্রাসা থেকে শিক্ষা নিয়ে সৎ অফিসার সৃষ্টি হবে। এছাড়া নতুন প্রজন্মকে নৈতিক মূল্যবোধ ও দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। গতকাল শুকবার সকাল সাড়ে ৯টায় গোলাপগঞ্জের ভাদেশ্বর ইউনিয়নের ভাদেশ্বর হাফিজিয়া দাখিল মাদ্রাসার ৫০ বছর পূর্তি ও ৭০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিত নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথাগুলো বলেন। মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান এমএ ছালিকের সভাপতিত্বে ও মাদ্রসা ছাত্র তোফায়েল আহমদের পরিচালনায় শিক্ষামন্ত্রী বলেন শেখ হাসিনা সরকার কথায় নয়, উন্নয়নে বিশ্বাসী। মৌলিক চাহিদাসহ তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নে সরকার নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। বছরের প্রথম দিনে বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দিয়ে এই সরকার বিশ্বের কাছে রোড মডেল হিসেবে পরিলক্ষিত হয়েছে। ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত দেশ গড়ার লক্ষ্যে আওয়ামীলীগ সরকারের বিকল্প নেই। জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার ২০২১ সালে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছিল। আমরা সেই লক্ষ্যমাত্র অর্জনের ধারপ্রান্তে এসে উপনীত হয়েছি। দেশ ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত হবে। গোটা বিশ্ব আজ তা বিশ্বাস করতে শুরু করেছে। একসময় ডিজিটাল বাংলাদেশের নাম শুনলে অনেকে হাসি তামাশা করতো। কিন্তু ডিজিটাল বাংলাদেশ আজ দৃশ্যমান সত্য। দেশের মানুষ জাতি হিসেবে আজ আত্মনির্ভরশীল। শিক্ষার উন্নয়নে শিক্ষাব্যবস্থায় আরো আমূল পরিবর্তন করতে হবে। নতুন প্রজন্মকে বিশ্বমানের প্রযুক্তিজ্ঞানে শিক্ষিত করে তুলতে হবে। এ বছর ৩৫ কোটি ৪২ লক্ষ ৯০ হাজার বই বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে। সারা দেশের ৩৭ হাজার স্কুলে কম্পিউটার শিক্ষা চালু করা হয়েছে। ২০ হাজারের অধিক ল্যাবরেটরী চালু করে দেয়া হয়েছে। দেশের আসল নিয়ামক হচ্ছেন শিক্ষকরা। তাই শিক্ষকরাও শিক্ষার্থীদের পাঠদানে আরও যতœশীল হতে হবে। ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিক আহমদ, জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য সৈয়দ মিসবাহ উদ্দিন, প্রিন্সিপাল মিছবা উদ্দিন টিপু, শিক্ষক হাফিজ আব্দুল কাইয়ূম।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মামুনুর রহমান, জেলা শিক্ষা প্রকৌশলী নজরুল হাকিম, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা অভিজিৎ কুমার পাল, উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক আকবর আলী ফখর প্রমুখ।