জেলা বিএনপির আলোচনা সভায় ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরী ॥ এম. ইলিয়াস আলী সহ সকল গুমের সাথে সরকার ও ভারতের র’ জড়িত

0
27

বিশিষ্ট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন- বাংলাদেশ চরম ক্রান্তিকাল অতিবাহিত করছে। ভারত আমাদের দেশকে তাদের করদরাজ্যে পরিনত করতে তাদের গোয়েন্দা সংস্থা র’কে ব্যবহার করছে। সিলেটের জনপ্রিয় জননেতা এম. ইলিয়াস আলী সহ সকল গুমের সাথে ভারতের র’ জড়িত। ভারতের টিপাইমুখী বাঁধ নির্মাণের প্রতিবাদে গণআন্দোলন তৈরী করায় র’ ইলিয়াস আলীকে গুম করা হয়েছে। এই সরকারের কাছে গুমকৃতদের ফিরিয়ে দেয়ার দাবী জানিয়ে কোন লাভ নেই। কারণ তাদের পরিচালনা করছে ভারত। তাই সবার আগে দেশপ্রেমিক জনতাকে ভারতের বিরুদ্ধে জেগে উঠতে হবে। রাজনীতিতে প্রতিযোগিতার বিকল্প নেই। কিন্তু প্রতিহিংসার মাধ্যমে বিরোধী পক্ষকে গুম এবং মামলা দিয়ে নিশ্চিহ্ন করার নোংরা রাজনীতি দেশকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এ থেকে পরিত্রান পেতে প্রয়োজন আন্দোলন। ঘরে কিংবা হলরুমে প্রোগ্রাম নয় রাজপথ দখল নিতে হবে। তাহলে রাজনীতিতে পরিবর্তন আসতে বাধ্য। তিন বারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবী না জানিয়ে সুবিচারের দাবিতে সোচ্চার হতে হবে। সুবিচার নিশ্চিত হলে সাজা তো দূরের কথা বেগম খালেদা জিয়ার কথিত দুর্নীতির মামলাটিই একেবারে উড়ে যাবে।
তিনি শনিবার সিলেটের কোটি জনতার হৃদয়ের স্পন্দন জননেতা এম. ইলিয়াস আলী, ছাত্রদল নেতা ইফতেখার আহমদ দিনার, জুনেদ আহমদ ও গাড়ীচালক আনসার আলী গুমের ৬ বছর অতিবাহিত হওয়ায় এখন পর্যন্ত তাদের ফিরে না পাওয়ায় সকল গুমকৃতদের ফিরিয়ে দেয়ার দাবিতে সিলেট জেলা বিএনপির উদ্যোগে আয়োজিত “ভিন্ন মতাবলম্বীদের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে গুম ও আগামীর রাজনীতি” শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন। সিলেট জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এডভোকেট আব্দুল গাফফারের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদের পরিচালনায় নগরীর দরগা গেইটস্থ হোটেল হলিসাইডের হলরুমে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন- সম্মিলিতি পেশাজীবি পরিষদ সিলেটের সভাপতি ডা: শামীমুর রহমান, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গনিত বিভাগের অধ্যাপক ড. মো: আশরাফ উদ্দিন। জেলা ওলামা দলের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সাদিকুর রহমানের পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে সুচীত আলোচনা সভায় গুমকৃত নেতৃবৃন্দের পরিবারের সদস্যদের মধ্যে থেকে বক্তব্য রাখেন- নিখোঁজ ছাত্রদল নেতা ইফতেখার আহমদ দিনারের বাবা ডা: মঈনুদ্দিন আহমদ, নিখোঁজ জননেতা এম ইলিয়াস আলীর ভাগনী ফাতেমা বিনতিন, নিখোঁজ গাড়ী চালক আনসার আলীর স্ত্রী মুক্তা বেগম ও নিখোঁজ ছাত্রদল নেতা জুনেদ আহমদের ছোট ভাই হাসান মঈনুদ্দিন আহমদ। গুমকৃত নেতাকর্মীদের পরিবারের সদস্যদের বক্তব্যে উপস্থিত সবাই আবেগআপ্লুত হয়ে পড়েন।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সিলেট বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি দিলদার হোসেন সেলিম, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন, জেলা বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক এডভোকেট নুরুল হক, মহানগর সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম প্রমুখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরী আরো বলেন- সিলেটের সাথে আমার রয়েছে প্রাণের স্পন্দন। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক বঙ্গবীর এম এ জি ওসমানীর সাথে সিলেটে এসেছি। অনেক স্মৃতি রয়েছে সিলেট নিয়ে। মানুষ এখন পরিবর্তন চায়। তাই মানুষকে পরির্বতনের পথে পরিচালিত করতে হবে। সরকার ক্ষমতা ছাড়তে ভয় পায় এই কারণে যে, বিএনপির উপর এতো জুলুম, এতো অত্যাচার এতো নিপীড়নে বিএনপি যদি প্রতিশোধ পরায়ন হয়ে যায় এই ভয়ে। বিএনপিকে বলতে হবে আমরা ক্ষমতায় গেলে প্রতিশোধ নিবনা সকল ক্ষেত্রে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করবো। মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করতেই বিএনপির চেয়াপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে একটি ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি না চেয়ে বরং বিচারপতিদের প্রতি আহবান জানান আপনার ন্যায় বিচার করুন বিবেককে জাগ্রত করুন। সবাই যদি ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে নামতে পারেন তাহলে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে। আর জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত হলেই গুমকৃতদের ফিরে পাওয়া সম্ভব হবে এর সাথে উন্মোচিত হবে সকল গুম নির্যাতনের রহস্যও। বিজ্ঞপ্তি