রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হোক

0
20

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নিপীড়ন-নির্যাতন ও মিয়ানমার সরকারের বৈরী মনোভাবের কারণে প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছে। বাংলাদেশ মানবিক বিবেচনায় তাদের আশ্রয় দিয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের এ ভূমিকা সারা বিশ্বে প্রশংসিত হয়েছে। কিন্তু বাস্তবতা হলো, চিরদিনের জন্য তাদের আশ্রয় দেওয়া সম্ভব নয়। একদিন তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠাতেই হবে। আশ্রিত রোহিঙ্গাদের মর্যাদার সঙ্গে ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক মহল। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ সরকার তৎপর। মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে আলোচনাও করেছে। বাংলাদেশের অব্যাহত তৎপরতায় এবং বিশ্বমহলের চাপে তারা প্রত্যাবাসনে সম্মতও হয়েছে, যদিও তাদের আন্তরিকতা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। রোহিঙ্গারা সমর্যাদায় ও নিরাপদে তাদের বাসভূমিতে থাকতে পারবে কি না এ নিয়ে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক মহলেরও যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। এমন একটি পরিস্থিতিতে আজ ১৫ নভেম্বর রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনপ্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে। প্রথম ধাপে দুই হাজার ২৬০ জন রোহিঙ্গাকে রাখাইন রাজ্যে প্রত্যাবাসন করা হবে।
রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন উদ্যোগে চীন ও ভারতের সমর্থন রয়েছে। তারা চায়, দ্রুত প্রত্যাবাসন শুরু হোক। ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার গত মঙ্গলবার নয়াদিল্লিতে ৬০ জনেরও বেশি বিদেশি কূটনীতিককে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন পরিকল্পনার কথা অবহিত করেন। তিনি রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও সম্মানজনক প্রত্যাবাসনের জন্য মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ অব্যাহত রাখার আহ্বানও জানান। রোহিঙ্গা সংকটকে ভয়াবহতম সংকটগুলোর একটি উল্লেখ করে হাইকমিশনার কূটনীতিকদের জানান, মিয়ানমারের সৃষ্টি করা এ সংকটের চাপ বহন করতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ অব্যাহত থাকলে এ সংকটের দীর্ঘমেয়াদি সমাধান সম্ভব হবে।
আন্তর্জাতিক মহল এখনো রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমার সরকারের আন্তরিকতা নিয়ে সন্দিহান। তাই এ প্রক্রিয়া স্থগিত করার জন্য বাংলাদেশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক দপ্তরের প্রধান মিশেল ব্ল্যাশেলেট। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জেনেভা থেকে এক বিবৃতিতে তিনি এ আহ্বান জানান। এর আগে সোমবার জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক হাইকমিশনার ফিলিপ্পো গ্র্যান্ডি বলেন, মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ফেরার মতো অনুকূল পরিবেশ এখনো সৃষ্টি হয়নি।
আন্তর্জাতিক মহলের উদ্বেগ। মিয়ানমার সরকার ও সেনাবাহিনীর আচরণে স্বস্তিদায়ক পরিবর্তন এখনো ঘটেনি। বাংলাদেশ এ বিষয়ে সম্যক অবহিত। তবু বাংলাদেশের তৎপরতায় এবং আন্তর্জাতিক মহলের চাপে তারা প্রত্যাবাসনপ্রক্রিয়া শুরু করতে সম্মত হয়েছে।