প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতার নতুন নীতিমালা হওয়ায় কানাইঘাটে ভাতাপ্রাপ্তরা সন্তষ্ট

কানাইঘাট থেকে সংবাদদাতা :
প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা প্রাপ্য উত্তরাধিকারগন সম্পর্কে পূর্বের নীতিমালা পরিবর্তন করে নতুন নীতিমালা সংশোধন হওয়ার পর মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতার টাকা বণ্টন নিয়ে দায়েরকৃত অনেক অভিযোগ কানাইঘাটে সম্পন্ন করা হচ্ছে। নতুন এ নীতিমালা কে মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারের উত্তরাধিকারীগণ স্বাগত জানিয়েছেন। নতুন নীতিমালা হওয়ায় মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারের কোন সদস্য ভাতা থেকে বঞ্চিত হবেন না বলে অনেক বীর মুক্তিযোদ্ধারা জানিয়েছেন। মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতার বণ্টনের টাকা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে তাদের পরিবারের উত্তরাধিকারগণের মধ্যে এক ধরনের বিরোধ চলে আসছিল। কানাইঘাট উপজেলা সমাজ সেবা কার্যালয়ে মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতার টাকার ভাগ বণ্টন থেকে বঞ্চিত হয়ে তাদের একাধিক স্ত্রী ও সন্তানরা বহু অভিযোগ দায়ের করেন। এ নিয়ে অনেক মৃত মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ভাতা সাময়িক ভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়। নতুন নীতিমালার মাধ্যমে গত বুধবার বেশ কয়েকটি অভিযোগের নিষ্পত্তি করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা অতিরিক্তি মোঃ নুরুল হক সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নজমুল হক, নুরুল হক, বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল হক, মাস্টার আনোয়ার হোসেন এখলাছুর রহমান, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন সহ আরো অনেকে। প্রসঙ্গত যে, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয় বীর মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুতে সম্মানী ভাতা প্রাপ্ত উত্তরাধিকার সম্পর্কে নীতিমালা সংশোধন করা হয়। নতুন নীতিমালা অনুযায়ী ভাতা ভোগী মুক্তিযোদ্ধা মৃত্যু বরণ করলে তার স্ত্রী বা স্ত্রীগন, স্বামীর সম্মানী ভাতা পাবেন। একজন মুক্তিযোদ্ধা একাধিক বিবাহে বন্ধনে আবদ্ধ হলে নি¤œ অনুসারে সম্মানী ভাতা বণ্টন হবে। ধারা-ক অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধারা একাধিক স্ত্রীর ক্ষেত্রে প্রত্যেক স্ত্রী মৃত মুক্তিযোদ্ধার প্রাপ্য নির্ধারিত ভাতা সমান হারে পাবেন। ধারা-খ একাধিক স্ত্রীর মধ্যে কোন স্ত্রী মৃত্যু বরণ করলে মৃত স্ত্রী গর্র্ভে মুক্তিযোদ্ধার ঔরষজাত সন্তান বা সন্তানগন তার মাতার প্রাপ্য অংশ সমান হারে পাবেন। ধারা-গ একাধিক স্ত্রীর মধ্যে কোন স্ত্রী তালাক প্রাপ্ত হইলে তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী জীবিত থাকলে ও এ সম্মানী ভাতা পাবেন না। তালাক প্রাপ্ত স্ত্রীর গর্ভে মুক্তিযোদ্ধা ঔরষজাত সন্তান বা সন্তানগন তার মাতার প্রাপ্ত অংশ সমহারে পাবেন। ধারা-ঘ মৃত স্ত্রী বা তালাক প্রাপ্ত স্ত্রীর গর্ভে মুক্তিযোদ্ধার ঔরষজাত কোন সন্তান না থাকলে একজন জীবিত স্ত্রী সম্পূর্ণ অংশ বা একাধিক জীবিত স্ত্রী সমহারে সম্মানী ভাতা পাবেন। ধারা-ঙ, মুক্তিযোদ্ধার পিতার বা মাতার যে কেউ জীবিত থাকলে মৃত স্ত্রীর বা তালাক প্রাপ্ত স্ত্রীর গর্ভে মুক্তিযোদ্ধার ঔরষজাত সন্তানগন এ সম্মানী ভাতা পাবেন না বলে নতুন নীতিমালায় আরো বেশ কিছু পূর্বের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করা হয়েছে। এখন থেকে মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা নতুন নীতিমালার আলোকে বাস্তবায়ন করা হবে এবং পূর্বের সিদ্ধান্ত বাতিল করা হবে বলে উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম জানিয়েছেন।