ইয়াবা ও গাঁজাসহ ১৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার :
সিলেট র‌্যাব-৯ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মনিরুামানের নেতৃত্বে র‌্যাব অভিযান চালিয়ে এক নারী মাদক ব্যবসায়ীসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। তবে র‌্যাবের অভিযানের আগেই দুটিস্থান থেকে ২ মাদক ব্যবসায়ী পালিয়ে যায়। এ সময় গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে র‌্যাব ৪৬১ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে। গতকাল শনিবার দুপুরে গ্রেফতারকৃতদেরকে পৃথক মাদক মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করেছে শাহপরাণ থানা পুলিশ। এরআগে শুক্রবার (১৭ আগস্ট) রাতে শাহপরাণ থানাধীন শিবগঞ্জ সবুজবাগ আবাসিক এলাকার ৩নং রোডস্থ ১৯ নং বাসা থেকে ৩৪৬ পিস ইয়াবাসহ ৩ পেশাদার মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে- বিমানবন্দর থানাধীন চন্দনটুলা এফএ-৪৩ নং বাসার জাহাঙ্গীর আলমের মেয়ে জেসমিন বেগম (২৫),বর্তমানে তিনি সবুজবাগ এলাকার ওই বাসায় বসবাস করে আসছেন। এসময় তার বাসা থেকে র‌্যাব শাহপরাণ থানাধীন বাউলটিলা এলাকার আব্দুর নূরের ছেলে খোকন আহমদ (৩৫) ও কুমারপাড়াস্থ ৫১ ঝর্ণারপাড় এলাকার আব্দুল জলিলের ছেলে দেলোয়ারকে (৩৫) গ্রেফতার করেছে। এদিকে র‌্যাবের অভিযান টেরপেয়ে শাহপরাণ থানাধীন লাল খাঁটুঙ্গী গ্রামের মৃত আহমদ কবীর চৌধুরীর ছেলে মাসুদ আহমদ চৌধুরী মিন্ট (৫০) পালিয়ে যায়। অপরদিকে, শুক্রবার (১৭ আগষ্ট) রাতে শাহপরাণ থানাধীন বিআইডিসি এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১১৫ পিস ইয়াবাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৯। কারাগারে প্রেরণকৃতরা হচ্ছে-শাহপরাণ থানাধীন গুচ্ছগ্রামের আনোয়ার হোসেন হান্নানের ছেলে জয়দল হোসেন (২৮) ও একই থানাধীন নিপবন আ/এ, রোড নং-৩ এর বাসিন্দা নুরু মিয়ার ছেলে সেলিম মিয়া (৪০)। এ সময় র‌্যাবের উপস্থিতি টেরপেয়ে হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর থানার আফজল পুর গ্রামের মৃত আমীর হোসেন আলী হোসেন (৪০)। বর্তমানে আলী শাহপরাণ থানাধীন টিকরপাড়া এলাকায় বসবাস করে আসছে।
এদিকে, নগরীর দক্ষিণ সুরমা ভার্থখলা মসজিদ মার্কেটের মাছ বাজার থেকে র‌্যাব-৯ এর একটি দল অভিযান চালিয়ে ৬৩ পুরিয়া গাঁজাসহ ৯ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে। গতকাল শনিবার দুপুরে দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ গ্রেফতারকৃতদেরকে মাদক মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করেছে। এর আগের শুক্রবার (১৭ আগষ্ট) রাতে র‌্যাব-৯ এএসপি নাহিদ হাসানের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। কারাগারে প্রেরণকৃতরা হচ্ছে- জকিগঞ্জের বনতেরাপুর গ্রামের আকিব আলীর ছেলে কবির আহমেদ (২৮), বালাগঞ্জের আলমদ্বীন আব্দুল বারীর ছেলে হারুন মিয়া (৩০), কমলগঞ্জের পালপুর গ্রামের মৃত হারিছ মিয়ার ছেলে তরিকুল ইসলাম (৩০), গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী থানার গোপালগঞ্জ গ্রামের মিজান শরীফের ছেলে সুমন শরীফ (২০), কানাইঘাটের বাঙ্গালীপাড়া গ্রামের মৃত মাসুদ আহমদের ছেলে জোনায়েদ আহমেদ (২০), বি-বাড়িয়া জেলার সরাইল থানার শাহাবাজপুর গ্রামের সিরাজ লস্করের ছেলে আবির লস্কর (২৯), আবির এমপি পরিবহন গাড়ীর হেলপার। এছাড়াও কারাগারে প্রেরণকৃতরা হচ্ছে-হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং থানার মহাউলিপুর গ্রামের আব্দুর রউফ মিয়ার ছেলে মঈনুল ইসলাম (২৮), জকিগঞ্জের গড়েরগ্রামের রকিব উদ্দিনের ছেলে সোহেল আহমেদ (৩০) এবং ময়মনসিংহের মহনগঞ্জ থানার গাকলাজোড় গ্রামের কাশেম মিয়ার ছেলে বিদ্দা ইসলাম (২৩)। আসামীরা দীর্ঘদিন থেকে সিলেটের দক্ষিণ সুরমা এলাকার বিভিন্ন কলোনীতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছে।