সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদের বিবৃতি ॥ শাহী ঈদগাহ খেলার মাঠে কোন পশুর হাট বসবে না

শাহী ঈদগাহস্থ সদর উপজেলা পরিষদের খেলার মাঠ নিয়ে অপপ্রচার এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন সদর উপজেলা পরিষদের একাধিক বারের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আশফাক আহমদ।
বুধবার (১৫ আগষ্ট) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বার্তায় তিনি বলেন, সদর উপজেলা মাঠটি বর্তমানে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম নামে নামকরণ করা হয়েছে। কিছু দিন থেকে একটি মহল চেয়ারম্যান আশফাকের উন্নয়ন কর্মকান্ডে ঈর্ষান্বিত হয়ে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে তিনি বিবৃতিতে উল্লেখ করেন। উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদের নাম ভাঙিয়ে কে বা কারা ষড়যন্ত্রমূলকভাবে পশুর হাট বসানোর পাঁয়তারা করছে। এর সাথে তাঁর কোন সম্পৃক্ততা নেই।
তিনি আরো বলেন, সিলেট সদর উপজেলা খেলার মাঠে মেলা বা পশুর হাট বসানোর বিপক্ষে সব সময় আমার অবস্থান। বর্তমানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের প্রচেষ্টায় এই খেলার মাঠ এখন শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে রূপান্তরিত হয়েছে। বর্তমানে মাঠের উন্নয়নমূলক কাজও চলছে। চেয়ারম্যান আশফাকসহ এলাকাবাসী এবং অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এই মাঠ তৈরি হয়েছে। এমন অবস্থায় চেয়ারম্যানের নাম ভাঙিয়ে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে কে বা কারা সেখানে পশুর হাট বসানোর পাঁয়তারায় লিপ্ত রয়েছে। এর সাথে আমার কোন সম্পৃক্ততা নেই। তাকে কলুষিত করতে একটি মহল সব সময় অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানান তিনি।
তিনি আরো বলেন, এবারের ঈদে খেলার মাঠে কোন পশুর হাট বসবে না।
বিবৃতিতে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, যারা আজ এই মাঠ নিয়ে মায়া কান্না দেখাচ্ছেন মূলত এখানে তাদের কোন অবদান নেই। খেলার মাঠটি কখনো ইজারা দেওয়া হয়নি। ইজারা না দেওয়ার পরেও স্বার্থান্বেষী এ মহল বলছে এখানে আমার কোটি কোটি টাকার বাণিজ্য হয়েছে। যা তাদের মনঘড়া কথা ছাড়া আর কিছু নয়।
সামনে জাতীয় নির্বাচন ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। এ নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই স্বাধীনতা পরাজিত শক্তি, বিরোধী অপশক্তিরা স্বার্থান্বেষী মহল উঠে পড়ে লেগেছে। আমি এই মিথ্যা বানোয়াট গুজব ছড়ানো তথ্যের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই। পাশাপাশি বিভ্রান্তমূলক গুজব ও অপতৎপরতা থেকে বিরত থাকতে সকল মহলের প্রতি আহ্বান জানান। বিজ্ঞপ্তি