বেপরোয়া পরিবহন শ্রমিকদের আইনের আওতায় আনতে হবে —————– ব্যারিস্টার আরশ আলী

গত ২৯ জুলাই রাজধানীতে রাস্তায় বাসচাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হলে এর প্রতিবাদে নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাজধানী ঢাকা সহ সারাদেশের বিভিন্ন স্থানে স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামে। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ন্যায্য এবং যৌক্তিক আন্দোলন থেকে রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে কিছু দুষ্কৃতিকারী ও অনুপ্রবেশকারীরা ঢুকে কোমলমতি ছাত্রদেরকে বিভ্রান্ত করছে। তাদেরকে চিহ্নিত করে শাস্তির আওতায় আনতে হবে।
গতকাল ৬ আগষ্ট সোমবার বিকাল ৫টায় তালতলাস্থ দলীয় কার্যালয়ে গণতন্ত্রী পার্টির সিলেট জেলা কমিটির সভাপতি মোঃ আরিফ মিয়ার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জুনেদুর রহমান চৌধুরী পরিচালনায় এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রবীণ রাজনীতিবিদ, গণতন্ত্রী পার্টির কেন্দ্রীয় সভাপতি ব্যারিস্টার মোহাম্মদ আরশ আলী উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। তিনি আরও বলেন, কোমলমতি ছাত্রদের ৯ দফা দাবির বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে বাস মালিক-শ্রমিকরা সারাদেশে অঘোষিত ধর্মঘট দিয়ে সব ধরনের বাস চলাচল বন্ধ রেখেছে। এমনকি ৯ দফার বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে শ্রমিক সংগঠনের নেতারা হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। ৯ দপা দাবি বাস্তবায়ন কিংবা সড়ক আইনে দুর্ঘটনায় চালকদের দায়ী করে মৃত্যুদন্ডের মতো বিধান রেখে আইন করা হলে সারাদেশ অচল করে দেয়া হবে। রাস্তায় কোন যান বাহন চলতে দেয়া হবেনা। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই। আমরা মনে করি সরকারের মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা কোন অপশক্তির এর পিছনে আছে। সরকারের ভাল অর্জনগুলোকে এই অপশক্তিই বার বার প্রশ্নবিদ্ধ করছে।
সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন গণতন্ত্রী পার্টির জেলা কমিটির সহ সভাতি বিপুল বিহারী দে, আব্দুল কুদ্দুস সরদার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গুলজার আহমদ, দপ্তর সম্পাদক আজিজুর রহমান খোকন, নাজিম উদ্দিন, শংকর ঘোষ, কিনু মিয়া, শাহ মোঃ নুরুল হুদা, দুলাল মিয়া প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি