শোকাহত আগষ্ট

কাজিরবাজার ডেস্ক :
বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা। একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশ, স্বাধীন পতাকা। পলাশীর আম্রকাননে স্বাধীনতার সূর্য অস্তমিত হওয়ার দীর্ঘ ২১৪ বছর পর ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলার স্বাধীনতার নতুন সূর্য উদিত হয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ও নির্দেশে দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে। কিন্তু স্বাধীন বাংলাদেশে মাত্র সাড়ে তিন বছরের মাথায় হত্যা করা হয় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। ঘাতকরা চেয়েছিল ইতিহাসের চাকাকে পিছনে ঘুরাতে। বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের বর্বরোচিত হত্যাকা-ের বিচার ঠেকাতে কুখ্যাত ইনডেমনিটি বিল পাস করা হয়। কিন্তু ষড়যন্ত্রকারীরা ইতিহাসের পাতা থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে পারেনি। বরং তারাই নিক্ষিপ্ত হয়েছে ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর খুনীরা আস্ফালন করে বলেছিল, পৃথিবীতে তাদের বিচার করার কারও সাধ্য নেই। কিন্তু নিয়তির নির্মম পরিহাস ৭৫’র ১৫ আগষ্টের ঘাতকদের বাংলার মাটিতে বিচারে ফাঁসি হয়েছে। অধিকাংশ খুনীকে ঝুলতে হয়েছে ফাঁসির রজ্জুতে।
বছর ঘুরে বাঙালির সামনে আবার এসেছে শোকাবহ আগস্ট। শোকের নানা অনুষ্ঠানে কৃতজ্ঞ জাতি শ্রদ্ধাবনত চিত্তে স্মরণ করছেন সেই বাংলাদেশ নামক দেশের স্বাপ্নিক স্থপতি হাজার বছরের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে । পুরো শোকের মাস বুকে কালোব্যাজ ধারণ করে, কালো পতাকা উত্তোলন এবং নানা অনুষ্ঠানে তীব্র ঘৃণা ও ধিক্কার জানাচ্ছে বঙ্গবন্ধুর খুনী নরপিশাচ একাত্তরের পরাজিত শত্রুদের।
দিন যতই এগুচ্ছে বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনীদের দেশে ফিরিয়ে এনে ফাঁসি কার্যকর এবং বঙ্গবন্ধুর খুনীদের মদদ দাতাদেরও বিচারের দাবি ততই তীব্র হচ্ছে। ঢাকাসহ সারাদেশে সাঁটানো পোস্টার, প্লাকার্ড, ব্যানার, ফেস্টুনেও শোভা পাচ্ছে এই একই দাবি। রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে শহর-নগর-বন্দরে কালো ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে, নানা অনুষ্ঠানে শ্রদ্ধা জানানো হচ্ছে জাতির জনককে। শোকাবহ আগষ্টের আজ চতুর্থ দিন।
পঁচাত্তরের পনেরই আগষ্ট কালরাতে ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে একে এক প্রাণ দিয়েছন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিনী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশুপুত্র শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি কামাল। পৃথিবীর এই ঘৃণ্যতম হত্যাকা- থেকে বাঁচতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর সহোদর শেখ নাসের, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, ভাগ্নে যুবনেতা ও সাংবাদিক শেখ ফজলুল হক মনি, তাঁর সহধর্মিনী আরজু মনি ও কর্নেল জামিলসহ পরিবারের ১৬ জন সদস্য ও আত্মীয়-স্বজন।
সেনাবাহিনীর কিছু সংখ্যক বিপদগামী সদস্য সপরিবারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর গোটা বিশ্বে নেমে আসে তীব্র শোকের ছায়া এবং ছড়িয়ে পড়ে ঘৃণার বিষবাষ্প। দীর্ঘদিন পরে হলেও শত ষড়যন্ত্র ও বাধা ডিঙ্গিয়ে বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচার ও খুনীদের ফাঁসির রায় কার্যকরের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশের ললাটে লেখা কলঙ্কের হাত থেকে দেশবাসীকে মুক্তি দেন বঙ্গবন্ধুরই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।