সাকিব-মুস্তাফিজ টেস্ট খেলতে চায় না ——————- বিসিবি সভাপতি

ক্রীড়াঙ্গন রিপোর্ট :
মাত্র সাত মাস আগেই সাকিব আল হাসানকে টেস্টের নেতৃত্বে ফিরিয়েছিল বিসিবি। কিন্তু বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান এখন বলছেন, সাকিব টেস্ট ক্রিকেট খেলতে চান না। তার দাবি, সাদা পোশাকে দেশকে প্রতিনিধিত্ব করার ইচ্ছা নেই মুস্তাফিজুর রহমানেরও।
ওয়েস্ট ইন্ডিজে টেস্ট সিরিজে বাংলাদেশ দলের বিপর্যয় নিয়ে শুক্রবার সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন বিসিবি সভাপতি। টেস্ট ক্রিকেট নিয়ে পুরো ক্রিকেট বিশ্বের দৃষ্টিভঙ্গির কথা যেমন বললেন, তেমনি দাবি করলেন, বাংলাদেশের সিনিয়র ক্রিকেটারদের অনেকে টেস্ট ক্রিকেটে আগ্রহী নয়।
“আইসিসিতে আমি দেখেছি, ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া ছাড়া অন্য দেশগুলোর আমি টেস্ট খেলার প্রতি আগ্রহই দেখিনি। বোর্ড হিসেবেই তারা আগ্রহী না। পাশাপাশি ব্রডকাস্টাররাও আগ্রহী নয়। তারা বলে টেস্টে দর্শক হয় না। এটা একটা ইস্যু।”
“তবে আমাদের দেশে এখন দেখছি, বেশ কিছু সিনিয়র ক্রিকেটার, তারাও টেস্ট খেলতে চাচ্ছে না। চাচ্ছে না বলতে আমি বলছি যেমন সাকিব, টেস্ট খেলতে চায় না। মুস্তাফিজও টেস্ট খেলতে চায় না। ও বলে না যে খেলতে চায় না, চায় একটু এড়িয়ে চলতে। হতে পারে ও ইনজুরি প্রবণ বেশি, টেস্ট খেলতে গিয়ে আবার ইনজুরিতে পড়বে, হতে পারে এ কারণে।”
বিসিবি সভাপতির তাই ইচ্ছে, ভিন্ন সংস্করণে বাংলাদেশের ভিন্ন ভিন্ন দল গড়া ও তরুণ প্রজন্মকে টেস্ট ক্রিকেটে নিয়ে আসা।
“এখন অনেকেই টেস্ট খেলতে চায় না। টেস্ট তো একটু কঠিন। রুবেল অনেক অভিজ্ঞ। অনেক দিন ধরে আমাদের সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছে। ওর জন্যও টেস্ট একটু কঠিন হয়ে যাচ্ছে। তরুণ প্রজন্ম থেকে ক্রিকেটার নিয়ে আসতে হবে।”
“টেস্টের জন্য আমাদের নতুন দল গড়তে হবে। পারলে টি-টোয়েন্টিতেও। হয়ত তিন-চারজন কমন থাকবে। সব দেশ এখন তাই করে। সবারই স্পেশালিস্ট টি-টোয়েন্টি ও টেস্ট ক্রিকেটার আছে।”
ওয়েস্ট ইন্ডিজে টেস্ট সিরিজে বাজে পারফরম্যান্সের পেছনে প্রতিকূল ও কন্ডিশন বড় একটা কারণ বলে মনে করছেন নাজমুল হাসান। দেশের উইকেটগুলো বদলে দেওয়ার সেই পুরোনো প্রতিশ্রুতি আবার শোনা গেল তার কণ্ঠে।
“এইবার যাওয়ার আগেই ওরকম একটা পিচ বানানোর চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু বানানোই যাচ্ছে না। দেখতে হবে, কি করলে ওরকম পিচ বানানো যায়। বাইরে থেকে মাটি আনা যায় কিনা, সেটি নিয়ে আলোচনা করছি। নতুন যে কিউরেটর এনেছি, তাদের সঙ্গে কথাবার্তা চলছে।”
“আমাদের ওই ধরনের পিচ করা লাগবে, উপায় নেই। কারণ গত চার বছরে দেশে আর উপমহাদেশেই বেশি খেলেছি। এখন বাইরে যাওয়া লাগবে। ঘরোয়া ক্রিকেটেও এরকম পিচ করতে হবে।”