আফসোসের হারে হোয়াইটওয়াশের লজ্জা

স্পোর্টস ডেস্ক :
শেষমেশ আফগানিস্তানের বিপক্ষে হোয়াইটওয়াশই হলো বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার জিততে পারলে অন্তত একটি জয়ের স্বাদ নিয়ে দেশে ফিরতে পারতো টাইগাররা। কিন্তু সেটি হলো না। আফসোসের হারে হোয়াইটওয়াশ হয়েই সিরিজ শেষ করল বাংলাদেশ। আফগানিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের শেষ ম্যাচে এদিন বাংলাদেশ হারল এক রানে। সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৪৫ রানে ও দ্বিতীয় ম্যাচে ছয় উইকেটে হেরেছিল বাংলাদেশ।
দেরাদুনে আফগানিস্তানের দেয়া ১৪৬ রানের জয়ের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ছয় উইকেট হারিয়ে ১৪৪ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। দলের পক্ষে মুশফিকুর রহিম ৪৬ ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৪৫ রান করেন। আফগানিস্তানের পক্ষে মুজিব উর রহমান ১টি, করিম জানাত ১টি ও রশীদ খান ১টি করে উইকেট শিকার করেন।
ম্যাচে জয়ের জন্য শেষ দুই ওভারে বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ৩০ রান। করিম জানাতের করা ১৯তম ওভার থেকে ২১ রান নেন মুশফিক। প্রথম প্রথম পাঁচ বলে পাঁচটি চার মারেন মুশফিক। শেষ ওভারে জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল নয় রান। এই ওভারে বোলিংয়ের দায়িত্বে ছিলেন রশীদ খান। ওভারের প্রথম বলেই মুশফিকুর রহিম আউট হয়ে যান। নাজিবউল্লাহ জাদরানের হাতে ক্যাচ হন তিনি। পরের বল থেকে এক রান নেন মাহমদুউল্লাহ রিয়াদ। তৃতীয় বল থেকে দুই রান নেন আরিফুল হক। চতুর্থ বল থেকে এক রান নেন তিনি। পঞ্চম বল থেকে এক রান নেন রিয়াদ। শেষ বলে আরিফুল হক উড়িয়ে মারেন। বলটি চার হতে পারতো। কিন্তু সীমানা দড়ির কাছ থেকে বাতাসে ভেসে বলটিকে বাউন্ডারি হতে দেননি শফিকুল্লাহ। এই বল থেকে আরিফুল হক ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ সফলতার সাথে দুইবার প্রান্ত পরিবর্তন করেন। তৃতীয় রান নিতে গিয়ে রান আউট হয়ে যান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। যার ফলে এক রানের কষ্টের পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় বাংলাদেশকে।
বাংলাদেশের প্রথম উইকেটের পতন হয় ইনিংসের তৃতীয় ওভারে। মুজিব উর রহমানের বলে ডারউইশ রাসুলির হাতে ধরা পড়েন তামিম ইকবাল। ছয় বল খেলে ৫ রান করেন তিনি। এরপর একই ওভারে রান আউট হয়ে ফিরে যান সৌম্য সরকার ও লিটন দাস। মোহাম্মদ নবীর করা ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারের দ্বিতীয় বলে রান আউট হন সৌম্য সরকার। ১৩ বল খেলে ১৫ রান করেন তিনি। আর পঞ্চম বলে রান আউট হন লিটন দাস। ১৪ বল খেলে ১২ রান করেন তিনি। নবম ওভারে করিম জানাতের বলে সামিউল্লাহ শেনওয়ারির হাতে ক্যাচ হন সাকিব আল হাসান। নয় বল খেলে ১০ রান করেন তিনি। এরপর ৮৪ রানের পার্টনারশিপ গড়েন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিম। রশীদ খানের করা ইনিংসের শেষ ওভারের প্রথম বলে নাজিবউল্লাহ জাদরানের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান মুশফিকুর রহিম।
এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ছয় উইকেট হারিয়ে ১৪৫ রান সংগ্রহ করে আফগানিস্তান। দলের পক্ষে মোহাম্মদ শাহজাদ ২৬, আসঘার স্টানিকজাই ২৭ ও সামিউল্লাহ শেনওয়ারি ৩৩ রান করেন।
বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে সাকিব আল হাসান চার ওভার বল করে ১৬ রান দিয়ে একটি উইকেট শিকার করেন। চার ওভার বল করে ১৮ রান দিয়ে দুইটি উইকেট শিকার করেন নাজমুল ইসলাম অপু। এছাড়া আবু জায়েদ রাহি ২টি ও আরিফুল হক ১টি করে উইকেট শিকার করেন।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
ফল: এক রানে জয়ী আফগানিস্তান।
আফগানিস্তান ইনিংস: ১৪৫/৬ (২০ ওভার)
(মোহাম্মদ শাহজাদ ২৬, উসমান ঘানি ১৯, আসঘার স্টানিকজাই ২৭, সামিউল্লাহ শেনওয়ারি ৩৩*, মোহাম্মদ নবী ৩, নাজিবউল্লাহ জাদরান ১৫, শফিকুল্লাহ ৪, রশীদ খান ১*; মেহেদী হাসান মিরাজ ০/২৭, নাজমুল ইসলাম অপু ২/১৮, সাকিব আল হাসান ১/১৬, আবু হায়দার রনি ০/৩১, সৌম্য সরকার ০/৮, আবু জায়েদ রাহি ২/২৭, আরিফুল হক ১/১৩)।
বাংলাদেশ ইনিংস: ১৪৪/৬ (২০ ওভার)
(লিটন দাস ১২, তামিম ইকবাল ৫, সৌম্য সরকার ১৫, মুশফিকুর রহিম ৪৬, সাকিব আল হাসান ১০, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৪৫, আরিফুল হক ৫*; মুজিব উর রহমান ১/২৫, আফতাব আলম ০/২৮, মোহাম্মদ নবী ০/২০, করিম জানাত ১/৪৪, রশীদ খান ১/২৪)।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ: মুশফিকুর রহিম (বাংলাদেশ)।