আদালতপাড়া থেকে হাতকড়া পরা ডাকাতি মামলার আসামীর পলায়ন ॥ তদন্ত কমিটি গঠন ॥ ২ পুলিশ প্রত্যাহার

স্টাফ রিপোর্টার :
আদালতপাড়া থেকে পুলিশের পরানো হাতকড়া ফসকে আলামিন ওরফে রুহেল আমিন (২০) নামের একাধিক ডাকাতি মামলার এক আসামি পালিয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। আসামি আল আমিন সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার বাগেরগাছা গ্রামের শফিউল আলম সুমনের পুত্র। এদিকে এ ঘটনায় ৫ সদস্যবিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং ২ পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।
আদালত সূত্রে জানা যায়, শাহপরান থানার একটি ডাকাতি মামলায় (নং-১৯ (১১) ১৫/ পরবর্তী দায়রা ৩৪৮/১৭) গতকাল মঙ্গলবার সকালে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জননিরাপত্তা ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয় আসামি আলামিন ও বাবুলকে। ট্রাইব্যুনালে হাজিরা শেষে হাতকড়া পরিয়ে তাদের হেঁটে হেঁটে কাস্টডিতে নিয়ে রওয়ানা হয় পুলিশ। পথিমধ্যে আদালতের জনাকীর্ণ স্থানে হাতকড়া রেখে পালিয়ে যায় আলামিন। আসামি পলায়নের ঘটনায় আদালত পুলিশের মধ্যে তুলকালামা সৃষ্টি হয়। পুলিশ তাৎক্ষণিক আসামিকে ধাওয়া করেও ধরতে ব্যর্থ হয়।
সিলেট আদালতের কোর্ট পরিদর্শক (ওসি) আবুল হাশেম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, হাতকড়া ডিলা থাকার কারণে ডাকাতি মামলার ওই আসামি পালিয়ে যায়। তার বিরুদ্ধেবিশ্বনাথ ও শাহপরান থানায় ৪টি ডাকাতি মামলা রয়েছে। তিনি বলেন, এ ঘটনায় মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার প্রণব কুমার রায়কে প্রধান করে ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এরই মধ্যে কর্তব্য অবহেলার কারণে আদালতের কাস্টডিতে কর্তব্যরত পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে। এরপর দু’জনকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনন্সে সংযুক্ত করা হয়েছে। তবে তাদের নাম দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি।
এ ব্যাপাওে যোগাযোগ করা হলে মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) মুহম্মদ আব্দুল ওয়াহাব বলেন, ঘটনাটি জানতে কোর্টে কর্তব্যরতদের একাধিকবার ফোন দিয়েছি। কিন্তু কেউ ফোন না ধরায় তিনি এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাতে পারেননি। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত পলাতক আসামিকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রাখা হয়েছে বলেও জানান পুলিশের কর্মকর্তারা।