কালিবাড়িতে বাসায় আগুন দিয়ে এক ব্যক্তির অবস্থান, উদ্ধার করতে গিয়ে হামলায় পুলিশ সহ আহত ৩

স্টাফ রিপোর্টার :
নগরীর মদিনা মার্কেট সংলগ্ন কালিবাড়ি এলাকার একটি বাসায় আগুন লাগিয়ে দিয়ে দা হাতে নিয়ে বাসাটির ভেতরে অবস্থান করা এক ব্যক্তিকে আড়াই ঘন্টা চেষ্টার পর উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল বুধবার দুপুর ১২টার দিকে বাসায় আগুন লাগিয়ে দেন ওই ব্যক্তি। নেহার নীড় নামক বাসাটির ভেতরে থাকা ওই ব্যক্তির নাম দিলু মিয়া (২২)।
খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুলিশ ও ফায়ার ব্রিগেডের কর্মীরা। তারা প্রায় আড়াই ঘন্টা ধরে ওই ব্যক্তিকে বাসার ভেতর থেকে বের করে আনার চেষ্টা করেন। কিন্তু কেউ ভেতরে যেতে চাইলেই তাকে দা নিয়ে তাড়া করছিলেন দিলু মিয়া। অবশেষে দুপুর আড়াইটায় দিলু মিয়াকে বাসা থেকে বের করে আনা সম্ভব হয়।
স্থানীয় সাজ্জাদ হাসাইন জানান, দিলু মিয়া মানসিকভাবে অসুস্থ। এ কারণেই তিনি এমন ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারেন। তিনি আরোও জানান, দিলু মিয়া গত ৩ দিন ধরে ঘর থেকে বের হননি। গতকাল বুধবার সকাল থেকেই তিনি ঘরের ভেতর থেকে চিৎকার করছেন, মানুষকে মারার হুমকি দিচ্ছেন।
অন্য একটি সূত্র জানায়, বুধবার দুপুর সোয়া ১ টার দিকে মদীনা মার্কেট কালিবাড়ি এলাকার কনাই মিয়ার পুত্র মানসিক রোগী দিলু মিয়া তরকারি কাটার দা নিয়ে তার পরিবারের সদস্যদের হামলা করে। এতে তার ভাই সুমনের মাথায় কোপ দিলে তিনি মারাত্মক আহত হন। তাকে সামাল দেওয়ার চেষ্টা করলে নোয়াপাড়ার ফয়জুল হক নামের আরো এক ব্যক্তিও আহত হন। জালালাবাদ থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে তাকে আটক করার চেষ্টা করলে দিলু তাদের উপরও হামলা চালায়। তার হামলায় এএসআই দেবাংশুও আহত হন। পরে দিলু তরকারি কাটার দা নিয়ে নিজ বসত ঘরে প্রবেশ করে আগুন লাগিয়ে দেয়। ৩ ঘন্টা পর পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। এবং মানসিক ভারসাম্যহীন দিলু মিয়াকে উদ্ধার করে জালালাবাদ থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। জালালাবাদ থানা পুলিশ সদস্যরা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
দিলু মিয়াকে উদ্ধারের পর সিলেটের ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র কর্মকর্তা শিমুল মোহাম্মদ রফি বলেন, দিলু মিয়াকে উদ্ধার করা হয়েছে। আমরা জালালাবাদ থানার ওসির কাছে দিলু মিয়াকে হস্তান্তর করি।