মাদক নিয়ন্ত্রণের বিকল্প নেই

মাদক নিয়ে সমাজ ভীষণ উদ্বিগ্ন। সরকারের উদ্বেগও কম নয়। কিন্তু সরকারের উদ্বেগ যদি যথাযথ হতো, তাহলে এত দিনে এ সমস্যার সম্পূর্ণ সমাধান না হলেও উদ্বেগের অবসান ঘটত। কোথাও কোনো ঘাটতি নিশ্চয়ই রয়েছে। ফলে গণমাধ্যমের প্রতিবেদন, সেমিনার-আলোচনা, প্রতিরোধমূলক সাংস্কৃতিক প্রচারণা, সামাজিক উন্নয়ন-প্রতিষ্ঠানের সুপারিশ এবং পুলিশ ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অভিযানের পরও মাদকের বিস্তৃতি বাড়ছে। সমাজের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা আরো বাড়ছে। জনমনে প্রশ্ন দেখা দিচ্ছে।
সব দেশেই কিছু দ্রব্য ‘নেশার উপকরণ’ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। সবই ‘মাদক বা ড্রাগ’ হিসেবে চিহ্নিত নয়, যদিও বয়স-গোষ্ঠীভেদে এসবের ব্যবহারে সতর্কতার নীতি মান্য করা হয়। বয়ঃক্রমিক বিধিনিষেধও থাকে। নীতি-বিধি না মানলে নিন্দা-সমালোচনার মুখে পড়তে হয়। ব্যবহারে ব্যভিচারের বিষয়টি বহুকাল সমাজই সামাল দিয়েছে; পরিবারও শাসন করেছে। রাষ্ট্রের এ বিষয়ে খুব বেশি মনোযোগী হওয়ার প্রয়োজন পড়ত না। সত্য কথা হলো, ১৯৬০ সালের আগে ‘ড্রাগ এবিউজ’ কথাটি সেভাবে চালু ছিল না। মার্কিন সমাজে ‘মাদকাসক্তি বিষয়ে উদ্বেগ’-এর শুরু তখন থেকে। এর পর থেকে মাদক সমস্যা মোকাবেলায় সরকারের সংশ্লিষ্টতা বাড়তে থাকে। বর্তমান বিশ্বের সব দেশের জন্যই এটি সমস্যা কারো কম, কারো বেশি। মাদক সমস্যা সমাধানের উপায় খোঁজার ক্ষেত্রে এ পরিপ্রেক্ষিত বিবেচনায় রাখা জরুরি।
মাদক নিয়ে যে ভয়াবহতার কথা আমরা বলছি, তার সূচনা গত শতকের আশির দশকের গোড়ার দিকে। একে একে আমাদের সমাজে অনুপ্রবেশ করল হেরোইন, কোকেন ও ফেনসিডিল। নব্বইয়ের দশকের মাঝামাঝি অনুপ্রবেশ করল ইয়াবা। হালের ফ্যাশন সিসা। এসবের সঙ্গে আবার আভিজাত্য ও স্মার্টনেস যুক্ত হয়ে পড়েছে। প্রায় ৫০ হাজার ব্যক্তি অধিকাংশই তরুণ-যুবক, সিসায় আসক্ত। শুরুতে উচ্চবিত্ত ঘরের তরুণ-তরুণীরা এর ভোক্তা ছিল। এখন তা মোটামুটি সর্বব্যাপ্ত।
কেন মাদকদ্রব্যের বিস্তৃতি ও বৈচিত্র্য বাড়ছে এবং কোন বাস্তবতায় এসব ‘এবিউজ’-এর তালিকার অন্তর্ভুক্ত হয়েছে, সেসব যদি বিবেচনায় না নেওয়া হয়, তাহলে মাদক সমস্যার সমাধান সম্ভব হবে না। সমাজ হাহাকার করবে, রাষ্ট্র বা তার অধীন সংস্থা সক্রিয়তার পরাকাষ্ঠা দেখাবে, কিন্তু কাজের কাজ হবে না; বরং মাদকের বিস্তার ও বৈচিত্র্য আরো বাড়বে। গত প্রায় সাড়ে তিন দশকের অভিজ্ঞতা সে কথাই বলে। ইতিহাস-সমাজ-সংস্কৃতি বিবেচনায় না নিলে, সংশ্লিষ্ট সংস্থার (বিশেষ করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর) কাঠামোতে ও আভিযানিক সক্ষমতায় পরিবর্তন না ঘটালে মাদক সমস্যার কার্যকর সমাধান মিলবে না। পরিপ্রেক্ষিতহীন প্রশিক্ষণে তাদের বা পুলিশের সদস্যদের মনে কার্যকরী পরিবর্তন আসবে না। তাই সরকারকে আগাপাছতলা ভেবে নীতি প্রণয়ন করতে হবে। নির্মূলের আগে নিরাময়ে মনোনিবেশ করতে হবে। আর সমাজকে রক্ষণশীলতার দৃষ্টিতে নয়, মুশকিল আসানের দৃষ্টিতে সমস্যাটিকে দেখতে হবে।