প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য সেবা

সরকার দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের, বিশেষ করে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে সচেষ্ট। যদিও সরকারি চিকিৎসাসেবা এখনো গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর প্রয়োজনের তুলনায় নগণ্য।
চিকিৎসকরা গ্রামাঞ্চলে থাকতে চান না। পদায়ন হলেও নানা অজুহাতে অনেকে শহরে চলে আসেন। অনেক উপজেলায়ই আধুনিক চিকিৎসাসুবিধা নেই বললেই চলে। যেসব স্বাস্থ্যকেন্দ্রে আধুনিক যন্ত্রপাতি রহস্যজনক কারণে নষ্ট হয়ে থাকে। ফলে ব্যবহার করা যায় না। চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের ছুটতে হয় জেলা সদরে বা কোনো বেসরকারি ক্লিনিকে।
জনগোষ্ঠীর চিকিৎসাসেবার দৈন্যদশাই ফুটে উঠেছে। সারা দেশে ৩৫০টি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অধিকাংশ অপারেশন থিয়েটারই নির্মাণের পর থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে। এসব অবকাঠামোর একেকটি বসাতে ব্যয় হয়েছে প্রায় দেড় কোটি টাকা।
পরে সংযুক্ত হয়েছে আরো লাখ লাখ টাকার যন্ত্রপাতি। কিন্তু পর্যাপ্ত শল্যবিদ ও অজ্ঞানবিদ না থাকার কারণে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা মিলছে না রোগীদের। নেত্রকোনা জেলার ১০ উপজেলার মধ্যে সাতটিতে অপারেশন থিয়েটার কমপ্লেক্স আছে। কিন্তু চালু করা যায়নি জনবলের অভাবে। কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আধুনিক নকশার সুপরিসর অপারেশন থিয়েটার কমপ্লেক্স আছে; কিন্তু নেই প্রয়োজনীয় জনবল। ফলে সেখানেও ব্যাহত হচ্ছে চিকিৎসাসেবা। রোগীদের যেতে হচ্ছে জেলা সদরে। জনবলের অভাবে সক্রিয় করা যায়নি নেত্রকোনার মদন উপজেলা হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটার। চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া ও হাটহাজারী উপজেলা হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারেরও একই অবস্থা। গাইবান্ধার তিনটি অপারেশন থিয়েটার কমপ্লেক্স চালু করা সম্ভব হয়নি।
অপারেশন থিয়েটার থাকার পরও কেন তা চালু করা যাবে না, কেন প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কাছে পর্যাপ্ত সেবা পৌঁছানো সম্ভব হবে না, তার কারণ খুঁজে বের করা দরকার। কিছু প্রশ্নের উত্তর খোঁজা আবশ্যক। দেশে কি শল্যবিদ ও অজ্ঞানবিদের এতই অভাব পড়ে গেছে যে তাদের অভাবে উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রের অপারেশন থিয়েটার চালু করা সম্ভব হচ্ছে না? নাকি সঠিক পরিকল্পনার অভাবেই প্রয়োজনীয় সেবা দেওয়া যাচ্ছে না? দেশে সরকারি হাসপাতালের সংখ্যা কত তা সরকারের জানা আছে। এসব হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রের মাধ্যমে কোথায় কত জনবল লাগতে পারে তার হিসাব করাও খুব কঠিন নয়। মাঠপর্যায়ে প্রয়োজনীয়সংখ্যক সার্জন ও অ্যানেসথেসিয়ালজিস্ট তৈরি না করেই এসব হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটার নির্মাণ করা হয়েছিল? তাতে কি কোনো বিশেষ গোষ্ঠীর ব্যবসায়িক স্বার্থ উদ্ধার হয়েছে? অপারেশন থিয়েটার নির্মাণ ও প্রয়োজনীয় আধুনিক যন্ত্রপাতি সংস্থাপনের পরও কেন তা পড়ে থাকবে? সঠিকভাবে ব্যবহার না হলে এসব অবকাঠামো ও যন্ত্রপাতি তো রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে নষ্ট হয়ে যাবে। শুধু অবকাঠামো তৈরি করলেই হবে না, প্রয়োজনীয় জনবলের বিষয়টিও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে খেয়াল রাখতে কবে। প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিতে হবে।