সুনামগঞ্জ থেকে দূরপাল্লার যাত্রীবাহী বাসের ছাদে ঝুঁকি নিয়ে মালামাল বহন

ছাতক থেকে সংবাদদাতা :
সুনামগঞ্জ-ছাতক, দিরাই থেকে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যাত্রীবাহী বাসের ছাদে মালামাল বহন বন্ধ হচ্ছে না। অতিরিক্ত ফায়দা হাসিলের লক্ষ্যে আইন অমান্য করে এসব পরিবহন প্রত্যহ মালামাল বহন করে যাচ্ছে। এতে একদিকে যাত্রী সাধারণ ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন এবং অপর দিকে সড়কে দুর্ঘটনায় মারাত্মক ঝুঁকি বাড়ছে।
জানা যায়, সুনামগঞ্জ ও ছাতক থেকে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে শ্যামলী, এনা, মামুন, একতা, নুর, লিমন, রূপসী বাংলা, বিশাল, নাছিরাবাদ, তায়েফ, বিলাস, বিএম, শাকিন, একতা, সুনামগঞ্জ এক্সপ্রেস, আল-শামীম, এসকে, এনপিসহ যাত্রীবাহী বাস রয়েছে প্রায় ৬০টি। জেলা-উপজেলা শহরসহ বিভিন্ন পয়েন্টে এসব বাসের কাউন্টার রয়েছে প্রায় ২০টি। ১৭ অক্টোবর ঢাকা অফিসে অনুষ্ঠিত আঞ্চলিক পরিবহন কমিটি (আরটিসি)এর ১নং সিদ্ধান্ত অনুযায়ি যাত্রীবাহী কোন বাসের ছাদে মালামাল বহন করা যাবেনা এবং যে সমস্ত যাত্রীবাহী বাস আইন অমান্য করে ছাদে মালামাল বহন করবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা উল্লেখ থাকলেও কেউ মানছে না এ সিদ্ধান্ত। অতিরিক্ত ফায়দা হাসিলের লক্ষ্যে অত্যন্ত ঝুঁিক নিয়ে প্রত্যহ যাত্রীর সাথে মালামাল বহন করা হচ্ছে। এতে যাত্রী সাধারণের ভোগান্তির পাশাপাশি সড়কে দুর্ঘটনার ঝুঁকি মারাত্মক ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এদিকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে ২১ নভেম্বর বাংলাদেশ রোর্ড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি সুনামগঞ্জ সার্কেলের সহকারি পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মো. ডালিম উদ্দিন স্বাক্ষরিত এক লিপির অনুলিপি জেলা প্রশাসক সুনামগঞ্জ, পুলিশ সুপার সুনামগঞ্জ, উপ-পরিচালক (ইঞ্জি:), বিএরটিএ, সিলেট বিভাগ, সিলেট এবং বাস সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরণ করা হয়েছে।