কানাইঘাটে পরগনার ইস্যুকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট ঘটনা নিষ্পত্তির লক্ষ্যে বৈঠক

কানাইঘাট থেকে সংবাদদাতা :
পরগনা ইস্যুকে কেন্দ্র করে কানাইঘাট বাজেরাজ, চাউরা, সাতবাঁক ও চতুল পরগনা বাসীর মধ্যে সৃষ্ট বিরোধ শান্তিপূর্ণ ভাবে নিষ্পত্তির লক্ষ্যে উভয় পক্ষকে নিয়ে কানাইঘাট থানায় পৃথক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার পৃথকভাবে থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আহাদ ও ওসি (তদন্ত) মোঃ নুনু মিয়ার উপস্থিতিতে উভয় পক্ষকে নিয়ে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, ঘটনার শান্তিপূর্ণ নিষ্পত্তির মধ্যস্থতাকারী জেলা আ’লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সাতবাঁক ইউপি চেয়ারম্যান মস্তাক আহমদ পলাশ, লক্ষ্মীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপি চেয়ারম্যান জেমস্ লিও ফারগুসন নানকা, বাণীগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ আহমদ, সাবেক চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ চৌধুরী, রিংকু চক্রবর্তী, আব্দুল লতিফ, খলিলুর রহমান, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন। বাজেরাজ, চাউরা ও সাতবাঁক পরগনার মুরব্বীয়ানদের মধ্যে ১৭ পরগনার সালিশ ব্যক্তিত্ব বাজেরাজ পরগনার মুরব্বী অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম, জামাল উদ্দিন, মাওঃ সামছুল হুদা, আলা উদ্দিন মামুন, রফিক আহমদ, কাউন্সিলর শরিফুল হক, ইসলাম উদ্দিন, চতুল পরগনাবাসীর পক্ষে বড়চতুল ইউপি চেয়ারম্যান মাওঃ আবুল হোসেন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মুবশি^র আলী চাচাই, প্রবীণ মুরব্বী হাজী আব্দুল হেকিম, সালমান রশিদ, ইসলাম উদ্দিন মেম্বার, মুহিবুর রহমান। পৃথক বৈঠক চলাকালে উভয় পক্ষের মুরব্বীয়ানদের গুরুত্বপূর্ণ সালিশি বক্তব্য লিপিবদ্ধ করা হয়। বৈঠক চলাকালে থানার ওসি আব্দুল আহাদ বলেন, যে কোন ধরনের অনাকাংখিত ঘটনা শান্তিপূর্ণ উপায়ে নিষ্পত্তি করা সবার জন্য মঙ্গলজনক। পরগনা নিয়ে কোন ধরনের ইস্যু সৃষ্টি না করে কিভাবে উভয় পক্ষের বিরোধের সমূহ ঘটনা পর্যালোচনা করার পাশাপাশি দায়ী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে ভবিষ্যতে যাতে করে কোন মহল এলাকায় কোন ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে এজন্য সবাইকে নিয়ে বিষয়টি নিষ্পত্তি করা হবে।