কানাইঘাট চতুল-বাজেরাজ ও চাউরা পরগনার সৃষ্ট বিরোধ নিষ্পত্তির লক্ষ্যে থানায় বৈঠক

কানাইঘাট থেকে সংবাদদাতা :
দলীয় কিছু নেতাকর্মীদের হাতে গত ১৯ অক্টোবর কানাইঘাট উত্তর বাজারস্থ আ’লীগের অস্থায়ী কার্যালয়ে বড়চতুল ইউপি আ’লীগের সভাপতি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মুবশি^র আলী চাচাই আক্রান্তের ঘটনার প্রতিবাদে চতুল পরগনাবাসীর উদ্যোগে ২০ অক্টোবর শুক্রবার ৯ পরগনার কানাইঘাট বাজারে সশস্ত্র লাঠি মিছিলের ঘটনায় পাল্টা কানাইঘাট বাজেরাজ, চাউরা ও সাতবাঁক পরগনাবাসীর মধ্যে তীব্র উত্তেজনার সৃষ্টি হলে সৃষ্ট ঘটনাটি নিরসনের জন্য ফালজুর পরগনার মুরব্বী ও জনপ্রতিনিধিরা উদ্যোগ গ্রহণ করেন। এ নিয়ে উভয় পক্ষের সৃষ্ট বিরোধ নিষ্পত্তির লক্ষ্যে মধ্যস্থতাকারী মুরব্বীয়ানরা সোমবার কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জের কার্যালয়ে এক বৈঠকে মিলিত হন। সভায় উপস্থিত ছিলেন থানার ওসি আব্দুল আহাদ, ঘটনার মধ্যস্থতাকারী মুরব্বীয়ানদের পক্ষে সাতবাঁক ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ মস্তাক আহমদ পলাশ, লক্ষ্মীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপি চেয়ারম্যান জেমস্ লিও ফারগুসন নানকা, থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ নুনু মিয়া, সাবেক চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ চৌধুরী, শ্রী রিংকু চক্রবর্তী, বিশিষ্ট মুরব্বী আব্দুল লতিফ, পৌর আ’লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক খলিলুর রহমান, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন। বৈঠকে উভয় পক্ষের ৫ জন করে ১০ জনের একটি নামের তালিকা মধ্যস্থতাকারী মুরব্বীয়ানরা থানার ওসি আব্দুল আহাদের কাছে হস্তান্তর করেন। সভায় শান্তিপূর্ণ উপায়ে সৃষ্ট বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য আগামী ৬ নভেম্বর সোমবার সকাল ১১টায় প্রথমে কানাইঘাট বাজেরাজ ও চাউরা পরগনার মুরব্বী এবং ঐদিন বিকেল ৩টায় চতুল পরগনার মুরব্বীয়ানদের সাথে থানার অফিসার ইনচার্জের কার্যালয়ে ওসি আব্দুল আহাদের নেতৃত্বে মধ্যস্থতাকারী মুরব্বীয়ানরা বৈঠকে বসবেন বলে সিন্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।