ছোট ভাইকে জিম্মি করে চোখের সামনে বড় ভাইকে খুন, প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ, জড়িতদের গ্রেফতার দাবী

স্টাফ রিপোর্টার :
বন্দরবাজার থেকে ছোট ভাইকে তোলে নিয়ে জিম্মি করে রেখে বড় ভাই ছাত্রলীগকর্মীকে জাকারিয়াকে ডেকে নিয়ে Kilছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়েছে। নিহত জাকারিয়া মোহম্মদ মাসুম (২৪) সুনামগঞ্জ দক্ষিণ সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জের মাসুক মিয়ার ছেলে। বর্তমানে জাকারিয়া পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নগরীর ছড়ারপরা কামলগড় অপুর বাসায় ভাড়া থাকতো।
বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে নগরের শিবগঞ্জ লামাপাড়া গলির মুখে এ ঘটনা ঘটে। নিহত ছাত্রলীগ কর্মী যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীর অনুসারী বলে জানা গেছে।
নিহত জাকারিয়ার ছোট ভাই খালেদ মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ জানান, মঙ্গলবার আমাদের এলাকায় টিটু চৌধুরীর লোকজনদের সাথে আমার বড় ভাইয়ের পক্ষের কয়েকজনের কথা কাটাকাটির ঘটনা ঘটে। ওই বিরোধ শেষ হওয়ার পরও বুধবার বেলা ৩টার দিকে বন্দরবাজার এলাকা থেকে এমসি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা টিটু চৌধুরীসহ বেশ কয়েকজন সিএনজি অটোরিক্সা যোগে আমাকে ধরে নিয়ে যায়। সিএনজি অটোরিক্সায় থাকা অস্ত্রধারীরা আমাকে ভাইকে ফোন দিয়ে টিলাগড় এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় আমি আহত হয়েছি বলে জানাতে বলে। তা না হলে তাকে মারধর করা হবে বলে জানায়।
ছাত্রলীগ ক্যাডারদের কথামতো তাদের মোবাইল থেকে আমি আমার ভাইকে ফোন দিয়ে শিবগঞ্জ এলাকায় আসতে বলি। এ কথা শুনে আমার ভাই  শিবগঞ্জ লামাপাড়া গলির মুখ সৌরভ ফার্মেসীর সামনে আসলে তাকে আমার সামনেই ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় টিটুসহ ছাত্রলীগের অস্ত্রধারীরা। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় হাসাপাতালে নিয়ে আসা হয়।
নিহত জাকারিয়ার বাবা মাসুক মিয়া জানান, আমার দুই ছেলে এক মেয়ে সে সংসারে বড় ছিলো। বন্দরবাজার জেডি স্পোর্টস নামের একটি দোকানে চাকরি করতো। এবং সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাথে সম্পৃক্ত ছিলো।
কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, আহত জাকারিয়ার দুই পায়ের উরুতে বেশ কয়েকটি ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। এবং অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তাঁর মৃত্যু হয়েছে।Misl
শাহপরাণ থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতার হোসেন জানান, ঘটনার খবর পেয়েই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ। বর্তমানে লাশ ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের ধরতে অভিযান চালানো হচ্ছে বলে জানান তিনি।
সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) জেদান আল মুসা জানান- নিহত জাকারিয়া ব্যবসা করতো বলে জানা গেছে। অন্যদিকে ছাত্রলীগের বিবাদমান দুই দলের বিরোধের জের ধরেই খুনের ঘটনা ঘটেছে বলেও জানা গেছে।
এ ব্যাপারে ছাত্রলীগ নেতা টিটু চৌধুরীর সাথে বারাবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।
এদিকে খুন হওয়া ছাত্রলীগ কর্মী জাকারিয়া মোহাম্মদ মাসুমের খুনিদের গ্রেফতারের দাবিতে নগরীর চৌহাট্টা পয়েন্টে অবরোধ করে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান বলয়ের সুরমা গ্র“পের নেতাকর্মীরা।
বুধবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টা থেকে ছাত্রলীগ কর্মীরা চৌহাট্টা পয়েন্টে আগুন জ্বালিয়ে যানচলাচল বন্ধ করে রাখে। পরে রাত ৮টা ৪৫ মিনিটে সিলেট কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গৌছুল হোসেন ঘটনার সাথে সম্পৃক্তদের গ্রেফতারের আশ্বাস দিলে অবরোধ প্রত্যাহার করা হয়।YBu
এ সময় বিক্ষুদ্ধ ছাত্রলীগ কর্মীরা এমসি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা টিটু চৌধুরীর ফাঁসির দাবী জানান।
এ সময় জেলা ছাত্রলীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক বিপ্লব কান্তি দাস ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম দেন।
কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গৌছুল হোসেন জানান, ঘটনা শাহপরাণ থানা  এলাকায় । ছাত্রলীগ কর্মীরা অবরোধ করেছে কোতোয়ালী থানা এলাকায়। তারপরও কোতোয়ালী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অবরোধকারীদের হত্যার সাথে সম্পৃক্তদের গ্রেফতারের আশ্বাস দিলে অবরোধ তোলে নেন।