পুরাতন সংবাদ: June 26th, 2018

সিসিক নির্বাচন ॥ ১৩ কাউন্সিলর প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল

স্টাফ রিপোর্টার :
সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মনোনয়নপত্র উত্তোলন ও জমা দেয়ার শেষ তারিখ আগামী বৃহস্পতিবার। তবে এরই মধ্যে গতকাল সোমবার ১৩ কাউন্সিলর প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তবে, ১০ জন মেয়র প্রার্থী মনোনয়ন সংগ্রহ করলেও কেউ এখনও জমা দেননি। বিস্তারিত

ছাত্রলীগ কর্মী মিয়াদ হত্যা মামলা ॥ ৫ আসামীকে আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

স্টাফ রিপোর্টার :
আধিপত্যের বিস্তারের জের ধরে নগরীর টিলাগড়ে ছাত্রলীগ কর্মী ওমর মিয়াদ হত্যা মামলার ৫ এজহারনামীয় আসামিকে আদালতে হাজির হয়ে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল সোমবার দুপুরে সিলেটের মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক মফিজুর বিস্তারিত

সৈয়দ মোবারক আলী জামে মসজিদে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

শহরতলীর মেজরটিলাস্থ বাগমারা গ্রামের মরহুম সৈয়দ মোবারক আলী জামে মসজিদে গত শুক্রবার বাদ জুম্মা এক দোয়া মাজফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন মাওলানা কুতুব উদ্দিন সিরাজী। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মসজিদের বিস্তারিত

দর্শন দেউড়ী থেকে কিশোরের লাশ উদ্ধার

স্টাফ রিপোর্টার
নগরীর দর্শন দেউড়ী থেকে এক কিশোর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শুভেচ্ছা ১৫নং বাসার ২য় তলা থেকে রাফি আহমদ (১৫) নামে ঐ কিশোরের লাশ গতকাল রাত ১০টার দিকে উদ্ধার করে পুলিশ ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। নিহত কিশোর দর্শন দেউড়ী এলাকায় স্বাধীন মিয়ার পুত্র। এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত মৃত্যুর কোন কারণ জানা যায়নি।

বন ধ্বংস রোধ জরুরী

সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য একটি দেশে ২৫ শতাংশ বনভূমি থাকা প্রয়োজন। বাংলাদেশে বনভূমির সঠিক পরিসংখ্যানের অভাব রয়েছে। বিভিন্ন সূত্রে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী এর পরিমাণ ১০ শতাংশের নিচে। কোনো কোনো সূত্রের দাবি, বাংলাদেশে এখন বনভূমির পরিমাণ ৫ শতাংশের নিচে নেমেছে এবং দ্রুত তা কমছে। জনগণের কাছে দায়বদ্ধ বা জনগণের স্বাস্থ্য নিয়ে চিন্তাভাবনাকারী দেশগুলো তাই বনভূমি রক্ষার কাজটিকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়েছে। বাংলাদেশে এখনো তেমন কোনো প্রচেষ্টা লক্ষ করা যায় না। ফলে এখনো নির্বিচারে বন ধ্বংসের প্রক্রিয়া এগিয়ে চলেছে। জানা গেছে পঞ্চগড় জেলাজুড়ে গড়ে উঠেছে বহু অবৈধ করাতকল এবং এসব করাতকলের চাহিদা মেটাতে গিয়ে নির্বিচারে ধ্বংস হচ্ছে বন। এই চিত্র শুধু পঞ্চগড়েরই নয়, বরং সারা বাংলাদেশের। বনভূমির ১০ কিলোমিটারের মধ্যে কোনো করাতকল স্থাপনের বিধান নেই। অথচ বেশির ভাগ করাতকলই স্থাপিত হয় বনভূমির দু-তিন কিলোমিটারের মধ্যে। এটি রোধ করার দায়িত্ব বন বিভাগের হলেও তারা যেন এসব দেখেও না দেখার ভান করে থাকে। অভিযোগ আছে, বন বিভাগের লোকজনকে ‘ম্যানেজ’ করেই পরিচালিত হচ্ছে এসব করাতকল।
জানা যায়, পঞ্চগড় জেলার পাঁচটি উপজেলায় ২৩৮টি করাতকল রয়েছে, যার মধ্যে লাইসেন্স আছে মাত্র ৫৯টি করাতকলের। এগুলোও দীর্ঘদিন ধরে লাইসেন্স নবায়ন করে না। ফলে সরকারও রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আর লাইসেন্স ছাড়াই যদি ব্যবসা করা যায়, তাহলে অযথা খরচ করতে যাবে কে! কিন্তু লাইসেন্স প্রদানকারী কর্তৃপক্ষ কী করছে? রাজস্ব বিভাগ বা সরকারের সংশ্লিষ্ট অন্যান্য দপ্তর কী দায়িত্ব পালন করছে? জানা যায়, সেখানে দেদার চাঁদাবাজি চলছে। লাইসেন্স থাক বা না থাক, করাতকল মালিকদের মাসিক চাঁদার ভিত্তিতেই ব্যবসা চালাতে হয়। ফলে তাঁরাও আর লাইসেন্সের তোয়াক্কা করেন না। এতে দ্রুত ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে এলাকার বনাঞ্চল। এর আগে ভাওয়াল, মধুপুর, শ্রীমঙ্গলসহ অন্যান্য বনভূমির পাশে থাকা শত শত অবৈধ করাতকল নিয়েও একই ধরনের খবর প্রকাশিত হয়েছে। তাতে অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি, বরং অবনতিই চোখে পড়ে।
আমরা অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছি। ক্রমেই উন্নত দেশ হওয়ার চেষ্টা করছি। ২০৪০ সালে যদি আমরা উন্নত দেশ হই, তখন কী আমরা দেশে কোনো বনভূমি দেখতে পাব? বনভূমিহীন সেই দেশে মানুষ কি সুস্থভাবে জীবনযাপন করতে পারবে? মানুষ কি শ্বাস নেওয়ার জন্য পর্যাপ্ত অক্সিজেন পাবে? পৃথিবীর অনেক দেশে, অনেক শহরে আজ এই সংকট প্রবল। সেই সংকটে পড়ার আগেই আমাদের বন ধ্বংস রোধে ব্যবস্থা নিতে হবে।