পুরাতন সংবাদ: February 2nd, 2018

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইন আহমেদ পলক সিলেট আসছেন কাল

স্টাফ রিপোর্টার :
ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইন আহমেদ পলক এক সরকারী সফরে আগামীকাল শনিবার সিলেট আসছেন। তিনি ওইদিন দুপুর পৌনে ১ টায় বিমানযোগে সিলেট এমএজি ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পৌছে বেলা ২ টায় বিছানাকান্দির উদ্দেশ্যে বিস্তারিত

পণ্য সামগ্রী বিক্রয়ের ডিলিং লাইসেন্স গ্রহণ না করলে আইনানুগ ব্যবস্থা

পণ্য সামগ্রী বিক্রয়ের ডিলিং লাইসেন্স গ্রহন না করে বিনা অনুমতিতে অবৈধভাবে ব্যবসা পরিচালনা করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। গত ২৮ জানুয়ারী সিলেট জেলা প্রশাসকের পক্ষে ব্যবসা ও বাণিজ্য শাখার সহকারী কমিশনার রাসনা শারমিন বিস্তারিত

আদালতপাড়ায় সাংবাদিকদের উপর হামলা মামলার ঘটনা ॥ আওয়ামী লীগ নেতা লিয়াকতের ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

স্টাফ রিপোর্টার :
আদালতপাড়ায় সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় জৈন্তাপুর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলীর ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে সিলেট চিফ মেট্রোপলিটন আদালতের বিচারক মো: সাইফুজ্জামান হিরো এ বিস্তারিত

এসএসসি পরীক্ষার প্রথম দিনে অনুপস্থিত ৩৩৫ জন শিক্ষার্থী

স্টাফ রিপোর্টার :
মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষার প্রথম দিনেই সিলেট শিক্ষা বোর্ডে গত বছরের তুলনায় এবছরে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়ে ৩৩৫ এ দাঁড়িয়েছে। তবে প্রথম দিনে কেউ বহিষ্কার হননি সিলেট শিক্ষা বোর্ডে। গত বছর প্রথমদিনে অনুপস্থিত ছিলো বিস্তারিত

দক্ষিণ সুরমায় ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেল চালক নিহত

স্টাফ রিপোর্টার :
দক্ষিণ সুরমার মোগলাবাজারে ট্রাকের ধাক্কায় লায়েক মিয়া (২৫) নামের এক মটর সাইকেল চালক নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন জুনেদ (২০) নামের মটর সাইকেলটির এক আরোহী। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে মোগলাবাজারের রেবতীরমণ উচ্চ বিদ্যালয়ের বিস্তারিত

সাংবাদিকদের সাথে ব্রিফিংকালে এরশাদ ॥ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে জাতীয় পার্টি নির্বাচন চায় না

স্টাফ রিপোর্টার :
তত্ত্বাবধায়ক সরকার নয়, সংবিধানের আলোকেই জাতীয় পার্টি আগামী নির্বাচনে অংশ নিতে চায় বলে জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে সিলেটে হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজার জিয়ারত শেষে বিস্তারিত

আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো….

জেড.এম. শামসুল :
একুশ আমাদের চেতনায়, ভাবনায় ও স্বপ্নের সাথে মিশে আছে। বাংলার প্রতিটি মানুষের জীবনে একুশের প্রভাব অপরিসীম। যাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা আজ আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস হিসাবে একুশ পেয়েছি, তাদের প্রতিটি মুহূর্তে শ্রদ্ধা করি। তাদের আত্মত্যাগের কথা আজও বিস্তারিত

শক্তি প্রয়োগ করে ইসলামে দীক্ষিত করার বিধান

ডাঃ হাফেজ মাওলানা মোঃ সাইফুল্লাহ মানসুর

ইসলাম শান্তির ধর্ম, ইসলাম সাম্যের ধর্ম। সকল মত ও পথের মানুষ যেখানে খুঁজে পায় শান্তির আবাস। যেখানে নেই কোন ভেদাভেদ, নেই ফকির-রাজার বিভেদ, নেই হিংসা ও ক্লেশ। ইসলাম শক্তি দিয়ে নয়, ইসলাম ভালোবাসা দিয়ে উড়াতে চায় শান্তির বাতাস। আবার ইসলাম সেখানে উদার নয় যেখানে আছে হিংসা বিদ্বেষ আর অশান্তির দাবানল। যেখানে আছে জুলুম আর জালিমশাহীর কোপানল। ইসলাম কঠোর হস্তে দমন করতে চায় জুলুমের কালো থাবা, থামাতে চায় অশান্তির কালো ছায়া। আসুন জেনে নিই ইসলাম কোথায় শক্তি প্রয়োগ করতে চায় আর কোথায় উদার হতে চায়। কাকে শক্ত হাতে দমন করে তার হুকুম মানতে বাধ্য করে আর কাকে তার নিজের হাতে ছাড়তে চায়।
ইসলাম কোন অমুসলিমকে শক্তি প্রয়োগ করে ধর্মান্তরিত করতে চায় না :
ধর্ম হলো যার যার মনের একটি বিশ্বাসের ব্যাপার। যার সাথে জড়িত রয়েছে ব্যক্তির আবেগ, অনুভূতি, আকাক্সক্ষা চাওয়া-পাওয়া ইত্যাদি। এটি জোর করে কাউকে চাপিয়ে দেওয়া যায় না। আর ‘ইসলাম’ এমনই এই আকীদাগত এবং নৈতিক ও কর্মগত জীবনব্যবস্থা যা কারো ওপর জোর করে চাপিয়ে দেয়া যায় না। যেমন কাউকে ধরে এনে তার মাথায় জোর করে একটা বোঝা চাপিয়ে দেয়া হয়, এটা তেমন নয়৷ কারণ আল¬াহ তা’য়ালা হেদায়াত ও গোমরাহীকে, ইসলাম ও কুফরকে সুস্পষ্ট করে দিয়েছেন। বিধায় যিনি সজ্ঞানে জেনে শুনে-বুঝে সুজে ইসলামে দিক্ষিত হতে চায় তাকেই ইসলাম ঠাই দিতে চায়। আর আল্লাহ যাকে সুপথ প্রদর্শন করবেন, যার বক্ষ খুলে দিবেন, যার অন্তর উজ্জ্বল হবে, যার চক্ষু দৃিষ্টমান হবে সে আপনা আপনিই ইসলামে দীক্ষিত হতে পাগলপ্রায় হয়ে যাবে, তাকে জোর করে ইসলামে দীক্ষিত করার প্রয়োজন হবে না। যেমন আল¬াহ তা’য়ালা বলেনঃ
﴿لَا إِكْرَاهَ فِي الدِّينِ ۖ قَد تَّبَيَّنَ الرُّشْدُ مِنَ الْغَيِّ ۚ فَمَن يَكْفُرْ بِالطَّاغُوتِ وَيُؤْمِن بِاللَّهِ فَقَدِ اسْتَمْسَكَ بِالْعُرْوَةِ الْوُثْقَىٰ لَا انفِصَامَ لَهَا ۗ وَاللَّهُ سَمِيعٌ عَلِيمٌ﴾
অর্থ : দীনের ব্যাপারে কোন জোর-জবরদস্তি নেই৷ ভ্রান্ত মত ও পথ থেকে সঠিক মত ও পথকে ছাঁটাই করে আলাদা করে দেয়া হয়েছে৷ এখন যে কেউ তাগুতকে অস্বীকার করে আল্ল¬াহর ওপর ঈমান আনে, সে এমন একটি মজবুত রশি আঁকড়ে ধরে, যা কখনো ছিন্ন হবার নয়৷ আর আল্ল¬াহ সবকিছু শোনেন ও জানেন৷
অন্যদিকে রাসূল (সঃ) ইরশাদ করেন : তোমরা অমুসলিমদেরকে ইসলাম গ্রহণের ব্যাপারে কোন জোর-জবরদস্তি করো না। নিশ্চয়ই বাতিল পথ হতে সৎপথের পার্থক্য পরিষ্কার হয়ে গেছে। (হাদীস সহীহ। তাফসীর তাবারী -৫/৪০৮/৫৮১২, সুনান আবূ দাউদ-৩/৫৮/২৬৮২, সুনান নাসাঈ।
একদা আনসারদের বানূ সালিম ইবনু আওফ গোত্রের মধ্যে হুসাইন নামক একজন লোক ছিলেন। তিনি নিজে মুসলিম হলেও তার দু’টি ছেলে ছিলো খ্রিষ্টান। একবার তিনি রাসূলুল্ল¬াহ (সাল¬াল¬াহু ‘আলাইহি ওয়া সাল¬াম) -এর নিকট আবেদন করেন যে, রাসূলুল্ল¬াহ (সাল¬াল¬াহু ‘আলাইহি ওয়া সাল¬াম) যদি তাঁকে অনুমতি দেন তাহলে ছেলে দু’টিকে তিনি জোরপূর্বক মুসলিম বানাবেন। কেননা তারা স্বেচ্ছায় মুসলিম হতে চায় না। তখন لَا إِكْرَاهَ فِي الدِّينِ ۖ قَد تَّبَيَّنَ الرُّشْدُ مِنَ الْغَيِّ বাকারা-২৮৬ নং আয়াতটি অবতীর্ণ হয় এবং এরূপ করতে তিনি নিষেধ করে দেন। (হাদীসটি য‘ঈফ। তাফসীর তাবারী -৫/৪০৯/৫৮১৭)
অতএব অমুসলিমদেরকে শক্তি দিয়ে নয় বরং তার কাছে ইসলামের সুমহান আদর্শ পৌছে দেওয়া এবং উত্তম আদর্শ দিয়ে তাদের মন জয় করাই হলো হলো একজন মুসলিমের দায়িত্ব। যখন তার কাছে ইসলামে উত্তম আদর্শগুলো পরিষ্কার হয়ে যাবে, আল¬াহ যখন তার মনের সকল অসারতা দূর করে দিবেন তখন সে সকল বাধা ছিন্ন করে ইসলামের সুশিতল ছায়াই এমনিতেই আশ্রয় নিবে।
সমাজে যারা বিপর্যয় সৃষ্টি করে ইসলাম তাদের কঠোর হস্তে দমন করতে চায়ঃ
উপরের আলোচনা দেখে কেউ যদি বলে এর উপর ভিত্তি করে বলা যায় যে, ইসলামে জিহাদের কোন প্রয়োজন নেই, শক্তি প্রয়োগের কোন দরকার নেই, যে যার মত চলবে, ইচ্ছে হলে ইসলাম মানবে, ইচ্ছে হলে তা মানবে না। আমি আমার স্বাধীন সত্বা নিয়ে যা ইচ্ছে তাই করতে পারি। আমার স্বাধীনতায় ইসলাম কোন হস্তক্ষেপ করতে পারে না। ভাল কিংবা খারাপ যে কাজই আমি করি না কেন ইসলাম সেখানে বাধা দিতে পারে না। তাহলে বলবো এ কথাটি হবে চরম ভ্রান্তমূলক বা অজ্ঞতাপ্রসূত কথা যা স্বাভাবিক জ্ঞান সম্পন্ন কোন লোক এ কথা বলতে পারে না। কারণ ইসলামে জিহাদ ও যুদ্ধের শিক্ষা মানুষকে ঈমান আনার ব্যাপারে বাধ্য করার জন্য দেয়া হয়নি বরং ইসলামে জিহাদ ও যুদ্ধ দেওয়া হয়েছে ফেৎনা-ফাসাদ দূর করার জন্য, সমাজকে বিপর্যয়ের হাত থেকে বাচাঁনোর জন্যে, জুলুমের হাত থেকে মজলুমকে বাঁচাবার জন্য এবং তাগুতি শক্তির দম্ভ চুরমার করে সেখানে শান্তি ও সাম্যের এক আবাসভূমি তৈরীর জন্য। একজন ব্যক্তি ইসলাম গ্রহণ করবে কি করবে না সেটা ব্যক্তির ইচ্ছার উপর হতে পারে। সেখানে ইসলাম কোন শক্তি প্রয়োগে বিশ্বাসী নয় কিন্তু তাই বলে কোন দুষ্টু লোক সমাজে ফাসাদ সৃষ্টি করবে, মানুষের জানমালের ক্ষতিসাধন করবে, মানুষের আব্রু সম্মানে আঘাত হানবে, ইসলামের স্বাভাবিক চলার গতিপথকে রুদ্ধ করার ষড়যন্ত্র লিপ্ত থাকবে, যারা দ্বীনকে বিজয়ী শক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চায় তাদের নির্মূল করতে সবরকম ব্যবস্থা গ্রহণ করবে আর ইসলাম চুপ করে বসে থাকেবে সেটা কখোনই হতে পারে না। এ ক্ষেত্রে ইসলাম তাদের ষড়যন্ত্র ছিন্ন করতেই জিহাদের নির্দেশ দেয়। যেমন আল¬াহ তায়ালা দীপ্ত কন্ঠে বলেনঃ
إِنَّمَا جَزَاءُ الَّذِينَ يُحَارِبُونَ اللَّهَ وَرَسُولَهُ وَيَسْعَوْنَ فِي الْأَرْضِ فَسَادًا أَن يُقَتَّلُوا أَوْ يُصَلَّبُوا أَوْ تُقَطَّعَ أَيْدِيهِمْ وَأَرْجُلُهُم مِّنْ خِلَافٍ أَوْ يُنفَوْا مِنَ الْأَرْضِ ۚ ذَٰلِكَ لَهُمْ خِزْيٌ فِي الدُّنْيَا ۖ وَلَهُمْ فِي الْآخِرَةِ عَذَابٌ عَظِيمٌ﴾
অর্থাৎ যারা আল্লাহ ও তাঁর রসূলের সাথে লড়াই করে এবং পৃথিবীতে বিপর্যয় সৃষ্টি করার জন্য প্রচেষ্টা চালায়, তাদের শান্তি হচ্ছে এই যে, তাদেরকে হত্যা করা হবে অথবা শূলিবিদ্ধ করা হবে বা তাদের হাত পা বিপরীত দিক থেকে কেটে ফেলা হবে৷ অথবা তাদেরকে দেশ থেকে নির্বাসিত করা হবে৷ দুনিয়ায় তাদের জন্য এ অপমান ও লাঞ্ছনা নির্ধারিত রয়েছে আর আখেরাতের রয়েছে তাদের জন্য এর চাইতেও বড় শান্তি। সূরা মায়েদা-৩৩।
কেননা ফেতনা-ফাসাদ আল্লাহ তা’য়ালা খুবই অপছন্দ করেন। অথচ কাফেররা ফাসাদের চিন্তাতেই ব্যস্ত থাকে। তাই আল্লাহ্ তা’আলা এরশাদ করেছেন,
(كُلَّمَا أَوْقَدُوا نَارًا لِّلْحَرْبِ أَطْفَأَهَا اللَّهُ ۚ وَيَسْعَوْنَ فِي الْأَرْضِ فَسَادًا ۚ وَاللَّهُ لَا يُحِبُّ الْمُفْسِدِينَ) তারা (কাফেররা) যতবার যুদ্ধের আগুন জ্বালায় ততবারই আল্লাহ তা’য়ালা তা নিভিয়ে দেন৷ তারা জমিনে ফাসাদ করে বেড়ায় , কিন্তু আল্লাহ তাআলা ফাসাদ সৃষ্টিকারীদেরকে কখনো পছন্দ করেন না”। [সূরা আল-মায়িদাহ ৬৪]
এজন্য আল্লাহ ্ তা’আলা জিহাদের মাধ্যমে এসব দুষ্টু লোকের সৃষ্ট যাবতীয় অনাচার দূর করার জন্য মু’মিনদের নির্দেশ দেন। ইসলাম জিহাদ এবং যুদ্ধের অনুমতি দিলেও জিহাদের ময়দানে স্ত্রীলোক, শিশু, বৃদ্ধ এবং অচল ব্যক্তিদের হত্যা করতে কঠোরভাবে নিষেধ করেছে। ইসলামের এ মহান কর্মপদ্ধতিতে প্রমান করে যে, ইসলাম জিহাদ ও যুদ্ধের দ্বারা মানুষকে ইসলাম গ্রহণ করতে বাধ্য করে না, বরং এর দ্বারা দুনিয়া থেকে অন্যায় অত্যাচার দূর করে ন্যায়-ইনসাফ ও শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে চায়।
**ইসলাম দ্বীন পালনের ক্ষেত্রে মুসলিমদের উপর শক্তি প্রয়োগ করতে চায় :
কোন কোন নামধারী মুসলিম ইসলামের হুকুম-আহকাম সম্পর্কে সম্পূর্ণ উদাসীন। তারা ইচ্ছা হলে তা পালন করে আবার ইচ্ছা হলে তা পরিহার করে। তারা মনে করে ইসলামের হুকুম-আহকাম পালন করার ক্ষেত্রে কোন “জোর-জবরদস্তি নেই” তাই তারা নিজেদের ইচ্ছামত বল্গাহীন জীবন-যাপন করতে চায়। তাদেরকে এ ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হচ্ছে যে, ইসলাম বলেছে যে, শুধুমাত্র যারা ইসলাম গ্রহণ করেনি তাদেরকে জোর করে ইসলামে আনা যাবে না। কিন্তু যারা নিজেদের মুসলিম বলে দাবী করে তারা ইসলামের প্রতিটি আইন ও যাবতীয় হুকুম-আহকাম বিশেষ করে আল্লাহর ফরজ বিধানগুলি মানতে তারা বাধ্য। সেখানে শুধু জোর-যবরদস্তিই নয় বরং শরীআত না মানার শান্তি ও ইসলামে নির্ধারিত রয়েছে। যেমন নামাজের ব্যপারে বিভিন্ন হাদীসের আলোকে আহলে সুন্নাত বিদ্বানগণের মধ্যে ইমাম মালেক, ইমাম শাফেঈ, এবং প্রাথমিক ও পরবর্তী যুগের প্রায় সকল ওলামায়ে-কেরামগণ এই মর্মে একমত হয়েছেন যে, ঐ ব্যক্তি ‘ফাসিক্ব’ এবং তাকে তওবা করতে হবে। যদি সে তওবা করে নামাজ আদায় শুরু না করে, তবে তার শাস্তি হবে মৃত্যুদন্ড। আর ইমাম আবু হানীফা (রহ.) মতে, তাকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে এবং নামাজ আদায় না করা পর্যন্ত জেলখানায় আবদ্ধ রাখতে হবে। ইমাম আহমদ বিন হাম্বল বলেন, ঐ ব্যক্তিকে নামাজের জন্য ডাকার পরেও যদি সে ইনকার করে ও বলে যে ‘আমি নামাজ আদায় করব না’ এবং এইভাবে ওয়াক্ত শেষ হয়ে যায় তখন তাকে কঠোর শাস্তি ওয়াজিব। অবশ্যই এরূপ শাস্তিদানের দায়িত্ব হ’ল ইসলামী সরকারের। শুধু তাই নয় প্রয়োজনে তাদের সাথে যুদ্ধ করে তাদেরকে দ্বীনের যাবতীয় আইন মানতে বাধ্য করানো অন্যান্য মুসলিমদের উপর ওয়াজিব। (তাফসীরে আবু বকর যাকারীয়া) যেমনটি সিদ্দিকে আকবর আবু বকর রাদিয়াল¬াহু আনহুর খেলাফত কালে যাকাত প্রদানে অনীহাকারীদের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করেছিলেন। আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে তার দ্বীন সঠিকভাবে বুঝার তৌফিক দান করুন এবং সকল ধরনের ফেতনা-ফাসাদ হতে দূরে থাকার পথকে সহজ করে দিন আমিন।

কাঁচা পাট রফতানি

কাঁচা পাটের রপ্তানি আবার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সরকারের উদ্দেশ্য অভ্যন্তরীণ চাহিদা, মূলত বিভিন্ন পণ্যের জন্য মোড়ক তৈরির প্রয়োজন মেটাতে সরবরাহ পর্যাপ্ত মাত্রায় রাখা। কাঁচা পাটের রপ্তানি আগেও নিষিদ্ধ হয়েছে। কোনোবারই রপ্তানিকারকদের সঙ্গে আলোচনা করা হয়নি, এবারও হয়নি। তাই তাঁরা ক্ষুব্ধ। তাঁদের আশঙ্কা, এ সিদ্ধান্তের ফলে বাজারে বিরূপ প্রভাব পড়বে, পাটের দাম কমে যাবে, উৎপাদকরা পাট উৎপাদনে নিরুৎসাহী হবেন। তাঁদের অভিযোগ, নিষেধাজ্ঞার কারণ স্পষ্ট করেনি সরকার। রপ্তানিকারকরা আগের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে উঠছিলেন মাত্র, তখনই আবার নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলো। এটা তাঁদের জন্য মারাত্মক আঘাত। অনেকের বিদেশি ক্রয়াদেশ আছে, আচমকা নিষেধাজ্ঞায় তাঁদের বড় ক্ষতি হবে। তাঁদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া দরকার ছিল। এ সিদ্ধান্তে পাট উৎপাদকরাও শঙ্কিত।
বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় গত ১৮ জানুয়ারি তিন ধরনের কাঁচা পাট রপ্তানি নিষিদ্ধ ঘোষণা করে আদেশ জারি করেছে। বলা হয়েছে, নতুন আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত বাংলা তোষা রিজেকশন (বিটিআর), আনকাট ও বাংলা হোয়াইট রিজেকশন (বিডাব্লিউআর)—এ তিন ধরনের কাঁচা পাট রপ্তানি বন্ধ থাকবে; তবে অন্যান্য ধরনের কাঁচা পাট রপ্তানি করা যাবে। বাংলা অঞ্চলে ব্যাপক মাত্রায় পাটের চাষ ও পাটের ব্যবসার শুরু প্রায় ২০০ বছর আগে। আমাদের অর্থনৈতিক উন্নয়নে নিয়ামক ভূমিকার কারণেই পাট সোনালি আঁশ আখ্যা পেয়েছিল। সত্তরের দশকের মাঝামাঝি আন্তর্জাতিক বাজারে কৃত্রিম সুতার সরবরাহ বাড়ায় পাটের চাহিদায় টান পড়ে। নব্বইয়ের দশকের মাঝামাঝি বিশ্বব্যাংকের পরামর্শে পাটের বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্তের কারণে পাট নিয়ে আমাদের গর্ব চূর্ণ হয়। উৎপাদনে ধস নামে। পরবর্তী সময়ে সরকার পাটের উৎপাদন, বাজার ও গৌরব ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নেয়। এতে কিছু কাজ হলেও সোনালি পর্বের প্রত্যাবর্তন এখনো হয়নি।
বাংলাদেশ পর্বে কাঁচা পাটের রপ্তানি বিভিন্ন সময়ে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, ১৯৮৪, ২০১০ বা ২০১৫ সালে রপ্তানি নিষিদ্ধ করার আগে তাঁদের সঙ্গে আলোচনা করা হয়নি। ২০১০ সালে পাটদ্রব্য দিয়ে পণ্যের মোড়ক তৈরি বাধ্যতামূলক করা হয়। তখন দেশের পাটকলগুলোর জন্য পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিত করতে এক মাস কাঁচা পাট রপ্তানি বন্ধ রাখা হয়েছিল। রাষ্ট্রায়ত্ত মিলগুলো মূলত পণ্য মোড়কজাত করার জন্য চট বা বস্তা তৈরি করে। আর বেসরকারি মিলগুলো মূলত স্পিনিং অর্থাৎ সুতা তৈরি করে। পাটের দেশি ভোক্তা মূলত তারাই। সরকার অভ্যন্তরীণ প্রয়োজন মেটাতে রপ্তানি নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নিতেই পারে; তবে উৎপাদক, রপ্তানিকারক, প্রস্তুতকারক সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে নেওয়া উচিত। উৎপাদিত সব পাট যদি অভ্যন্তরীণভাবে কাজে লাগানো না যায়, তাহলে নিষেধাজ্ঞা ক্ষতিরই কারণ হবে। সংশ্লিষ্টদের স্বার্থ রক্ষা করে, তাদের মতকে সম্মান দিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত।