পুরাতন সংবাদ: January 2018

মাধবপুরে সোহেল হত্যা মামলায় ২ জনের স্বীকারোক্তি

হবিগঞ্জ থেকে সংবাদদাতা :
হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় সোহেল মিয়া (৩৫) হত্যা মামলায় গ্রেফতার দুইজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।
মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) সন্ধ্যা ৭টায় হবিগঞ্জের সিনিয়র বিস্তারিত

এসএসসি কেন্দ্রের ২শ’ গজের মধ্যে বহিরাগত প্রবেশ নিষেধ

কাজিরবাজার ডেস্ক :
আগামী ১ ফেব্র“য়ারি থেকে অনুষ্ঠেয় এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রের ২শ’ গজের মধ্যে পরীক্ষার্থী ছাড়া জনসাধারণের প্রবেশ পুরোপুরি নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।
পরীক্ষা সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করার লক্ষ্যে মঙ্গলবার বিস্তারিত

চট্টগ্রামের মাদক ব্যবসায়ী সিলেটে অস্ত্রসহ গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার :
চট্টগ্রামের মাদক ব্যবসায়ী সিলেটে অস্ত্রসহ গ্রেফতার সিলেটে শহরতলীর সুরমা গেইট থেকে চট্টগ্রামের মাদক ব্যবসায়ী খসরুকে (২৭) রিভলবারসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। সোমবার (২৯ জানুয়ারি) রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সিলেট র‌্যাব-৯ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান বিস্তারিত

ওসমানীনগরে ফ্রেন্ডস গ্র“পের সভা ॥ খালেদা জিয়ার নামে দায়ের করা সকল মামলা প্রত্যাহার করতে হবে

ওসমানীনগর থেকে সংবাদদাতা :
ওসমানীনগরে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠন আদর্শিত সংগঠন ফ্রেন্ডস গ্র“পের সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় উপজেলার পশ্চিম পৈলনপুর ইউনিয়নের কিয়ামপুর এলাকায় উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক ও ফ্রেন্ডস গ্র“প সংগঠনের নেতা কামরুজ্জামান কামরুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিস্তারিত

ওসমানীনগরের প্রত্যন্ত অঞ্চলে উচ্চ শিক্ষার দ্বার খোলে দিয়েছে মোল্লাপাড়া আব্দু মিয়া কলেজ – এহিয়া চৌধুরী এমপি

ওসমানীনগর থেকে সংবাদদাতা :
বন ও পরিবশে মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য, সংসদ সদস্য ইয়াহ্ইয়া চৌধুরী এহিয়া বলেছেন, প্রত্যন্ত অঞ্চলে উচ্চ শিক্ষার দ্বার খুলে দিয়েছে মোল্লাপাড়া হাজী আব্দু মিয়া কলেজ। এলাকার প্রবাসী পরিবারের মহৎ উদ্যোগে পাড়া গায়ে এই কলেজটি নির্মিত হওয়ায় এ অঞ্চলের সাধারণ বিস্তারিত

বেগম জিয়ার সাজা হলে এরশাদ খুশি হবেন ————— এডভোকেট রকিব

ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টির সভাপতি এডভোকেট মাওলানা আব্দুর রকিব এক বিবৃতিতে বলেন, গ্রহণযোগ্য সাক্ষ্য প্রমাণ ছাড়া মিথ্যা সাজানো মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী, ২০ দলীয় জোটনেত্রী দেশনেত্রী বেগম বিস্তারিত

যে সকল প্রকল্পগুলোর উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার :
সিলেটে ১৮টি প্রকল্পের উদ্বোধন ও ১৭টি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল মঙ্গলবার বেলা ৩টা ১মিনিটে জনসভাস্থল নগরীর আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে এসে পৌঁছান আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী। এরপর সেখানে তিনি বিস্তারিত

বিএনপি নেতা গয়েশ্বর রায় আটক

কাজিরবাজার ডেস্ক :
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে আটকের অভিযোগ করেছে তার দল ও পরিবার। তবে অভিযোগ অস্বীকার করছে পুলিশ।
মঙ্গলবার রাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের গু বিস্তারিত

শুক্রবারের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর ॥ কানাইঘাটের নারাইনপুর গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দু’পক্ষ মুখোমুখি

কানাইঘাট থেকে সংবাদদাতা :
গত শুক্রবার রাতে কানাইঘাট ঝিঙ্গাবাড়ী ইউপির নারাইনপুর আগফৌদ গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অর্ধশতাধিক লোকজন আহত হওয়ায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। যে কোন সময় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে গ্রামের বর্তমান বিস্তারিত

বিশ্ব পরিমন্ডলে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা

॥ অধ্যাপক এমিরেট্সা ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন ॥

(পূর্ব প্রকাশের পর)
শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে বাংলাদেশ জাতিসংঘে দুটি যুগান্তকারী প্রস্তাব আনে ২০১২ সালে, যা সর্বসম্মতিক্রমে বিশ্বসভায় গৃহীত হয়। এর প্রথমটি ছিল অটিজম ও প্রতিবন্ধী শিশুদের অধিকার সংক্রান্ত, আর দ্বিতীয়টি জনগণের ক্ষমতায়ন সংক্রান্ত। তিনি বিশ্বাস করেন, সবারই অংশগ্রহণের সমান সুযোগ রয়েছে, কারোরই বাদ পড়ার কথা নয়। মানবতা ও উন্নয়নে সবাই নিজ নিজ সামর্থ্য অনুযায়ী অবদান রাখতে পারে। তাই অটিজমে আক্রান্ত এবং প্রতিবন্ধী শিশুদের জীবন যন্ত্রণা ও বঞ্চনার বিষয়টি যখন তার কন্যা সায়মা ওয়াজেদ হোসেন আমাদের কাছে তুলে ধরলেন আমরা তখন এ নিয়ে কাজ করি। বাংলাদেশ দ্রুত এ বিষয়টি বিশ্বসভায় উত্থাপন করে এবং বিশ্ব নেতৃত্বের দৃষ্টি আকর্ষণ ও সমর্থন আদায় করে।
অটিজম এবং প্রতিবন্ধিতা সংক্রান্ত অনেক বড় বড় সভা আহবান করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতিসংঘ এবং তার সদস্য রাষ্ট্রগুলোর সামনে বিষয়টি উত্থাপিত হওয়ার পরপরই তা প্রথমত সেকন্ড কমিটিতে, যার সভাপতি ছিল বাংলাদেশ সেখানে পেশ করা হলে প্রস্তাবটি অনুমোদিত হয় এবং পরবর্তীতে জাতিসংঘের সাধারণ সভা ও সবকটি জাতিসংঘ সংস্থার কর্মকান্ডে বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত হয়। এক্ষেত্রে বৈশ্বিক নেতৃত্বটি অবশ্যই বাংলাদেশের এবং দেশটির নেতা শেখ হাসিনার।
বিগত ৪০ বছরের জাতীয় ও বৈশ্বিক রাজনীতির অভিজ্ঞতা থেকে শেখ হাসিনা জানেন যে, সামনের দিনগুলোতে বিশ্বের প্রধানতম চ্যালেঞ্জগুলো হবে জলবায়ু পরিবর্তন, বেকারত্ব, আর্থিক সঙ্কট, দীর্ঘস্থায়ী ক্ষুধা ও দারিদ্র্য, পানির অভাব এবং এগুলো থেকে উদ্ভূত হাজারো সমস্যা। তাই তিনি বিশ্বাস করেন এই চ্যালেঞ্জগুলো তখনই মানুষ অতিক্রম করতে সক্ষম হবে যখন নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সবার ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করা যাবে। একেই তিনি বলছেন ‘জনগণের ক্ষমতায়ন’ বা ‘চবড়ঢ়ষবং ঊসঢ়ড়বিৎসবহঃ—ধ চবধপব-ঈবহঃৎরপ উবাবষড়ঢ়সবহঃ গড়ফবষ.’ এটি সম্ভব হলে সৃজনশীলতা, উদ্ভাবনী শক্তি, সক্ষমতা এবং কার্যকারিতার সঙ্গে মানুষ কাজ করতে পারবে। ফলে সবাই সমভাবে উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় অবদান রাখতে পারবে। তাই জনগণের ক্ষমতায়নের প্রতি তিনি এতটা গুরুত্ব আরোপ করেছেন।
এখন প্রশ্ন হচ্ছে, কিভাবে জনগণকে ক্ষমতায়িত করা যাবে? বিষয়টিকে তিনি ৬টি আন্তঃসংযুক্ত চালকের দ্বারা বিশ্লেষণ করেছেন। প্রথমত. মানুষের ক্ষমতায়ন হবে চরম দারিদ্র্য ও ক্ষুধামুক্তি সম্ভব হলে। দ্বিতীয়ত. তাদের ক্ষমতায়ন সম্ভব হবে প্রয়োজনীয় দক্ষতা, কারিগরি জ্ঞান, প্রযুক্তি অর্জন ও মানসম্মত শিক্ষাদানের মাধ্যমে, যাতে করে তারা নিজেরাই কর্মসংস্থান বা উপযুক্ত চাকরির ব্যবস্থা করে স্বাবলম্বী হবে। তৃতীয়ত. তাদের ক্ষমতায়ন সম্ভব হতে পারে বৈষম্য ও বঞ্চনার অবসানের মাধ্যমে। চতুর্থত. সন্ত্রাস নির্মূল করে একটি নিরাপদ জীবন নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে তাদের ক্ষমতায়ন করা যাবে। পঞ্চমত. এতদিন যারা উন্নয়ন ও মূল জীবনধারার বাইরে ছিল তাদের অন্তর্ভুক্ত করে ক্ষমতায়ন করা যাবে এবং সর্বোপরি তাদের ক্ষমতায়ন সম্ভব হবে ভোটাধিকার নিশ্চিত করার ও শাসন ব্যবস্থায় সক্রিয় অংশগ্রহণের সুযোগ সৃষ্টির মাধ্যমে।
শেখ হাসিনার ‘জনগণের ক্ষমতায়ন’ ধারণাটি জাতিসংঘের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনসহ সদস্য রাষ্ট্রসমূহের নেতৃবৃন্দের মধ্যে অনুরণিত হয়েছে। ২০১২ সালে ব্রাজিলের রিও ডি জেনিরোতে অনুষ্ঠিত ‘রিও+২০ বিশ্ব সম্মেলনে’ বিশ্ব নেতৃবৃন্দ ‘কেমন ভবিষ্যত চাই’ শীর্ষক দলিল গ্রহণ করেন, যার মধ্যে শেখ হাসিনা প্রণীত জনগণের ক্ষমতায়ন নীতিমালা এবং তার সঙ্গে জড়িত আদর্শ অনুসৃত হয়। উক্ত সম্মেলনে দারিদ্র্য দূরীকরণের ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করা হয়, যার মূল ভিত্তি হিসেবে গণ্য করা হয়েছে সকলের অংশগ্রহণের ভিত্তিতে সামাজিক, অর্থনৈতিক ও পরিবেশগত স্থিতিশীলতা অর্জন। সম্প্রতি জাতিসংঘ কর্তৃক গৃহীত প্রস্তাব যা ‘ ২০৩০ অমবহফধ ভড়ৎ ঝঁংঃধরহধনষব উবাবষড়ঢ়সবহঃ ড়ৎ ঝউএং’ নামে পরিচিত সেটির মূল ভিত্তিই ছিল রিও+২০তে অনুসৃত ‘কেমন ভবিষ্যত চাই’ শীর্ষক দলিল, যেখানে শেখ হাসিনার জনগণের ক্ষমতায়নের প্রতিফলন রয়েছে। বিশ্ব নেতৃবৃন্দ এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা জাতিসংঘে গ্রহণ করেন ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে, যার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য যথার্থভাবেই শেখ হাসিনা প্রণীত জনগণের ক্ষমতায়ন নীতিমালার আলোকে সবার অন্তর্ভুক্তি, মানসম্মত শিক্ষা, প্রযুক্তি হস্তান্তর, দারিদ্র্য দূরীকরণ, জনগণের অংশগ্রহণ, আইনের শাসন, সুশাসন ইত্যাদি নির্ধারিত হয়।
তার গতিশীল নেতৃত্বে জাতিসংঘে বাংলাদেশ কর্তৃক উত্থাপিত প্রতিটি বিষয়ই এসডিজির ১৭টি লক্ষ্য এবং ১৬৯টি উদ্দেশ্যের মাঝে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে খাদ্য নিরাপত্তা, জ্বালানি নিরাপত্তা, জলবায়ু পরিবর্তন, প্রযুক্তি হস্তান্তর, শিল্পায়ন, অবকাঠামো উন্নয়ন, শহর ও নগর এবং অভিবাসন উন্নয়ন, মানসম্মত শিক্ষা, নারীর ক্ষমতায়ন ও লিঙ্গ সমতা, শুল্কমুক্ত কোটামুক্ত বাজার প্রবেশাধিকার, জলসম্পদের আন্তঃদেশীয় ব্যবস্থাপনা, জীববৈচিত্র্য, নীল অর্থনীতি (সাগর ও মহাসাগর), বিশ্ব আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহে উন্নয়নশীল দেশগুলোর অধিকতর অংশগ্রহণের সুযোগ, শান্তি ও স্থিতিশীলতা, আইনের শাসন, পারস্পরিক সহযোগিতা, এমওআই, এলডিসি ইস্যু ইত্যাদি।
জাতিসংঘের সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এমডিজি) অর্জনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের যে অবিস্মরণীয় অগ্রগতি, তা মূলত সম্ভব হয়েছে দেশটির নেতা শেখ হাসিনার উন্নয়ন চিন্তা এবং জনগণের মুক্তির লক্ষ্যে তার অবিচল প্রতিজ্ঞার কারণেই। সম্পদের ব্যাপক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও কেবল নেতৃত্বের বিচক্ষণতা, দৃঢ়তা এবং সঠিক দিকনির্দেশনার কারণেই বাংলাদেশ এই লক্ষ্য অর্জনে সক্ষম হয়েছে। তাছাড়া ডায়নামিক পরিশ্রমী জনগোষ্ঠী প্রধানমন্ত্রীর আহবানে সাড়া দিয়েছে উৎসাহভরে, যার ফলে অর্জন সহজ হয়। একদা যে দেশকে বলা হয়েছিল ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ (ইড়ঃঃড়সষবংং ইধংশবঃ), যার ‘সফল হওয়ার কোন সম্ভাবনাই’ বিশ্ব মোড়লেরা দেখেনি, সেই দেশের গড় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আজ ৬.৩ শতাংশ, তাও আবার একনাগাড়ে সাত বছর ধরে। চরম দারিদ্র্য ১৯৯১ সালে যেখানে ছিল ৫৭.৮ শতাংশ, ২০১৫ সালে তা কমে এসেছে ২২.৪ শতাংশেরও নিচে। একই সঙ্গে নবজাত শিশু মৃত্যুর হার ৭৩ শতাংশ কমিয়ে আনতে পেরেছে বাংলাদেশ। বিশ্বের সর্বাধিক জনঅধ্যুষিত ও স্বল্প আয়তনের এক দেশের জন্য এই সাফল্য একেবারে কম নয়। আর এই অর্জন সম্ভব হয়েছে শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বের কারণেই।
দেশের অভ্যন্তরে ব্যাপক বিরোধিতা এবং নানা প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও শেখ হাসিনা তাঁর দৃঢ় ও আপোসহীন সিদ্ধান্তের দ্বারা দেশকে উন্নয়নের পথে যেভাবে পরিচালিত করছেন এবং করেছেন, তার কল্যাণেই বাংলাদেশ খাদ্যে প্রায় স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে। অথচ পূর্বে দীর্ঘ সময় ধরে দেশটি ছিল খাদ্য ঘাটতির মধ্যে। এই ব্যাপক পরিবর্তনের জন্য শেখ হাসিনা এবং তাঁর দেশবাসী বিশ্বসভায় সাধুবাদ পেতেই পারেন। আর তারই প্রমাণ আমরা দেখি যখন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন বলেন, বাংলাদেশ হচ্ছে ‘অর্থনৈতিক উন্নয়নের মডেল’ এবং ‘নারীর ক্ষমতায়নের উজ্জ্বল নক্ষত্র’। আমেরিকার প্রভাবশালী ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের ভাষায় বাংলাদেশ হচ্ছে ‘দক্ষিণ এশিয়ার আলোকবর্তিকা’ আর গোল্ডম্যান শ্যাক্স তাদের গ্লোবাল অবস্থানে বাংলাদেশকে এন-১১তে উন্নীত করেছে, যার অর্থ হচ্ছে ১১টি অগ্রসরমান অর্থনীতির দেশ বাংলাদেশ। নিউইয়র্ক টাইমস মনে করে যদি উগ্র সন্ত্রাসবাদ কোথাও মাথাচাড়া দেয় তাহলে তা দেবে পাকিস্তানে, কখনও বাংলাদেশে নয়। কারণ শেখ হাসিনার নারী শিক্ষার জোর ও নারীর সক্ষমতায়ন।
দুর্যোগের ঝুঁকি মোকাবেলার প্রস্তুতির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ পৃথিবীর অন্যতম প্রধান দেশের সুনাম অর্জন করেছে। বিশ্ব নেতৃবৃন্দ শেখ হাসিনার নেতৃত্বের স্বীকৃতিস্বরূপ তাকে একাধিক পদকে ভূষিত করেছেন, যার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য ‘এমডিজি-৪ পুরস্কার’ (২০১০)। ‘সাউথ-সাউথ পুরস্কারে’ তিনি ভূষিত হন ২০১৩ সালে… দেশজুড়ে ১৩ হাজার ৮০০ কমিউনিটি ক্লিনিক প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা জনগণের কাছে পৌঁছে দেয়া এবং ৪ হাজার ৫০১টি ইউনিয়ন তথ্যকেন্দ্রের মাধ্যমে জনগণকে সফলভাবে ইন্টারনেট ও তথ্যপ্রযুক্তির সংযোগের আওতায় নিয়ে আসার স্বীকৃতিস্বরূপ। ২০১৪ সালে তাঁকে ‘সাউথ-সাউথ লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করা হয় বিশ্বের দক্ষিণের দেশগুলোতে নেতৃত্বের দূরদর্শিতার স্বাক্ষর হিসেবে। ২০১৫ সালে তিনি জাতিসংঘ কর্তৃক দুটি পুরস্কারে ভূষিত হন। এগুলো হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তনে প্রভাব মোকাবেলায় সফলতার জন্য ‘চ্যাম্পিয়ন্স অব দ্য আর্থ’ পুরস্কার এবং টেলিযোগাযোগ খাতে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ‘আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন সংস্থার পুরস্কার’ বা ‘আইটিইউ এ্যাওয়ার্ড’।
২০০০ সালে যখন জাতিসংঘে সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এমডিজি) ঘোষণা প্রদান করা হয় তখন শেখ হাসিনা বাংলাদেশের নেতা হিসেবে সেখানে উপস্থিত ছিলেন। আবার ২০১৫ সালে যখন ২০৩০ সালের মধ্যে অর্জনের লক্ষ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) গৃহীত হয় তখনও তিনি বাংলাদেশের সরকারপ্রধান হিসেবে জাতিসংঘে নেতৃত্বদান করেন। তিনিই বিশ্বের একমাত্র নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী বা নেতা, শুধু মহিলাদের মধ্যে নয়, সবার মধ্যেও যিনি জাতিসংঘের উন্নয়ন সংক্রান্ত এ দু-দুটি মাইলফলক ঘোষণার সময় নিজের দেশের নেতা হিসেবে উপস্থিত থাকার সৌভাগ্য অর্জন করেন। তাঁর দেশ সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সক্ষম হবে মর্মে ২০০০ সালের সম্মেলনে তিনি ব্যক্তিগতভাবে প্রতিশ্র“তি দেন বিশ্ব নেতৃবৃন্দের সামনে। সেই প্রতিশ্র“তি তিনি রক্ষা করেছেন। বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম, যে সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে পেরেছে। ২০১৫ সালের সম্মেলনে আবার যখন বিশ্ব নেতৃবৃন্দ টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করলেন (যা ২০৩০ সালের মধ্যে অর্জন করতে হবে) তখন শেখ হাসিনা বিশ্বসভায় এই প্রতিশ্র“তি দেন যে, তাঁর দেশ এই লক্ষ্যমাত্রাও যথাসময়ে পূরণ করবে। শুধু সেখানেই সীমাবদ্ধ থাকেননি, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্য আয়ের এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত দেশে রূপান্তরের ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রেরণায় উজ্জীবিত হয়ে তাঁরই স্বপ্নের সোনার বাংলা গঠনের লক্ষ্যে কাজ করছেন তাঁরই সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী ও বিশ্বনেত্রী শেখ হাসিনা। এ হবে এমন এক বাংলাদেশ যেখানে সবাই পাবে সমানাধিকার, ন্যায়বিচার এবং সুষম উন্নয়নের সুযোগ। যেখানে সমৃদ্ধি ও শান্তির মাঝে বাস করবে দেশের প্রতিটি মানুষ। সেই ‘সোনার বাংলার’ স্বপ্নই দেখেছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব।
সাউথ-সাউথ দেশগুলোর অর্থনৈতিক ক্ষমতার পরিধি ক্রমেই বাড়ছে। তাদের ব্যবসা-বাণিজ্যের পরিমাণ ২ গুণ বেশি বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে ৬ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে। প্রায় ৩০ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারের এক বিশাল বাজারে পরিণত হবে এ দেশগুলো। তা সত্ত্বেও এ দেশগুলোর পূর্ণ সম্ভাবনা এখনও বাস্তবায়িত হয়নি। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য দেশগুলোকে প্রতিবছর ৫ ট্রিলিয়ন ডলার খরচ করতে হবে। বর্তমানে বৈদেশিক সাহায্য স্কিমের (ঙউঅ) আওতায় উন্নয়ন সহযোগী রাষ্ট্রসমূহ গেল দশ বছরে গড়ে ১৫৬ বিলিয়ন ডলার সহায়তা দিয়ে থাকে, (অসমাপ্ত)